থামিয়ে দিন সময়ের চাকা, রুখে দিন বার্ধক্য, জেনে নিন গোপন রহস্য

56

নিজস্ব প্রতিনিধি: সময় থেমে থাকে না। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে বেড়ে চলে বয়সও। সাম্প্রতিক কয়েকটি গবেষণায় দেখা গিয়েছে, কয়েকটি বদ অভ্যাসের দরুন দ্রুত শরীর বুড়িয়ে যায়। নেচার হিউম্যান বিহেভিয়ার গবেষণা বলছে, বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের মানসিক ক্ষমতার উন্নতি হতে দেখা গিয়েছে। তবে কোনও একজনের জীবন যাপনের ওপর নির্ভর করে তাঁর বয়স কত দ্রুত বাড়বে কিংবা কমবে। আসুন জেনে নেওয়া যাক ঠিক কোন কোন বদ অভ্যাস বয়স বাড়াতে সাহায্য করে।

সারাক্ষণ অলসভাবে দিন কাটানো দ্রুত বার্ধক্য ডেকে আনে। শুধু শারীরিক নয়, মানসিক দিক থেকেও প্রভাব ফেলে আলস্য। পরিশ্রম শরীরকে ভেতর থেকে তরুণ রাখতে সাহায্য করে। একটি সমীক্ষা অনুযায়ী, যাঁরা সবসময় সক্রিয় থাকেন, তাঁরা একই বয়সের লোকের চেয়ে বেশি তরুণ। সমীক্ষা অনুসারে, আলস্যের কারণে তাড়াতাড়ি বুড়িয়ে যান মানুষ। বয়সের আগেই নানা রকম রোগ-ব্যাধি বাসা বাঁধে তাঁদের শরীরে।

অতিরিক্ত টিভি দেখাও দ্রুত বার্ধক্য ডেকে আনে। আমেরিকান হার্ট অ্যাসোসিয়েশনের গবেষণা অনুসারে, মধ্যবয়সে দীর্ঘ সময় ধরে চ্যানেল পরিবর্তন করার অভ্যেস চিন্তা করার ক্ষমতা কমিয়ে দেয়। মস্তিষ্কের ধূসর পদার্থের পরিমাণ কমিয়ে দেয়। এই ধূসর পদার্থ স্নায়ুতন্ত্রের সঙ্গে যুক্ত। এবং চিন্তা বা সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য ক্ষমতার জন্য দায়ী। তাই আমাদের প্রত্যেকের উচিত অতিরিক্ত টিভি দেখার অভ্যাস কমিয়ে ফেলা।

যাঁদের ঘুম অনিয়মিত, তাঁদের বয়স দ্রুত বাড়ে। যাঁরা প্রতিদিন ছ থেকে আট ঘণ্টা ঘুমোন, তাঁদের চিন্তা করার ক্ষমতা দ্রুত কমে যেতে পারে।

অতিরিক্ত মানসিক চাপে থাকার কারণে মুখে দ্রুত বলিরেখা দেখা দিতে শুরু করে। যাঁরা সারাক্ষণ মানসিক চাপে থাকেন, তাঁদের সমস্যা হয়। স্ট্রেস সব সময় শরীরকে দ্রুত বয়স্ক করে তোলে। গবেষকদের মতে সুস্থ থাকতে মানসিক চাপ থেকে দূরে থাকাই বাঞ্ছনীয়। যাঁরা নিয়মিত কঠোর পরিশ্রম করেন কিংবা ব্যায়াম করেন, তাঁদের বয়স বাড়ে ধীর গতিতে। সুখী থাকার জন্য যোগব্যায়াম এবং ধ্যান করা প্রয়োজন।

যাঁরা অনলাইনে বেশি সময় কাটান, তাঁরাও দ্রুত বুড়িয়ে যান। কম্পিউটার এবং স্মার্টফোন থেকে নির্গত আলো আমাদের চোখে প্রভাব ফেলে। তাই বয়স দ্রুত বৃদ্ধি পায়। চোখেরও ক্ষতি হয়।