UCL: জোড়া গোল করে ফের ম্যান ইউয়ের রক্ষাকর্তা রোনাল্ডো

8
আটালান্টার গোলমুখে হানা ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর।

মহানগর ডেস্ক: আটালান্টার মাঠ থেকে পয়েন্ট নিয়ে আসাটা যে মোটেও সহজ হবে না, তা বেশ ভালোই জানতেন রোনাল্ডোরা। তাই বলে হারতে হবে, সেটাও অবশ্যই চাননি!

না, শেষ পর্যন্ত অবশ্য হারেনি ম্যাঞ্চেস্টার ইউনাইটেড। তবে জেতেওনি। যে কাজ বারবার করে বিশ্ব ফুটবলের অবিসংবাদিত তারকা হয়েছেন রোনাল্ডো, সেটা আবারও করে ইউনাইটেডকে রক্ষা করেছেন। শেষ মুহূর্তে গোল করে দলকে হারের হাত থেকে বাঁচিয়েছেন। সেইসঙ্গে এনে দিয়েছেন একটা মহামূল্যবান পয়েন্ট। রোনাল্ডোর শেষ মুহূর্তের গোলে ২-২ ব্যবধানে ড্র করেছে ম্যান ইউ। দলের প্রথম গোলটাও সিআর সেভেনেরই করা। আটালান্টার হয়ে গোল করেছেন কলম্বিয়ান স্ট্রাইকার দুভান জাপাতা ও স্লোভেনিয়ার উইঙ্গার ইয়োসিপ ইলিচিচ।

গত ম্যাচে যে ছকে টটেনহ্যামকে ৩-০ গোলে হারিয়েছিল রেড ডেভিলস, এ ম্যাচেও সেই ৩-৫-২ ছকের ওপরেই ভরসা রেখেছিলেন কোচ ওলে গানার সোলসার। রক্ষণে দুই তারকা রাফায়েল ভারানে ও হ্যারি ম্যাগুয়েরের সঙ্গে ছিলেন আইভরি কোস্টের এরিক বাইয়ি। শেষমেশ দুই তারকাকে ছাপিয়ে রক্ষণের দিক দিয়ে বাইয়িই বাঁচিয়েছেন ইউনাইটেডকে। ইতালির ক্লাবটির বেশ কয়েকটা আক্রমণ ঠেকিয়ে রোনাল্ডোর পাশাপাশি দলকে হারের হাত থেকে উদ্ধারের নায়ক এই বাইয়িও।

১২ মিনিটে প্রথমে এগিয়ে যায় আটালান্টা। ডি-বক্সের ভেতর থেকে ইলিচিচের শটে পরাস্ত হন ইউনাইটেডের স্প্যানিশ গোলকিপার দাভিদ দ্য খেয়া। তবে যেভাবে দ্য খেয়ার হাতের নিচ দিয়ে বল জালে জড়িয়েছে, তা দেখে ম্যান ইউয়ের অতি বড় সমর্থকও লজ্জায় মুখ ঢাকতে বাধ্য। প্রথমার্ধের একেবারে শেষ দিকে দুই পর্তুগিজের ঝলকে সমতায় ফেরে ইউনাইটেড। ব্রুনো ফার্নান্দেজের সহায়তায় গোল করে দলকে সমতায় ফেরান সেই রোনাল্ডো। ৪৯ মিনিটে এগিয়ে যেতে পারত ইউনাইটেড। কিন্তু মেসন গ্রিনউডের শট পোস্টে লাগে। উলটে ৫৬ মিনিটে আর্জেন্টাইন সেন্টারব্যাক হোসে লুইস পালোমিনোর পাস থেকে গোল করে আটালান্টাকে ফের এগিয়ে দেন দুভান জাপাতা।

ম্যাচের একেবারে শেষ দিকে এসে আবারও রোনাল্ডোই এগিয়ে আসেন ত্রাতা হয়ে। বক্সের বাইরে থেকে দুর্দান্ত এক ভলিতে দলকে সমতায় ফেরান তিনি। আটালান্টার থেকে ছিনিয়ে নেন নিশ্চিত দু’টি পয়েন্ট। এই নিয়ে ইউনাইটেডের জার্সি গায়ে ১২৭ গোল করা হয়ে গেল পর্তুগিজ অধিনায়কের। এই গোল করে আরও একটা অসাধারণ রেকর্ড লিওনেল মেসির কাছ থেকে কেড়ে নিয়েছেন সিআর সেভেন। চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসে ম্যাচের শেষ দিকে ইনজুরি টাইমে এখন সবচেয়ে বেশি গোল তাঁরই নামের পাশে, ৮টি। আগে এই রেকর্ডটি ছিল মেসির, যাঁর গোল ৭টি।

প্রাক্তন সতীর্থের গোল করার এই অভ্যাস দেখে আবারও মুগ্ধ হয়েছেন ইউনাইটেডের প্রাক্তন সেন্টারব্যাক রিও ফার্দিনান্দ। ম্যাচ শেষে তিনি বলেন, ‘লোকজন বলে রোনাল্ডো খেটে খেলে না। কিন্তু ও ম্যাচের কঠিনতম কাজটাই করে—গোল করা। যে কোনও দেশে, যে কোনও স্টেডিয়ামে, যে কোনও সময়ে ও গোল করে। দলের যখন দরকার হয়, তখনই ওকে পাওয়া যায়।’

এই ড্রয়ের পরও গ্রুপ এফ-এর শীর্ষেই থাকল ম্যান ইউ। চার ম্যাচের তাদের পয়েন্ট সাত। একই পরিসংখ্যান নিয়ে দু’নম্বরে রয়েছে স্প্যানিশ ক্লাব ভিয়ারিয়াল।