‘গণতন্ত্রের হত্যা করা হয়েছে’, বৃহস্পতিবার নতুন করে জামিনের আবেদন করবেন জিগনেশ মেভানি

78

মহানগর ডেস্ক: গুজরাটের সাংসদ জিগনেশ মেভানি বৃহস্পতিবার নতুন করে জামিনের আবেদন করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। বিগত কয়েকদিন ধরে তাঁর গ্রেফতারিতে উত্তেজিত রাজনৈতিক মহল। মঙ্গলবার অসমের বড়পেটার একটি আদালত সাংসদকে পাঁচদিনের পুলিশ হেফাজতে পাঠিয়েছে। তাঁর বিরুদ্ধে একজন পুলিশ মহিলার সঙ্গে দুর্ব্যবহারের অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছিল। অপরদিকে তাঁকে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে উদ্দেশ করে করা টুইট সম্পর্কিত মামলায় জামিন দেওয়া হয়েছে।

মূলত বড়পেটায় দায়ের হওয়া মামলায় তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। এদিন মেভানির আইনজীবী অংশুমান বোরা বলেছেন, বড়পেটার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালত মেভানির জামিনের আবেদন প্রত্যাখ্যান করেছে এবং তাঁকে ৫ দিনের পুলিশি হেফাজতে রিমান্ডে পাঠানো হয়েছে। নতুন মামলাটি ভারতীয় দণ্ডবিধির ধারা ২৯৪(পাবলিক প্লেসে অশ্লীল গান গাওয়া, আবৃতি করা বা শব্দ উচ্চারণ করা), ৩২৩ (স্বেচ্ছায় আঘাত করা) ও ৩৫৩’র (আক্রমণ বা অপরাধ মূলক বল প্রয়োগ) অধীনে নথিভূক্ত করা হয়েছে।

প্রথমে তাঁকে গ্রেফতার করা হয় ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টিকে উদ্দেশ করে মন্তব্যের অভিযোগে। এদিকে তাঁর মতে, এটা তাঁর বিরুদ্ধে করা একটি ষড়যন্ত্র। অপরদিকে কোকরাঝাড় থানার মহিলা সাব-ইন্সপেক্টরকে অশ্লীল শব্দ বলার অভিযোগ আসে তাঁর বিরুদ্ধে। ওই সাব-ইন্সপেক্টর বলেন, ‘সঠিকভাবে তাঁকে আচরণ করতে বললে, তিনি উত্তেজিত হয়ে পড়েন এবং অশ্লীল শব্দ ব্যবহার করতে থাকেন’।

প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, ‘আমার দিকে আঙ্গুল তুলে ছিলেন এবং আমাকে ভয় দেখানোর চেষ্টা করেছিলেন। একজন সরকারি কর্মচারী হিসেবে আইনগত দায়িত্ব পালনের সময় তিনি আমাকে লাঞ্ছিত করেছেন’। মঙ্গলবার মেভানিকে মুক্তির দাবিতে আদালতের বাইরে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে হাত শিবির। কংগ্রেস নেতা জাকির হুসেন সিকদার মেভানির গ্রেফতারিকে ‘গণতন্ত্রের হত্যা’ বলে অভিহিত করেছেন।