ব্যক্তিগত মত বাস্তবে রূপায়িত, কমিশন ও আদালতকে টুইট করে ধন্যবাদ জানালেন অভিষেক

30

মহানগর ডেস্ক: সম্প্রতি তিনি ডায়মন্ড হারবার থেকে জানিয়েছিলেন, তার ব্যক্তিগত মত আগামী দুমাস সমস্ত কিছু বন্ধ করা উচিত। সেই মতই শনিবার পুরভোট পিছিয়ে যাওয়ার বিজ্ঞপ্তি জারি করে নির্বাচন কমিশনের তরফে। জানানো হয়, আদালতকে সম্মান জানিয়ে তারা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ২২ জানুয়ারি ৪ কেন্দ্রে পুরভোট করার কথা ছিল। কিন্তু তা পিছিয়ে ১২ ফেব্রুয়ারি করা হয়েছে। আর কমিশনের এই সিদ্ধান্তের প্রতি ধন্যবাদ জানিয়ে টুইট করেছেন এবার তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়।

শনিবার টুইট করে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় লিখেছেন, রাজ্যে পুরভোট তিন সপ্তাহ পিছিয়ে দেওয়ার জন্য মাননীয় আদালত ও রাজ্য নির্বাচন কমিশনকে আন্তরিক ভাবে ধন্যবাদ জানাই। আমরা করোনার বিরুদ্ধে একযোগে লড়াই করব। আগামী তিন সপ্তাহের মধ্যে বাংলার পজিটিভ রেট যেন ৩ শতাংশ কম হয় তা নিশ্চিত করতে হবে। নিরবের নিজের অবস্থান স্পষ্ট করে দিল তৃণমূলের অন্দরে তিনি। যাকে নিয়ে এত বিতর্ক সেই কিনা মাস্টার স্ট্রোক দিল। ইতিমধ্যে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের টুইট ঘিরে শুরু হয়ে গিয়েছে আলাপ-আলোচনা। বিশ্লেষকদের মতে সম্প্রতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এর ব্যক্তিগত মত প্রকাশের বিরুদ্ধে সরব হয়েছিলেন কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। তার আগে নিজের সংসদীয় এলাকা তে কোনরকম মিটিং-মিছিল জমায়েতে বারণ করেছিলেন ডায়মন্ডহারবারের সাংসদ। চলতি সপ্তাহের বৃহস্পতিবার অভিষেকের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেন কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়।

তিনি জানান, অভিষেক যে পদে রয়েছেন তাতে তার কোনও ব্যক্তিগত মতামত থাকতে পারেনা। এমনকি অভিষেকের নেতৃত্ব প্রমাণিত হয়নি বলেও দাবি তোলেন তিনি। ডায়মন্ড হারবার থেকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, এখন মেলা, খেলা, ভোট সমস্ত কিছু বন্ধ করা উচিত। দু মাস সব বন্ধ রাখা উচিত। মানুষ বাঁচলে আমরা বাঁচব। এটা ছিল তার ব্যক্তিগত মত। আর এরপরই দলের অন্দরমহলে শুরু হয়ে যায় বাকযুদ্ধ।