Dr.APJ Abdul kalam : ‘পরাজিত হলে হাল ছেড়ো না, কারণ ব্যর্থতাই শিক্ষার প্রথম ধাপ’, বলেছিলেন এপিজে আব্দুল কালাম

18
জীবনে চলার পথে ব্যর্থতা আসবেই তা নাহলে জীবন অর্থহীন

মহানগর ডেস্ক : জীবনে চলার পথে ব্যর্থতা আসবেই। তা নাহলে জীবন অর্থহীন। কোন না কোন পর্যায়ে মনে হতে পারে ‘অপদার্থ’,’গুড ফর নাথিং’। হতাশা কাটাতে না পেরে জীবনকে এক অনিশ্চিত ভবিষ্যতের পথেয় ঠেলে দেয়। আর সেখানেই অনেকে খুঁজে পান জীবনের মূল্যবোধ।

চলার পথে আমাদের লাইফ লেসন বা জীবন শিক্ষার দরকার পড়ে। জীবনের কঠিনতম সময়ে যে মানুষগুলো নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করেছেন তাদের সেই শিক্ষাই তাঁরা আমাদেরকে বিলিয়েছেন। জীবনে সফল হওয়ার পথ দেখিয়েছেন তাঁরা। উপদেশ বদলে দিয়েছে জীবনের মানেকে। এ রকমই একজন জীবন গড়ার কারিগর হলে এপিজে আবদুল কালাম।

ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি তথা পরমাণু বিজ্ঞানী এপিজে আবদুল কালামের মৃত্যু বার্ষিকীতে তাঁর জীবনের শ্রেষ্ঠ এবং দামি কিছু উপদেশ দিয়ে সাজানো আমাদের এই প্রতিবেদন।

১) ব্যর্থতাই জীবনের মানে বদলে দেয়

জীবন কখনোই একহাতে বয় না। সাফল্য ও ব্যর্থতা উভয়ই ঘিরে থাকে জীবনকে। শুধু সাফল্য ঘিরে থাকলে সেই জীবনের মানে তাই বুঝে উঠতে পারেন না অনেকেই। ব্যর্থতা ছাড়া জীবনে সাফল্যের কোনও আকাঙ্ক্ষায় থাকেনা। আর আকাঙ্ক্ষা না থাকলে সেই জিনিসটা পাওয়ার আনন্দ উপভোগ করা যায় না। একমাত্র ব্যর্থতাই আমাদের সাফল্যের তীব্র আকাঙ্ক্ষাকে জাগ্রত করে এবং আমাদের লক্ষ্যে পৌঁছাতে সাহায্য করে।

২) সময় হল পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ শিক্ষক

জীবন হল মানুষের সব থেকে মূল্যবান সম্পদ। আর সময় হল পৃথিবীর সবচেয়ে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক। জীবনে সাফল্য অর্জন করতে আমাদের সাধনা করতে হয়।জীবন আমাদের চলার পথ দেখায়। আর চলার পথের সঙ্গী হল সময়। জীবন আমাদের শেখায় সময় এর যথাযথ ব্যবহার। যেহেতু মানুষের জীবনের কোনও নিশ্চয়তা নেই তাই প্রতিপদে সময়ের ব্যবহার করা প্রয়োজন। যাতে ক্ষুদ্র জীবনেও মানুষ অনেক কাজ করে যেতে পারে। এই সময়ই বলে দেয় আমাদের জীবন ঠিক কতটা ক্ষুদ্র তাই এটাকে গুরুত্ব দেওয়া উচিত জীবন শিক্ষা এবং সময়ই পারে একজন মানুষকে সফল করতে।

৩) স্বপ্নকে স্থির রাখা

এপিজে আবদুল কালাম বলতেন স্বপ্ন সেটা নয় যেটা তুমি ঘুমিয়ে দেখ, স্বপ্ন হলো সেটাই যেটা পূরণের জন্য প্রত্যাশা তোমাকে ঘুমাতে দেয় না। অর্থাৎ সাফল্য ও স্পৃহা যা জীবনের সবচেয়ে বড় কারন। আমরা সবাই জীবনে সফল হতে চাই। আর এই যে আকাঙ্ক্ষা আমাদের এটাই হল স্বপ্ন। আমাদের এই স্বপ্ন আমাদের জীবন এবং কার্যকে পরিচালনা করে। এবং স্বপ্নই আমাদের সাফল্যের দোরগোড়ায় পৌঁছাতে সাহায্য করে।

৪) হার- জিত নিয়েই জীবন

আমাদের জীবনটা হার-জিত উভয়ের মিশ্রণে তৈরি হয়। সাফল্য নিঃসন্দেহে আমাদের জীবনকে আলোকিত করে দূর করে। কিন্তু সাফল্যই একমাত্র উপাদান নয়। বরং ব্যর্থতা আমাদের সফল হওয়া কি শিক্ষা দেয়। ব্যর্থতা আমাদের সফল হওয়ার আকাঙ্ক্ষাকে বাড়িয়ে দেয়। আমাদের পরিশ্রমের স্পৃহা অনেক বেড়ে যায় ব্যর্থতার হাত ধরেই। জীবনকে নতুন ভাবে গড়তে শেখায় ব্যর্থতা। স্থায়ী জীবন গঠনের জন্য কেবল সাফল্য নয় ব্যর্থতারও প্রয়োজন আছে।

৫) ব্যর্থতার গল্প পড়ো,যা সফল হওয়া ধারণা দেবে

অনেকে বলেন সাফল্যর গল্প থেকেই নাকি অনুপ্রেরণা পাওয়া যায়। এই কথাটি একেবারেই মানতেন না এপিজে আবদুল কালাম। অন্যের সাফল্যগাথা হয়ত আমাদের উদ্বুদ্ধ করে কিন্তু অনুপ্রেরণা করেনা বা জীবন শিক্ষা দিতে পারে না। বরং ব্যর্থতার গল্প আমাদের অনেক কিছু শেখায়। অন্যের ভুল সেই ভুল থেকে নেওয়া শিক্ষা এইগুলি আমাদের জীবনকে এগিয়ে যেতে সাহায্য করে। অন্যের সাফল্যের গল্প অর্থাৎ তাঁরা কী ভাবে সফল হয়েছে তা আমাদের কাজে নাও লাগতে পারে। কিন্তু তাঁদের ভুল,তাদের ভুল পদক্ষেপ কী ভাবে তাঁরা সেখান থেকে বেরিয়ে এসেছে এই সবকিছুই অনুপ্রেরণা দেবে জীবনের সফলতা অর্জনে।

৬) পরাজিত হল শেখার প্রথম পদক্ষেপ

ব্যর্থতা জীবনের একটি স্বাভাবিক ঘটনা। যেকোনও কাজেই ব্যর্থতা আসতে পারে। তাই বলে হাল ছেড়ে দিলে হবে না। ব্যর্থ হওয়া মানেই সে কাজে আর সাফল্য আসবে না তা একেবারেই নয় বরং ব্যর্থতা থেকে নেওয়া আমাদের ভুলে গেলি করে সেটা শুধরে নিয়ে পরবর্তী পদক্ষেপের সেটা আমাদের সাফল্য এনে দেয়।

৭) সাফল্যের ভিত শক্ত হলে কোন কিছুই গ্রাস করতে পারবে না

সবার মধ্যে আত্মবিশ্বাস থাকাটা ভীষণভাবে দরকার। ‘আমি পারবোই’,’সফল হতে পারব’ এটা যতক্ষণ আমাদের থাকবে ততক্ষন কোনও কিছুই আমাদের গ্রাস করতে পারবে না। যত বাধা যত বিপত্তিই আসুক না কেন আমাদের জীবনকে নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত করতে পারবে না যদি আমাদের লক্ষ্য থাকে দৃঢ়।

৮) জিতে গেছ বলে বসে থেক না

আমাদের জীবনে সাফল্যের পরে ব্যর্থতা আসতেই পারে।তাই কখনও একবার সফল হয়ে গেলে এখান থেকে পরে যে ব্যর্থতা আসবেনা তা নয়। প্রথম বারের সফলতাকে গুরুত্বহীন ভাবা হবে। হতে পারে আর যে কাজে আজ সফল হয়েছেন কাল সেই কাজে সফল নাও হতে পারেন। ঠিক তখন আশেপাশের লোক বলবে শুধুমাত্র ভাগ্যের জোরে অর্জন করেছেন। তাই অপেক্ষা না করে পরবর্তী সাফল্যের জন্য কাজ করতে হবে।

৯) জীবনে কঠিন বাঁধগুলো আসে তোমাকে ধ্বংস করতে নয় বরং তোমার ভেতরের শক্তিকে অনুধাবন করাতে

ব্যর্থতা মানুষের জীবনের একটি খুবই সাধারণ ঘটনা পথে ব্যর্থতার মুখ দেখেনি এমন কোন মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে না যদিও মনে হতে পারে ব্যর্থতা একটি দুঃখের ঘটনা কিন্তু আসলে ব্যর্থতা থেকেই আমাদের সম্ভাবনার পথ খুলে যায়। ব্যর্থতা আমাদের শিক্ষা দেয় ভুলগুলোকে চিহ্নিত করার। জীবনের এক একটি বিপর্যয় আমাদের এক একটি জীবন। ব্যর্থতা মানেই মনোবল ভেঙে দেওয়া নয়। বড় সেই ব্যর্থতা থেকে পাওয়া শক্তি জীবনের চলার পথকে মসৃণ করে তোলে।

১০) চিন্তা হল মূলধন, উদ্যোগ হল পথ আর পরিশ্রম সমাধান

আমাদের জীবনে সাফল্য কখনই নিজে থেকে আসে না।যতরকম সাফল্য এবং সমাধান সব কিছুই আসে মানুষের চিন্তা থেকে।সেই কারণেই তাকে বলা হয় সাফল্যের প্রথম পদক্ষেপ। তারপর আসে উদ্যোগ জীবনকে পথ দেখায়। ঠিক কী কী করলে পরিশ্রম এবং সাধনা আমাদের জীবনকে সফল করে দেয় সেই সবকিছুই আসে উদ্যোগ থেকে। তাই চিন্তা,উদ্যোগ আর পরিশ্রম এই তিন হল একে অপরের পরিপূরক।

Dr.APJ Abdul kalam