কোভিড মুক্ত হতে গোমূত্র, গোবর, থাবা বসাতে পারে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস,  সতর্কতা চিকিৎসকদের

11

মহানগর ডেস্ক:   বেশ কয়েকদিন ধরেই সংবাদমাধ্যমগুলোর শিরোনাম দখল করে নিয়েছি গোবর থেরাপি। একদল দাবি করেছে, গোবর মেখে বসে থাকলে বা গোমূত্র খেলে ছুঁতেও পারবে না করোনা ভাইরাস। তবে এই নিয়ে ইতিমধ্যে সতর্ক করেছে চিকিৎসকরা। এই গোবর থেরাপিতে আক্রান্ত হতে পারেন ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে।

গুজরাটের বেশ কয়েকটি গোশালায় ভিড় দেখা গিয়েছে। খোঁজ নিয়ে সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানা গিয়েছে, সেখানে সপ্তাহে একদিন করে গোবর ও গোমূত্র মেখে বসে থাকছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। দাবি এর ফলে করোনা হবে না। আর করোনা হলেও দ্রুত সেরে যাবে। খেতে হবে না কোনও ওষুধ। আর এই খবর প্রকাশ হওয়ার পরেই চিন্তার ভাঁজ পড়ছে চিকিৎসকদের কপালে। কারণ সেরে ওঠা করোনা রোগীদের শরীরে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বা মিউকরমাইকোসিস দেখা দিচ্ছে। মূলত আইসিইউ থেকে ফেরা করোনা রোগী, কিংবা অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস রোগীদের শরীরে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের আক্রমণ ঘটছে। এর ফলে মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। অনেক ক্ষেত্রে রোগীদের মস্তিষ্ক, চোখ বা কানের ওপর প্রভাব ফেলছে।

চিকিৎসকরা জানিয়েছে, গোবর বা গোমূত্র মেখে বসে থাকলে সেক্ষেত্রে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের দেখা মিলতে পারে।  ভারতীয় বংশোদ্ভূত মার্কিন চিকিৎসক ফাইম ইউনিস। তিনি জানিয়েছেন, পুরোপুরি নিশ্চিত নয়, তবে গোবর বা গোমূত্র মেখে বসে থাকলে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যেতে পারে। তিনি আমেরিকার সেন্টার ফর ডিজিজ সেন্টারের একটি লিঙ্ক শেয়ার করেছেন। সেখানে দেখা গিয়েছে, ভেজা মাটি, পচা পাতা বা সবজিতে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস থাকতে পারে। অন্য দিকে, নাগপুরের চিকিৎসক কোঠালকর জানিয়েছেন, গোবর বা গোমূত্র মেখে বসে থাকার ভিডিওতে প্রচণ্ড আতঙ্কিত বোধ করছি। ডায়াবেটিস বা অন্যান্য কো-মর্বিটি থাকলে, এই গোবর বা গোমূত্র মাখা মৃত্যুর কারণ হতে পারে।