Ankita Adhikari: স্কুলের পর ‘সহকারী অধ্যাপকের’ পদে ইন্টারভিউ মন্ত্রী কন্যার, নিয়োগ স্থগিত করল কমিশন

438

মহানগর ডেস্ক: স্কুল সার্ভিস কমিশনের (SSC) শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। আর সেই দুর্নীতিতে নাম বেরিয়ে এসেছে রাজ্যের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারী (Paresh Adhikari) কন্যা অঙ্কিতা অধিকারীর (Ankita Adhikari)। এবার স্কুল সার্ভিস কমিশনের পর মন্ত্রী কন্যার নাম উঠে এল কলেজ সার্ভিস কমিশনেও। জানা গিয়েছে, গত ২৬ এপ্রিল সহকারী অধ্যাপক পদে ইন্টারভিউ দিয়েছিলেন পরেশ-কন্যা। এবার এই দুর্নীতির মাঝে গত জুন মাসে শুরু হওয়ার কথা ছিল সহকারী শিক্ষক নিয়োগ। এবার সেই নিয়োগের ওপর স্থগিতাদেশ জারি করল কমিশন। বলা হয়েছে, কমিশন চত্বর সংস্কারের জন্য জুনে সহকারী অধ্যাপক পদে নিয়োগের ইন্টারভিউ প্রক্রিয়া স্থগিত করে দেওয়া হয়েছে।

গত ২০ মে রাজ্যের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশের কন্যা অঙ্কিতাকে শিক্ষিকার চাকরি থেকে বরখাস্ত করার নির্দেশ দেন কলকাতা হাইকোর্ট। এমনকি মন্ত্রী কন্যাকে দীর্ঘ চার বছর চাকরি করার মাইনে আদালতে জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এরইমধ্যে পরেশ অধিকরীর বিরুদ্ধে উঠে এসেছে একাধিক তথ্য। কখনও বিরোধীদের মুখে শোনা গিয়েছে, শুধু মেয়েকেই নয়, নিজের পরিবারের ২৫ জনকে সরকারি চাকরি করিয়ে দিয়েছেন পরেশ অধিকারী। এরইমধ্যে জানা যাচ্ছে, স্কুলের চাকরির পর কলেজে চাকরির জন্য চেষ্টা করছিলেন অঙ্কিতা অধিকারী।

আরও পড়ুন: ‘শুধু তদন্ত নয়, রেজাল্ট চাই’ CBI-এর কাজে ‘অসন্তুষ্ট’ দিলীপ ঘোষ!

এমনই দুর্নীতির মাঝে কলেজের সহকারি অধ্যাপক নিয়োগের প্রক্রিয়া স্থগিত করল কমিশন। শুক্রবার বিজ্ঞপ্তি জারি করে কমিশনের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, কমিশন চত্বরে সংস্কারের জন্য জুনে সহকারী অধ্যাপক পদে নিয়োগের ইন্টারভিউ প্রক্রিয়া স্থগিত করে দেওয়া হয়েছে। তবে জুলাইতে হবে সেই ইন্টারভিউ প্রক্রিয়া। পরে সেই ইন্টারভিউয়ের পূর্ণাঙ্গ সূচি প্রকাশ করে জানানো হবে।

ইতিমধ্যেই মন্ত্রী কন্যার এই দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছেন তাঁর বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীরা। অঙ্কিতা অধিকারী চাকরি থেকে বরখাস্ত হওয়ার নোটিশ গিয়ে পৌঁছেছে তার শিক্ষাকতা করার স্কুলে। তবে মেয়ে কিভাবে চাকরি পেয়েছিল? তা নিয়ে প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়েছে পরেশ অধিকারীকে। সিবিআইয়ের জেরায় বারবার হাজিরা দিতে দেখা গিয়েছিল নিজাম প্যালেসে।