Bratya Basu: SSC দুর্নীতির মাঝেই লন্ডন সফর বাতিল ব্রাত্য বসুর, কারণ নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে

102
Bratya Basu: SSC দুর্নীতির মাঝেই লন্ডন সফর বাতিল ব্রাত্য বসুর, কারণ নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে

মহানগর ডেস্ক: রাজ্যজুড়ে এসএসসি দুর্নীতির (SSC Scam) মাঝেই বিদেশ সফর বাতিল হল বর্তমান শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু (Bratya Basu) এবং শিক্ষা সচিব মনিশ জৈনের (Manish Jain)। জানা গিয়েছে, রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী এবং শিক্ষা সচিবের লন্ডন যাওয়ার কথা ছিল সেখানে ব্রিটিশ সরকারের তত্ত্বাবধানে একটি বিনিয়োগ সভার আয়োজন করা হয়েছিল। আগামী ২৩ এবং ২৪ মে সেই সম্মেলন ছিল। শেষ মুহূর্তে তাঁদের এই সফর বাতিল করা হয়।

যদিও রাজ্যের এই শিক্ষামন্ত্রী এবং শিক্ষা সচিবের বিদেশ সফর বাতিলের কারণ ইতিমধ্যেই সরকারি তরফ থেকে বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়নি। তবে যেটুকু সূত্রের খবর যে রাজ্য জুড়ে তোলপাড় হচ্ছে এসএসসি দুর্নীতি মামলা। আর তার জেরেই মূলত বর্তমান শিক্ষা দফতরের দায়িত্বে থাকা উচ্চপদস্থ আধিকারিকের এই সফর বাতিল করা হল।

পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের (Partha Chatterjee) পর এসএসসি দুর্নীতি মামলায় (SSC Scam) এবার সিবিআইয়ের (CBI) নজরে উপদেষ্টা কমিটি কমিটির পাঁচ সদস্যের স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি। মূলত জানা যাচ্ছে, চাকরিপ্রার্থীদের থেকে মোটা অংকের টাকা ঘুষ নেওয়া হয়েছে কিনা সেই বিষয়টি খতিয়ে দেখতেই কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার তরফ থেকে উপদেষ্টা কমিটির সদস্যদের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট এবং আয়কর (Income Tax) সংক্রান্ত তথ্য বিস্তারিতভাবে জমা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

উপদেষ্টা কমিটির সদস্য শান্তি প্রসাদ সিনহা সহ ৫ জনের থেকে চাওয়া হয়েছে স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তির হিসেব। শেষ ৫ বছরে এই উপদেষ্টা কমিটির সদস্যদের নামে এবং বেনামে কী কী সম্পত্তি রয়েছে? সে বিষয়ে বিস্তারিতভাবে লিখিত হিসেব চাওয়া হয়েছে সদস্যদের কাছ থেকে। এছাড়াও জমা দিতে বলা হয়েছে আয়কর রিটার্ন সংক্রান্ত ফাইল।

মূলত এই সম্পত্তির হিসেব চাওয়ার বিষয়ে সিবিআই সূত্রে জানানো হয়েছে, যেহেতু এসএসসির দুর্নীতিতে প্রচুর টাকা লেনদেন হয়েছে, তাই এনারা কোনও ভাবেই সেই আর্থিক লেনদেনের সঙ্গে যুক্ত কিনা সে বিষয়ে জানতেই এই তথ্য চাওয়া হয়েছে।

ইতিমধ্যেই এসএসসি দুর্নীতি কাণ্ডে শনিবার সকালেই নির্ধারিত সময়ের আগেই নিজাম প্যালেসে হাজিরা দিয়েছেন রাজ্যের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারী। পর পর এই নিয়ে তিনদিন তাঁদের একটানা জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। মন্ত্রী কন্যা অঙ্কিতা অধিকারীর চাকরি ইতিমধ্যেই বাতিল করে দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। এমনকি মন্ত্রী কন্যাকে ২০১৮ সাল থেকে চাকরি করার সমস্ত মাইনে কোর্টে জমা দিতে নির্দেশ দিয়েছে।