স্বস্তি! ইমপিচমেন্টের শুনানি থেকে রেহাই পেলেন ট্রাম্প

32
donald trump
অবশেষে মুক্তি

মহানগর ডেস্ক: আমেরিকার সেনেটে দ্বিতীবারের জন্য ইমপিচমেন্টের শুনানি থেকে মুক্তি পেলেন প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ক্যাপিটল ভবনে তাণ্ডবের উসকানির জন্য ট্রাম্পকে অভিযুক্ত করা হয়। তবে তাঁকে দোষী সাব্যস্ত করতে হলে দুই তৃতীয়াংশের ভোট প্রয়োজন। কিন্তু সেই প্রয়োজনীয় ভোট না পাওয়ার কারণে ইমপিচমেন্টের শুনানি থেকে মুক্ত হলেন, প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

সেনেটে শুনানিতে ৫৭ জন ট্রাম্পের বিপক্ষে দাঁড়ান। ট্রাম্পকে ইমপিচড করতে গেলে আরও ১০টি ভোট প্রয়োজন ছিল। ট্রাম্পের পক্ষে ছিলেন ৪৩ জন সেনেটর। ফলে ইমপিচমেন্টের প্রক্রিয়া থেকে মুক্তি পেলেন ট্রাম্প। এরফলে ২০২৪ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে লড়াই করতে ট্রাম্পের আর বাধা থাকল না। ১৩ জানুয়ারি থেকে ইমপিচমেন্টের শুনানি শুরু হয়। মার্কিন কংগ্রেসের নিম্ন কক্ষ অর্থাৎ হাউস অফ রিপ্রেসেন্টেটিভে শুনানি হয়। এরপর সেনেটে শুনানি শুরু হয়।

পাঁচ দিনের শুনানিতে ডেমোক্র্যাটরা ট্রাম্পকে দোষী সাব্যস্ত করার চেষ্টা করেন। তাঁরা ক্যাপিটল ভবনের হামলার একাধিক ছবি ও ফুটেজ প্রকাশ করেন। সেখানে দাবি করেন, ট্রাম্প হেরে যাওয়ার পর নিজের ক্ষমতা ছাড়তে চাননি। নিজের সমর্থকদের উদ্দেশে উসকানি মূলক মন্তব্য করেছিলেন। সেই কারণেই ট্রাম্পের সমর্থরা ক্যাপিটল ভবন হামলা করেছিলেন। শেষে ইমপিচমেন্টের শুনানি থেকে মুক্তি পান ট্রাম্প। তবে ট্রাম্পেকে দোষী সাব্যস্ত করতে ভোট দিয়েছিলেন, তাঁর দলেরই সাত জন সেনেটর।

অন্য দিকে, ভোটগণনার সময় জর্জিয়ায় সরকারি আধিকারিককে বিতর্কিত নির্দেশের তদন্ত ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে শুরু হয়েছে। ভোট গণনার সময় তিনি জর্জিয়ার সরকারি আধিকারিকদের নির্দেশ দিয়েছিলেন, যে করেই হোক তাঁকে জেতাতে হবে। বাইডেনের বিরুদ্ধে একটা বেশি ভোট পেলেও হবে, কিন্তু তাঁকে জেতাতে হবে। রিপাবলিকান অধ্যুষিত জর্জিয়াতে মার্কিন নির্বাচনের পর তিনবার ভোট গণনা হয়েছে। কিন্তু ট্রাম্প অল্প কয়েকটি ভোটে বাইডেনের কাছে হেরে যান।