‘মুখ্যমন্ত্রী একজন মিথ্যাবাদী’, দাবি বিজেপি সাংসদ জগন্নাথ সরকারের

27

মহানগর ডেস্ক: বিভিন্ন জেলায় প্রশাসনিক বৈঠক করছেন তৃণমূল সুপ্রিমো তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখান থেকেই তিনি বিধায়কদের কাছ থেকে নানারকম অভাব-অভিযোগ এবং আঞ্চলিক কাজকর্মের খোঁজখবর নিচ্ছেন। সদ্যই তিনি নদিয়া জেলার প্রশাসনিক বৈঠক করেছেন। আর সেই বৈঠকে বিজেপি বিধায়কের না ডাকার বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন পদ্ম শিবিরেরই সাংসদ জগন্নাথ সরকার। এছাড়াও তিনি মন্ত্রীকে মিথ্যাবাদী বলে সম্বোধন করেন।

এদিন জগন্নাথ সরকার বলেন, ‘নদিয়ায় গঙ্গা নদীর পাড় ভাঙন নিয়ে প্রশাসনিক বৈঠকে যখন একজন বিধায়ক সেই সমস্যা তুলে ধরেন, সে বিষয় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, এটা কেন্দ্রের বিষয় এখানে আমরা কিছু করতে পারব না। কিন্তু সত্যিই যদি এটা কেন্দ্রের বিষয় থাকতো তাহলে তৃণমূল বিধায়ক রা কেন বস্তা বস্তা বালি ফেলে ওই সমস্যার সমাধান করত! তাছাড়া যদি বিষয়টি সত্যিই কেন্দ্রের হয়, তাহলে কেন মানুষের সমস্যার কথা তুলে ধরে উনি কেন্দ্রের কাছে চিঠি পাঠাচ্ছেন না!’ এরপর তিনি রাজ্য সরকারের কাছে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে বলেন, ‘রাজ্য সরকার যদি কেন্দ্রের কাছে এ বিষয়ে মেরামতের জন্য চিঠি পাঠায়, সেই চিঠির অনুমতি এনে দেওয়ার দায়িত্ব হবে আমার।’ এই বিষয়ই তিনি মুখ্যমন্ত্রীকে একজন ‘ মিথ্যাবাদী ‘ বলে সম্বোধন করেন।

এরপর তিনি প্রশাসনিক বৈঠকে একজন বিজেপি বিধায়ককে আমন্ত্রণ না করার বিরুদ্ধে রাজ্য সরকারের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেন। বলেন, ‘রাজ্য সরকারের একটি প্রশাসনিক বৈঠক সেখানে তৃণমূল বিধায়কদের পাশাপাশি বিজেপি বিধায়কদেরও উপস্থিত থাকার অধিকার রয়েছে। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী সেটা ভুলে গেছেন। তিনি গোটা রাজ্যটাই নিজের এবং রাজনৈতিক দল আর বাংলার শাসনকার্যের মধ্যে তফাৎটা উনি ভুলে গিয়েছেন।’

প্রসঙ্গত, নদীয়ার প্রশাসনিক বৈঠকে গঙ্গার পাড় ভাঙন নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বলতে শোনা গিয়েছিল, ওই বিষয়টা রাজ্যের এবং কেন্দ্রের আধাআধি রয়েছে। তাই এ বিষয়ে কাজ করার আগে কেন্দ্রের অনুমোদনের প্রয়োজন পড়ে। রাজ্য নিজের ইচ্ছামত করতে পারে না।