১১ বছর বয়সী নাবালিকাকে ধর্ষণ করে নৃশংসভাবে হত্যার ঘটনা গুজরাটে, গ্রেফতার এক

34

মহানগর ডেস্ক: রবিবার ১১ বছর বয়সী একটি নাবালিকাকে অপহরণ করার পর ধর্ষণ করে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গুজরাটের সুরাট জেলার থেকে ১৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত পালসানা শহরের কাছে।

সোমবার পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে যে ইতিমধ্যেই একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং নাবালিকাটিকে গোপনাঙ্গে গুরুতর ভাবে আঘাত করা হয়েছিল এবং তারপর নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে তাকে। তবে ওই নাবালিকাকে ধর্ষণের ঘটনায় একজনের জায়গায় একাধিক মানুষ জড়িত আছে কিনা সেই বিষয়ে খতিয়ে দেখছে পুলিশ।

পালসানা থানার আধিকারিক জানিয়েছেন,’ নাবালিকাটিকে তার বাড়ির কাছে একটি ফ্ল্যাটে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল যখন তার বাবা-মা দূরে ছিলেন এবং সেখানে তাকে ধর্ষণ করা হয়েছিল। যখন তার বাবা-মা বাড়ি ফিরে দেখেন যে সে নিখোঁজ ছিল, তারা অনুসন্ধান শুরু করেন এবং পরে তাকে বাইরে থেকে তালাবদ্ধ একটি ঘরে গুরুতর আহত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেছিলেন। আর ওই ফ্ল্যাটটি নাবালিকাটির বাসভবন থেকে খুব দূরে অবস্থিত ছিল না।’

এরপর তিনি আরও জানান,’ মেয়েটির বাবা মা তাকে একটি বেসরকারী হাসপাতালে নিয়ে যায়, যেখানে ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ভারতীয় দণ্ডবিধির ধারা নং ৩০২ (খুনের শাস্তি), ৩৭৬ (ধর্ষণের জন্য শাস্তি), ৩৪১ (অন্যায়ভাবে আটকে রাখা), ৩৪২ (অন্যায়ভাবে আটকে রাখা) , ৩৬১ (অপহরণ) এবং যৌন অপরাধ থেকে শিশুদের সুরক্ষা (POCSO) আইনের অধীনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।’

সোমবার সন্ধ্যায় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে সুরাট রেঞ্জের পুলিশের মহাপরিদর্শক রাজকুমার পান্ডিয়ান বলেছেন যে দয়ারাম নামে পরিচিত একজন ব্যক্তিকে অপরাধের সাথে জড়িত থাকার জন্য গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন,’ তদন্তের সময় সিসিটিভি ফুটেজের ভিত্তিতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল যে মেয়েটিকে ধর্ষণের পর ঘরের মধ্যে আটকে রাখার জন্য তিনি একটি তালা কিনেছিলেন।’