Home Crime Work From Home Fraud : হোয়াটস অ্যাপে ওয়ার্ক ফ্রম হোমের লোভনীয় অফার, ফাঁদে পা দেবেন না

Work From Home Fraud : হোয়াটস অ্যাপে ওয়ার্ক ফ্রম হোমের লোভনীয় অফার, ফাঁদে পা দেবেন না

by Mahanagar Desk
0 views

মহানগর  ডেস্ক: মেসেজ এসেছিল হোয়াটস অ্যাপে (Whatsapp Message)। ওয়ার্ক ফ্রম হোমের অফার (Work From Home Fraud)। কাজের জন্য গাড়ি বাসের খরচ করতে হবে না। তার বদলে ঘরে বসেই মিলবে মোটা রোজগারের সুযোগ। এজন্য একটি ইউটিউব চ্যানেলে (You Tube Channel) নাম নথিভুক্ত করতে হবে। নামমাত্র টাকা লাগবে। মাত্র পঞ্চাশ টাকা। টাকার অঙ্ক কোনওভাবেই গায়ে লাগার মতো নয়। এমন লোভনীয় সুযোগ ছাড়ে কেউ! গুরুগ্রামের বাসিন্দা সরিতা এস তাই সময় নষ্ট না করে পঞ্চাশ টাকা দিয়ে নাম নথিভুক্ত করেছিলেন কাজের জন্য।

হোয়াটস অ্যাপটি এসেছিল এইডনেট গ্লোবাল মার্কেটিং কোম্পানি থেকে। সেই সংস্থার এইচআর ইউসফ্যাট মেসেজটি পাঠিয়েছিল। প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল কাজ শেষ হলে মোটা টাকা লাভ হবে। সেইমতো সরিতা দুটি ইউটিউব চ্যানেলে নাম নথিভুক্ত করেছিলেন। নাম নথিভুক্ত করার পর ওই সংস্থার লায়লা নামে রিশেপশনিস্ট কাছ থেকে ফোন পান তিনি। তাঁকে বলা বলা হয় সরিতা যেন তাদের টেলিগ্রাম আইডি শেয়ার করেন। শেয়ার করার পর বিভিন্ন কাজের দায়িত্ব পাওয়া একশো আশিজনের গোষ্ঠীর সঙ্গে সরিতাকে যুক্ত করা হয়।

 লাইলা জানায় তিনি কাজ শেষ করার পর মোটা লাভ পাবেন। কিন্তু ওই কাজ থেকে একটি টাকাও পাননি সরিতা। উল্টে তাঁর অ্যাকাউন্ট থেকে আট লক্ষ কুড়ি হাজার টাকা তুলে নেয় প্রতারকেরা। এরপর অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির একাধিক ধারায় মামলা রুজু করেছে পুলিশ। আরেকটি এমন ওয়ার্ক ফ্রম হোম প্রতারণাকাণ্ডে সম্প্রতি দিল্লির এক ব্যক্তি ন লক্ষ টাকারও বেশি খুইয়েছেন।

বাড়তি রোজগারের আশায় তিনি অনলাইনে আবেদন করেছিলেন। তাঁকে যে লিঙ্কটি পাঠানো হয়েছিল, তাতে লিঙ্ক করতেই অ্যাকাউন্ট থেকে ন লক্ষ টাকারও বেশি তুলে নেয় প্রতারকরা। দিল্লির পিতমপুরার ওই বাসিন্দা সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট দেখে তাতে একটি ওয়ার্ক ফ্রম হোমের বিজ্ঞাপন দেখতে পান। এরপর বিস্তারিত জানার জন্য পোস্টটির বিশদ বিবরণ দেখতে গিয়ে একটি হোয়াটস অ্যাপ নম্বর দেখতে পেয়ে তাতে ফোন করেন। প্রতারক তাঁকে বলে তার পাঠানো লিঙ্কে ক্লিক করতে। সেখানে ক্লিক করার পর তাঁর অ্যাকাউন্টে কাজের জন্য সামান্য কিছু টাকা কমিশন দেওয়া হয়।

এরপরই দিল্লির ওই বাসিন্দার অ্যাকাউন্ট থেকে ন লক্ষ টাকারও বেশি টাকা সরিয়ে দেয় প্রতারকরা। এরপর তিনি থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ অঙ্কিত ও সুধীরকুমার নামে দুজনকে গ্রেফতার করে। তবে এটাই প্রথম নয়। এর আগেও এ ধরণের ওয়ার্ক ফ্রম হোমের নামে প্রতারণার ঘটনা একাধিক ঘটেছে। বিশেষ করে কোভিড অতিমারির সময় পার্টটাইম কাজের টোপ দিয়ে বহু মানুষকে শিকার বানিয়েছে প্রতারকেরা। হোয়াটস অ্যাপে পাঠানো লিঙ্কে ক্লিক করার পর মোটা টাকা খুইয়েছেন বহু মানুষ।

প্রতারকেরা সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে বাড়তি রোজগারের আশায় থাকা মানুষকে বাড়তি রোজগারের জন্য হোয়াটস অ্যাপ বা টেলিগ্রামে ওয়ার্ক ফ্রম হোমে নাম নথিভুক্ত করে প্রথমে কাজ বাবদ কিছু টাকা তৎক্ষণাৎ দিয়ে বিশ্বাস অর্জন করে থাকে। তারপরই বিশ্বাসের সুযোগ নিয়ে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে বিপুল সংখ্যক টাকা আত্মসাৎ করে।

এ কারণে সোশ্যাল মিডিয়া বা হোয়াটস অ্যাপে এ ধরণের মেসেজে বিশ্বাস না করাটা বুদ্ধিমানের কাজ বলে পরামর্শ দিয়েছেন সাইবার বিশেষজ্ঞরা। যদি কারো মনে হয় এটি প্রতারণা নয়,তাহলে ভালো করে অনুসন্ধান করা দরকার। অধিকাংশ ক্ষেত্রে প্রতারকরা সন্দেহজনক সাইটে অ্যাকাউন্ট খুলে বিস্তারিত বিবরণ দিয়ে নাম নথিভুক্ত করার কথা বলে থাকে। সেখান থেকেই তারা ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের যাবতীয় তথ্য পেয়ে প্রতারণা করে।

You may also like

Mahanagar bengali news

Copyright (C) Mahanagar24X7 2024 All Rights Reserved