সিএএ-কে কোণঠাসা করতে দিল্লিতে ১৩ জানুয়ারি বৈঠকে বিরোধীরা, থাকছেন মমতাও

9
bengali news

Highlights

  • কোনও মূল্যেই সিএএ আইন দেশে লাগু করতে দেওয়া হবে না
  • ১৩ জানুয়ারি মোদী সরকারকে চাপে ফেলে দিল্লিতে বৈঠক বিরোধীদের
  • মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়াও উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে শরদ পাওয়ার, অরবিন্দ কেজরিওয়াল, অখিলেশ যাদবদের

মহানগর ওয়েবডেস্ক: কোনও মূল্যেই সিএএ আইন দেশে লাগু করতে দেওয়া হবে না। বিজেপি সরকারের এই আইনকে কোণঠাসা করতে ইতিমধ্যেই একসুরে গেয়ে উঠেছে বিরোধী শিবির। অবিজেপি রাজ্যগুলি একে অপরকে চিঠি পাঠিয়ে ফের একজোট হওয়ার বার্তা দিয়েছে। এরই মাঝে জানা গেল আগামি ১৩ জানুয়ারি মোদী সরকারকে চাপে ফেলে দিল্লিতে বৈঠক করতে চলেছেন দেশের প্রায় সমস্ত বিরোধী নেতা নেত্রীরা। যেখানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়াও উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে শরদ পাওয়ার, অরবিন্দ কেজরিওয়াল, অখিলেশ যাদবদের মতো নেতাদের।

এনআরসি তো বটেই। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আগেই জানিয়ে দিয়েছিলেন পশ্চিমবঙ্গে কোনও মূল্যেই লাগু করতে দেওয়া হবে না সিএএ-র মতো বিভাজনের আইন। এমনকি এই আইনের বিরোধিতায় সমস্ত অবিজেপি রাজ্যগুলিকে একত্রিত হয়ে মাঠে নামার অনুরোধ করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিছুদিন পরই কেরলের বাম মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন আবার মুখ্যমন্ত্রী সহ বাকি অবিজেপি রাজ্যগুলিকে চিঠি দিয়ে সেই একই অনুরোধ করেন। সেই পথে হেটেই এবার জানা গেল আগামী ১৩ জানুয়ারি দিল্লিতে তৈরি হচ্ছে সেই মঞ্চ, যেখানে এক সুরে প্রতিবাদ করা হবে সিএএ আইনের। সূত্রের খবর, কংগ্রেসের তরফে এই বৈঠকে উপস্থিত থাকছেন রাহুল গান্ধী বা সনিয়া গান্ধী। থাকছেন বিএসপি নেত্রী মায়াবতী ও সপার অখিলেশ যাদব। এছড়াও শরদ পাওয়ার, অরবিন্দ কেজরিওয়ালের মতো নেতৃত্বের উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে এই মঞ্চে। পাশাপাশি দেশের বাকি প্রায় সমস্ত বিরোধী নেতারা উপস্থিত থাকতে চলেছেন এই গোপন বৈঠকে।

উল্লেখ্য, সিএএ তো বটেই সাম্প্রতিক জেএনইউ কাণ্ডের জেরে এই মুহূর্তে বেশ চাপে রয়েছে কেন্দ্রীয় বিজেপি নেতৃত্ব। এমনকি রবিবার রাতের ওই ঘটনার জেরে দলের অন্দরেই বহু নেতৃত্ব ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছেন। সরাসরি এই ঘটনায় অভিযোগের আঙুল উঠেছে বিজেপির ছাত্রসংগঠন এবিভিপির দিকে। এই আবহের মধ্যেই প্রতিবাদের রাস্তা ঠিক করে নিতে গোপন বৈঠকে এককাট্টা হতে চলেছেন দেশের বিরোধী নেতৃত্বরা।