South Dinajpur : দিদার মৃতদেহ আগলে ছোট্ট নাতনি, জানতেই পারলনা না ফেরার দেশে চলে গেছে দিদা

65

মহানগর ডেস্ক : দীর্ঘদিন ধরেই অসুস্থ নাতনি। অভাব অনটনের জেরে করাতে পারছিলেন না চিকিৎসা। ছোটরাণীর দিদা ছাড়া কেউই ছিলনা এই দুনিয়ায়। বর্তমানে আর রইল না দিদাও। কখন যে দিদা তাকে ছেড়ে চলে গেছে তা বুঝতেই পারেনি ছোট্ট রানী।

আরও পড়ুন : শান্টু গুন্ডার হাত ধরেই ফিরল পূর্ণা, তবে এবার অন্য দায়িত্বে

দুদিন ধরে ঘুম ভাঙ্গনি দিদার। ছোট্ট মেয়েটির ভেবেছিল বিবাহ তো শুয়ে আছে কিছুক্ষণ বাদেই উঠে খেতে দেবে। অথচ দুদিন পেরিয়ে গেলেও দিদার ঘুম ভাঙেনি। খাবারের অপেক্ষায় দিদার পাশে বসেই দুদিন পার করেছে একরত্তি মেয়েটি। কিন্তু কোন সাড়া মেলেনি। অবশেষে প্রতিবেশীরা জানতে পারেন দুদিন আগে মারা গিয়েছেন ওই মহিলা। কিন্তু অবুঝ রানী কিছুই বলতে পারেনি প্রতিবেশীদের। কারণ আর বাকি পাঁচটা মেয়ের মতোন স্বাভাবিক নয় সে। ঠিকমত কথা বলতে পারেনা।পারেনা ঠিকমতো হাঁটাচলা করতে। অভাবের তাড়নায় করানো হয়নি চিকিৎসা।

ঘটনা দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার কুমারগঞ্জ ফরেস্ট এলাকার। জানা যাচ্ছে মৃত ওই বৃদ্ধার নাম স্মৃতি ঝাঁ। দুদিন আগে ঘুমিয়ে ছিলেন তিনি। সে ঘুম থেকে উঠতেই পারলে না। দুদিন পর বৃহস্পতিবার এ ঘটনার আঁঝ পান স্থানীয় বাসিন্দারা। বিকট গন্ধ পেয়ে প্রতিবেশীদের সন্দেহ হয়। গন্ধের উৎস সন্ধানে তাঁরা ওই বৃদ্ধার বাড়িতে গেলে বিষয়টি বুঝতে পারেন।মৃত দিদার পাশেই বসেছিল নাতনি।বিষয়টি নজরে আসার পরই খবর দেওয়া হয় কুমারগঞ্জ থানার পুলিশকে। পুলিশের সহায়তায় মৃতদেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয় বালুরঘাট হাসপাতালে। ঐ বৃদ্ধার কোনো আত্মীয়-স্বজন না থাকায় তারা প্রতিবেশীরাই সম্মিলিতভাবে সৎকারের দায়িত্ব নেন।