Bhowanipore By-Election: ভবানীপুরের ভোটপুজোর প্রস্তুতি তুঙ্গে, আজও তিনপক্ষই কোমর বেঁধে নেমেছেন প্রচারে

14
Bhowanipore By-Election
ভবানীপুরের ভোটপুজোর প্রস্তুতি তুঙ্গে, আজও তিনপক্ষই কোমর বেঁধে নেমেছেন প্রচারে

মহানগর ডেস্ক: চলতি মাসের ৩০ তারিখে কলকাতার ভবানীপুর কেন্দ্র সহ মুর্শিদাবাদের আরও দুই কেন্দ্রে উপ নির্বাচনের দিনক্ষণ ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। তবে এই তিন কেন্দ্রের মধ্যে সবথেকে হাই ভোল্টেজ অবশ্যই ভবানীপুর কেন্দ্র কারণ এই কেন্দ্র থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী হিসেবে দাঁড়িয়েছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তাঁর বিরুদ্ধে বিজেপির বাজি দুঁদে আইনজীবী প্রিয়ঙ্কা টিব্রেওয়াল। বামেদের প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছেন আইনজীবী শ্রীজীব বিশ্বাস।

হাতে আর বেশি সময় নেই তাই শাসক – বিরোধী কোনও পক্ষই প্রচারে আপস করতে রাজি নয়। প্রত্যেকদিনই নিজেদের দলের প্রচারে তাক লাগিয়ে দিচ্ছেন প্রত্যেকটি দলের নেতা নেত্রীরা। আজ সকালে বিজেপি প্রার্থী প্রিয়ঙ্কা টিব্রেওয়ালের সমর্থনে প্রচার করতে দেখা গেল বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী সুভাষ সরকারকে। ভবানীপুরের নর্দার্ন পার্কে প্রচার চলাকালীন এক তৃণমূল সমর্থকদের কাছে ভোট ভিক্ষা চাইলেন তিনি। তবে প্রত্যুত্তরে ওই তৃণমূল সমর্থক জানান ,তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেই ভোট দেবেন।

আরেক দিকে বাম প্রার্থী শ্রীজীব বিশ্বাসের সমর্থনে বাম নেতা সুজন চক্রবর্তী আজ প্রচারে অংশগ্রহণ করেন। কিন্তু হরিশ চ্যাটার্জি স্ট্রিটে ঢোকার মুখেই পুলিশ তাঁদের বাধা দেয় এবং এর ফলে বেশ কথা কাটাকাটি হয় দুপক্ষের মধ্যে। এমনকি ধস্তাধস্তির পর্যায়ে চলে যায় পরিস্থিতি। পুলিশের দাবি, করোনা বিধি লঙ্ঘন করার কারণেই বাধা দেওয়া হয়েছিল বাম নেতাদের। তবে প্রবীণ বাম নেতা সুজন চক্রবর্তীর অভিযোগ, সবরকম অনুমতি থাকা সত্ত্বেও তাঁদের প্রচারে বাধা দেওয়া হয়েছিল।

অন্যদিকে প্রতিদিনের মতোই বাড়ি বাড়ি ঘুরে প্রচার কর্মসূচি পালন করতে দেখা গেল রাজ্যের পরিবহন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমকে। তিনি আজ চেতলার কলাবাগান এলাকা থেকে প্রচার শুরু করেন। তবে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রচারে তাক লাগাতে আর এক অভিনব কৌশলের উদ্ভব করেছে রাজ্যের শাসক দল। গতকাল ভবানীপুরের প্রত্যেক বাসিন্দার বাড়ি বাড়ি শুভেচ্ছাপত্র পাঠালেন মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী ‘ ঘরের মেয়ে ‘ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সব মিলিয়ে ভবানীপুরের ভোটযুদ্ধের ময়দান জমজমাট। তবে শেষ হাসি কে হাসে সেই দিকেই নজর রাজ্য তথা দেশবাসীর।