India-Bangladesh: প্রেমিকাকে দেখতে সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশ, জুটল অন্য প্রেমিকের ধোলাই

67

মহানগর ডেস্ক: প্রেমের টানে সুদূর তামিলনাড়ু থেকে বরিশালে (Barishal) ছুটে এল প্রেমিক। আর সেখানে গিয়ে প্রমিকার সাথে দেখা হল, খাওয়া হল। কিন্তু তারপর কপালে জুটল প্রেমিকার সে দেশে থাকা অন্য এক প্রেমিকের উত্তম মধ্যম ধোলাই। আহত যুবক তথা প্রেমিক ‘প্রেমাকান্ত’র অভিযোগ মারধোর করে তার টাকা পয়সাও হাতিয়ে নেয় প্রেমিকার আর এক প্রেমিক চয়ন হালদার।

বাংলাদেশ হাই কমিশনারেট (Banglades High Commissionerate) সূত্রে খবর, ২০১৯ সালে ফেসবুকেই তামিলনাড়ুর নেটওয়ার্কিং ইঞ্জিনিয়ারিং পাশ যুবক প্রেমকান্ত এর সাথে বাংলাদেশের বরগুনার তালতলি উপজেলার এক কলেজ পড়ুয়া কিশোরীর আলাপ হয়। সে সময় প্রেমিকার টিকটক ভিডিওর নাচ দেখেই মুগ্ধ হয়ে যায় ভারতীয় এই যুবক। শুরু হয় কথা। একে অপরের পোস্টে লাইক, কমেন্ট, একে একে শুরু হয় ভাবের আদান প্রদান। তার থেকে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পরে দুজন বলে দাবি ইঞ্জিনিয়ার যুবকের। কিন্তু তার পরেই শুরু হয় সেই বিশ্ব মহামারী করোনা। একে একে বন্ধ হয় বিমান, ট্রেন, বাস। তাই সশরীরে দেখার ইচ্ছা অধরাই থেকে যায়। তারই মধ্যে ভারত বাংলাদেশ যুবক যুবতীর প্রেমের সম্পর্ক দ্রুত পরিবারিক হতে থাকে। চলে এক পরিবারের সঙ্গে আর এক পরিবারের সামাজিক মাধ্যমের যোগাযোগ। অবশেষে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হতে ফোনে থাকা মনের মানুষকে সামনে থেকে দেখতে ২৪ জুলাই তামিলনাড়ু থেকে বরিশাল আসে প্রেমিক। একটি রেস্টুরেন্টে দুইজনের দেখাও হয়। কিন্তু ঘটনা এখন থেকেই নতুন মোড় নেয়। প্রেমকান্ত জানতে পারে ওই মেয়ের চয়ন হালদার নামে আরও এক যুবকের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক আছে। দেখা করতে এসে সেই প্রেমিকের হাতে বেধড়ক মারও খায় প্রেমকান্ত। এমনকি তার টাকা পয়সাও ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ ওঠে। এমনকি তাকে থানায় রাতও কাটাতে হয়েছে বলে দাবি।

 

যদিও এব্যাপারে বরিশাল এয়ারপোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কমলেশচন্দ্র হালদার জানান ওই যুবক ভারতীয় হাওয়ায় নিরাপত্তার স্বার্থে তাকে থানায় আনা হয়েছে এবং তার থেকে পুরো ঘটনা পুলিশ জানতে পারে। অবশেষে খোঁজ নিয়ে জানা যায় যে মেয়ের সাথে তার সম্পর্ক, বাংলাদেশ আইন অনুসারে সে কিশোরী। তাই বিয়ে দেওয়া সম্ভব নয়। এরপর পুলিশ তাকে বুঝিয়ে দেশে ফেরার জন্য ভারতীয় হাইকমিশনের সঙ্গে যোগাযোগ করে গত সোমবার সকালে ঢাকার গাড়িতে তুলে দেয়। সেখান থেকে নিজ দায়িত্বে বিমানযোগে পুলিশের সহযোগিতায় ওই যুবকের দেশে ফেরার কথা।

প্রসঙ্গত, এর আগেও একাধিক বার সোস্যাল মিডিয়ার প্রেম ঘিরে নানা প্রতারণার স্বীকার হয়েছে যুবক যুবতীরা। আর সেখানেই প্রশ্ন থেকে যাচ্ছে, সোশ্যাল মিডিয়া কি তাহলে দিন দিন তরুণ তরুণীদের প্রেমের ফাঁদ হয়ে উঠছে? নাকি এটা এই বয়সের উচ্ছ্বাস, যেখানে নেই কোনও বাস্তব জ্ঞান, আছে শুধু কাল্পনিক জগতের মায়াজাল?