Bengal Bye Polls: পুজো শেষ হতেই শুরু উপনির্বাচনের প্রস্তুতি, জেতা দিনহাটা ও শান্তিপুরেও বিপাকে পদ্মশিবির

12

মহানগর ডেস্ক: শারদোৎসব প্রায় শেষের পথে। আকাশে বাতাসে আজ বিষাদের সুর। কিন্তু এর মধ্যেই রাজনৈতিক দরকষাকষি ফের শুরু হয়ে গিয়েছে। দিনহাটা (কোচবিহার), খড়দহ (উত্তর ২৪ পরগণা), গোসাবা (দক্ষিণ ২৪ পরগণা) ও শান্তিপুরে (নদিয়া)- মাসের শেষে বঙ্গের এই ৪ কেন্দ্রে উপনির্বাচন হতে চলেছে। তাই তৃণমূল-বিজেপির পাশাপাশি সলতে পাকানো শুরু করেছে বাম ও কংগ্রেস। তবে লড়াই যে দুই ‘ফুল’ এর মধ্যে হবে তা এক প্রকার নিশ্চিত।

কিন্তু পদ্মশিবিরের আত্মবিশ্বাস এখন একদম তলানিতে। বিধানসভা নির্বাচনে বিশাল পরাজয়, একের পর এক জনপ্রতিনিধিদের দলত্যাগ ও উপনির্বাচনের প্রথম দফায় বিপুল ভোটে হার বিজেপির মেরুদণ্ডকে দুর্বল করেছে। এদিকে নির্বাচন হতে চলা ৪টি কেন্দ্রের মধ্যে বিধানসভা নির্বাচনে ২টি দখল করেছিল বিজেপি। দিনহাটায় ৫৭ ভোটে তৃণমূল প্রার্থী উদয়ন গুহকে পরাজিত করেন বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিক।

নবনির্বাচিত বিধায়ক নিশীথ সাংসদ পদ ছাড়তে চাননি। তাই দিনহাটায় ফের নির্বাচন। একইভাবে শান্তিপুরে বিপুল ভোটে জয়লাভ করেন বিজেপি প্রার্থী তথা সাংসদ জগন্নাথ সরকার। তিনিও বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা দেন। উপনির্বাচনের পরিস্থিতি তৈরি হয় নদিয়া জেলার এই কেন্দ্রেও। এই দুই কেন্দ্রের উপনির্বাচনের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে দুই সাংসদকেই। তাও ভয় কাটছে না বিজেপির।

খড়দহ ও গোসাবা নিয়ে তেমন মাথাব্যথা না থাকলেও শান্তিপুর ও দিনহাটা বিজেপির জন্য ‘প্রেস্টিজ ফাইট’। তাই যেনতেনভাবে এই দুই কেন্দ্রে জয়ী হতে চাইছেন সুকান্ত-শুভেন্দুরা। তবে শান্তিপুরে দলীয় ভাঙন চিন্তায় রাখছে বিজেপিকে। শান্তিপুর শহর বিজেপির সভাপতি দল ছেড়ে সম্প্রতি তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। আবার বাবলা গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় অনেক বিজেপি কর্মী-সমর্থক তৃণমূলে যোগদান করেছেন। তাই বিশেষজ্ঞরা এই দুই কেন্দ্রেও তৃণমূলের জয়কে অপাঙক্তেয় বা অসম্ভব মনে করছেন না।

Also Read:

Jharkhand: ঝাড়খণ্ডে দুর্গা পুজোয় ভোগ বিতরণে নিষেধাজ্ঞা, ক্ষমা না চাইলে প্রতিমা নিরঞ্জন কর্মসূচি স্থগিতের দাবি পুজো উদ্যোক্তাদের

IPL Final: ‘মর্গ্যান আজ না খেললে আশ্চর্য হব না’, KKR অধিনায়ককে নিয়ে বিষ্ফোরক ভবিষ্যৎবাণী মাইকেল ভনের

শেষবেলায় মা’কে বরণ করতে গিয়ে ভেঙে পড়লেন কৃষ্ণনগর রাজবাড়ির রানি মা