মেয়ের সম্ভ্রম বাঁচাতে যাওয়া মাকে খুন, বাগনানে অভিযুক্ত নেতাকে দল থেকে তাড়াল তৃণমূল

12
kolkata news

 

নিজস্ব প্রতিনিধি, উলুবেড়িয়া: পাশের বাড়ির এক যুবতীকে রাতের অন্ধকারে ছাদে গিয়ে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছিল। মেয়ের চিৎকার শুনে ছুটে আসেন মা। সেই সময় তাকে ধাক্কা মেরে ফেলে দেয় অভিযুক্ত তৃণমূল নেতা। এই ঘটনার পরদিন মায়ের মৃত্যু হয় হাসপাতালে। বাগনানের এই ঘটনায় দু’দিন ধরে কার্যত রণক্ষেত্র হয়ে আছে গোটা এলাকা। অভিযুক্ত তৃণমূল নেতা কুশ বেরাকে আগেই গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এদিন তার বাড়িতে যথেচ্ছ ভাঙচুর চালায় এলাকার লোকজন।

ওই তৃণমূল নেতার স্ত্রী স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য। তৃণমূল নেতা হিসাবে এলাকায় দাপট ছিল অভিযুক্ত কুশ বেরার। ওই তৃণমূল নেতার বাড়িতে জনরোষ আছড়ে এদিন সকালে। দলের এই নেতা গ্রেফতার হওয়ায় পর পদক্ষেপ করেছে শাসক দল। অভিযুক্ত হিসাবে নাম সামনে আসার পর ওই তৃণমূল নেতাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। বুধবার একথা জানিয়েছেন হাওড়া জেলা তৃণমূল পর্যবেক্ষক তথা পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

উল্লেখ্য, মেয়ের সম্মান বাঁচাতে গিয়ে মায়ের মৃত্যু হওয়ার ঘটনায় বুধবার সকাল থেকে উত্তাল হয়ে ওঠে হাওড়ার বাগনান। অভিযুক্ত তৃণমূল নেতাকে গ্রেফতারের দাবিতে ৬ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন স্থানীয় লোকজন। ধর্ষণের চেষ্টা এবং এক মহিলার মৃত্যুর ঘটনায় পুলিশ গ্রেফতার করেছে তৃণমূল নেতা কুশ বেরাকে। অভিযুক্ত তৃণমূল নেতা স্থানীয় পঞ্চায়েতের সদস্যার স্বামী। পাশাপাশি পুলিশ এই ঘটনায় আরও এক জনকে গ্রেফতার করেছে।

উল্লেখ্য, এই ঘটনায় তৃণমূলের বিরুদ্ধে মাঠে নেমে পড়েছে বিজেপি। মেয়ের সম্মান বাঁচাতে গিয়ে মায়ের মৃত্যুর ঘটনায় বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘তৃণমূলে নাম লেখালে ধর্ষণের লাইসেন্স পাওয়া যায়। বাচ্চা বাচ্চা মেয়েদেরও ছাড়া হয় না।‘ মেয়ের সম্মান বাঁচাতে গিয়ে দুষ্কৃতীর হাতে মায়ের মৃত্যু হওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘পুলিশ যেন ওই মহিলার করোনায় মৃত্যু হয়েছে বলে প্রমাণ করার চেষ্টা না করে। যদি এমনটা হয়, আমরা বৃহত্তর আন্দোলনে নামব। কারণ অভিযুক্তের স্ত্রী স্থানীয় পঞ্চায়েতের সদস্য। তাই এখানে ঘটনাটা চাপা দেওয়ার চেষ্টা চলছে। কারণ, তৃণমূলে নাম লেখালে সব কিছুতেই ছাড় পাওয়া যায়।‘