অবশেষে ছায়াপথের মাঝে ধরা পড়ল ‘ব্ল্যাকহোলে’র বিরল ছবি, নেটমাধ্যমে হইচই

55

মহানগর ডেস্ক: এই বিশাল আকাশগঙ্গা ছায়াপথের আমরা ক্ষুদ্র থেকে ক্ষুদ্রতর জীব। আর এই সবকিছুর মাঝে রয়েছে ব্ল্যাক হোল। গ্লোবাল রিসার্চ টিম ইভেন্ট হরাইজন টেলিস্কোপ এর সহযোগিতায় প্রথমবার আকাশগঙ্গা ছায়াপথের সুপারম্যাসিভ ব্ল্যাক হোল ছবি ধরা পড়েছে। রেডিও টেলিস্কোপের সাহায্যে বিশ্বব্যাপী সেই ব্ল্যাকহোলের ছবি প্রকাশ্যে এসেছে। একটু অবাক করার বিষয় তাই না!

বহু বিজ্ঞানীর অক্লান্ত পরিশ্রমের ফল। জার্মানির ইউরোপিয়ান সাউদার্ন অবজারভেটরি সদরদপ্তর সারাবিশ্বে একযোগে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এই ছবিটি সম্প্রচার করেছে। এর আগে ছায়াপথের কেন্দ্রস্থলে অদৃশ্য কিছু চারপাশে নক্ষত্রকে প্রদক্ষিণ করতে দেখা গিয়েছিল। যা ব্ল্যাকহোল নামে পরিচিত। বৃহস্পতিবার অর্থাৎ গতকাল প্রকাশ্যে আসে ব্ল্যাক হোলের ছবি। যেখানে পরিষ্কারভাবে দেখা গিয়েছে যে ছায়াপথের মাঝে রয়েছে কালো অন্ধকার একটি স্থান যাকে ব্ল্যাকহোল নাম দেওয়া হয়েছে। ছবিতে যে ব্ল্যাক হোল ধরা পড়েছে তা সূর্যের চেয়েও ৪ মিলিয়ন গুণ বেশি বড়।

পাঁচ বছর ধরে বিজ্ঞানীরা এর ওপর গবেষণা করেছিল। এই গবেষণার সঙ্গে যুক্ত ছিল ৩০০ জন বিজ্ঞানী, ৮০টা ইনস্টিটিউট। ২৭ হাজার আলোকবর্ষের মধ্যে থেকে ওই ব্ল্যাক হোল চিহ্নিত হয়েছে। প্রত্যেকের অক্লান্ত পরিশ্রমের ফল হিসেবে গোটা মানব জগত দেখতে পেয়েছে অসাধারণ একটি দৃশ্য।

এই প্রসঙ্গে এক বিজ্ঞানী জানিয়েছেন, এতদিনের গবেষণা এক অভূতপূর্ব দৃশ্য সকলের সামনে এসেছে। যেখান থেকে জানা গিয়েছে, ছায়াপথের মাঝে দৈত্যাকার এই ব্ল্যাকহোলগুলি কিভাবে আশেপাশের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করে রয়েছে। ২০১৯ সালে ইটিএইচ (ETH) প্রথম প্রকাশ্যে এনেছিল ব্ল্যাকহোলের ছবি। গবেষক মহল মনে করছে বিজ্ঞানীদের এই অর্জন অনেক বেশি কঠিন ছিল M87 ব্ল্যাকহোল এর থেকে।