২৬০০ ফুট নীচে নেমে মা হলেন প্রসূতি!

6

নিজস্ব প্রতিনিধি: প্রতিবন্ধকতা জয়ে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছিল সরকার। তাতেই মিলল সাফল্য। ২৬০০ ফুট নীচে নেমে এসে মা হলেন বক্সা পাহাড়ের এক মহিলা।

১৫ জানুয়ারি প্রসব বেদনা দেখা দেয় বক্সা পাহাড়ের দারাগাওয়ের পাশালুং ডুকপার। পরিবারের লোকজন দ্রুত খবর দেন পাহাড়ে চালু হওয়া পালকি অ্যাম্বুলেস পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থাকে। ওই অ্যাম্বুলেন্সে চড়েই পাহাড়ের এবড়ো খেবড়ো পথ পেরিয়ে পাহাড়ের পাদদেশে জিরো পয়েন্টে নামিয়ে আনা হয় ওই প্রসূতিকে। সেখান থেকে গাড়িতে চাপিয়ে ওই বধূকে নিয়ে আসা হয় কালচিনি লতাবাড়ি মাদার হাবে। সব মিলিয়ে প্রায় ২৬০০ ফুট নীচে নেমে আসেন ওই বধূ। শারীরিক সমস্যা বেড়ে যাওয়ায় ওই দিনই তাঁকে নিয়ে আসা হয় আলিপুরদুয়ার জেলা হাসপাতালে। সোমবার সেখানেই এক ফুটফুটে সন্তানের জন্ম দেন ওই প্রসূতি। অ্যাম্বুলেন্সের সাফল্যে খুশি কর্তারা।

৯ই ডিসেম্বর দুর্গম বক্সা পাহাড় থেকে অসুস্থ রোগী ও গর্ভবতী মহিলাদের সমতলের হাসপাতালে আনতে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে চালু করা হয়েছিল পালকি আ্যম্বুলেন্স পরিষেবা। এতদিন বক্সা পাহড়ের কেউ অসুস্থ হলে তাঁকে বাঁশের মাচায় ট্রেকিং করে সমতলে নামিয়ে আনতে হত৷ এবার থেকে এই পালকি অ্যাম্বুলেন্সে করেই রোগীদের নিয়ে আসা হবে হাসপাতাল বা কোনও স্বাস্থ্যকেন্দ্রে। জেলা প্রশাসন, স্বাস্থ্য দফতর ও এক বেসরকারি সংস্থার উদ‍্যোগে শুরু হয়েছে এই পরিষেবা৷ সেই পরিষেবাই সাফল্যের মুখ দেখল এদিন।