La Liga: ডিপাইয়ের পেনাল্টি মিসে ফের হার বার্সেলোনার, চাকরি খোয়ালেন কোচ, হোঁচট খেয়ে লিগ জমিয়ে দিল রিয়াল

20
পেনাল্টি নষ্টের পর হতাশ ডিপাই।

মহানগর ডেস্ক: লা লিগার খেতাবি দৌড়ে নাটকীয়তার ছোঁয়া দেওয়ার যাবতীয় দায়িত্ব মনে হয় একার কাঁধে তুলে নিয়েছে রিয়াল মাদ্রিদ। সপ্তাহের শুরুতেই লা লিগার এল ক্লাসিকোয় বার্সেলোনার মাঠে জয় পাওয়া দলটির কাছে সুবর্ণ সুযোগ ছিল একক ভাবে শীর্ষস্থান দখল করে নেওয়ার। কিন্তু স্যান্টিয়াগো বার্না ব্যুতে ওসাসুনার বিরুদ্ধে লস ব্ল্যাঙ্কোসের ম্যাচটি শেষ হয় গোলশূন্য ভাবে। গায়ের সঙ্গে সেঁটে থাকা সেভিয়াও ড্র করেছে। বড় ব্যবধানে জয় পেয়েছে রিয়াল বেতিস। আর রিয়াল সোসিয়েদাদও গত ম্যাচে ড্র করায় বর্তমানে লিগ টেবিলের অবস্থা বেশ জমজমাট। এই চারটি দলই এখন সমান ২১ করে পয়েন্ট নিয়ে বসে রয়েছে।

ঘরের মাঠে ওসাসুনার বিপক্ষে জয় পেলেই ১০ ম্যাচে ২৩ পয়েন্ট হয়ে যেত রিয়ালের। কিন্তু ঘরের মাঠে দর্শক সমর্থন নিয়েও কোনও গোল করতে পারেননি গ্যালাকটিকোরা। গোলশূন্য ড্রয়ের পরও লিগে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছেন কার্লো আনচেলত্তির শিষ্যরা। তার মধ্যে রিয়াল মাদ্রিদ, সেভিয়া এবং রিয়াল সোসিয়েদাদ ১০টি করে ম্যাচ খেলে ২১ পয়েন্ট ঝুলিতে পুরেছে। তিন নম্বরে থাকা রিয়াল বেতিস অবশ্য একটি ম্যাচ বেশি খেলেছে বাকিদের থেকে। ২১ পয়েন্টে থাকা প্রথম চারটি দলই ছটি করে জয় এবং তিনটি করে ড্রয়ের মুখ দেখেছে।

এল ক্লাসিকোর একাদশে তিনটি পরিবর্তন এনে দল সাজিয়েছিলেন রিয়াল কোচ আনচেলত্তি। আক্রমণে রদ্রিগোর বদলে নেমেছিলেন মার্কো আসেনসিও। মাঝমাঠে লুকা মদ্রিচকে বিশ্রাম দেওয়ায় সুযোগ মিলেছিল এদুয়ার্দো কামাভিঙ্গার। আর রক্ষণে রাইটব্যাক পজিশনে বহুদিন পর প্রথম একাদশে দেখা গেল দানি কারভাহালকে। কিন্তু খেলা দেখে মনে হচ্ছিল, এল ক্লাসিকোর ঘোর কাটেনি এখনও। আগের দুই ম্যাচে ৭ গোল করা দলটি কোনও গোল পায়নি এদিন। প্রথমার্ধে ভিনিসিয়াস জুনিয়রকে একটা ফাউল করা হয়েছিল ডি-বক্সে। রিয়ালের পেনাল্টি আবেদনে সারা দেননি রেফারি। ভিএআরও এই সিদ্ধান্তে আপত্তি জানায়নি।

তবে ভিডিও রিপ্লে দেখে সবারই মনে পড়েছে গত ২৪ অক্টোবর ভিয়ারিয়ালের বিপক্ষে অ্যাথলেটিক বিলবাওকে এমন ঘটনাতেই পেনাল্টি দেওয়া হয়েছিল। এই নিয়ে ম্যাচের শেষে রেফারির সঙ্গে কথা বলে অসন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন রিয়ালের হেডস্যার। দ্বিতীয়ার্ধেও গোলের ভালো সুযোগ খুব একটা সৃষ্টি করতে পারেনি মাদ্রিদ জায়ান্টরা। একবার করিম বেনজিমার শট পোস্টে লেগেছে। দু’টি ভালো সেভ করেছেন ওসাসুনার গোলকিপার। দ্বিতীয়ার্ধে রদ্রিগো, হ্যাজার্ড ও লুকাস ভাসকেজ নামলেও ওসাসুনার গোলমুখ খুলতে পারেনি রিয়াল। ম্যাচে ৭৫ শতাংশ বল দখলে রেখে ১৭টি শট নেয় রিয়াল, যার মধ্যে তিনটি ছিল লক্ষ্যে। অন্যদিকে ওসাসুনার ৭ শটের একটিও লক্ষ্যে ছিল না।

অন্যদিকে, ১০ ম্যাচে মাত্র ১৫ পয়েন্ট সংগ্রহ করে নয়ে আছে বার্সেলোনা। ব্যর্থতার বৃত্ত থেকে যেন কিছুতেই বেরোতে পারছে না কাতালানরা। এল ক্লাসিকোতে হারের ধাক্কা এখনও তাজা। সেই ক্ষতে নুনের ছিটে দিল রায়ো ভায়োকানো। অ্যাওয়ে ম্যাচে ১-০ গোলে হারল বার্সা। টানা দুই ম্যাচে হারের জেরে চাকরিও খোয়াতে হল রোনাল্ড কোম্যানকে।

ম্যাচে বল দখল এবং আক্রমণে এগিয়ে থাকলেও আসল কাজটিই করতে পারেনি বার্সেলোনা। তাদের নেওয়া ১৬টি শটের মধ্যে মাত্র একটি ছিল লক্ষ্যে। অন্যদিকে ১৩টি শটের তিনটি লক্ষ্যে রেখে একটি গোল আদায় করে নেয় ভায়োকানো। ডি ইয়ং ও আনসু ফাতিকে ছাড়া বার্সা শুরু থেকেই এলোমেলো ফুটবল খেলে। ৩০ মিনিটে পিছিয়েও পড়ে তারা। রাদামেল ফ্যালকাও ডি-বক্সে ঢুকে জেরার্ড পিকেকে কাটিয়ে কোনাকুনি শট নেন। বল দূরের পোস্টের ভেতরের কানায় লেগে জড়ায় জালে।

দ্বিতীয়ার্ধে বার্সার ভাগ্য বদল হতে পারত। কিন্তু ৭২ মিনিটে পেনাল্টি পেয়েও গোল করতে ব্যর্থ হন মেম্ফিস ডিপাই। তাঁর স্পট কিক ডানদিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে ফেরান ভায়েকানোর গোলরক্ষক দিমিত্রিয়েস্কি। শেষ পর্যন্ত ১-০ গোলের হার নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় বার্সাকে। লাগাতার ব্যর্থতার জেরে চাকরি খোয়ালেন কোম্যান। বার্সার পরবর্তী কোচের দৌড়ে রয়েছেন ক্লাবের কিংবদন্তি জাভি।