‘অশনি’র সংকেতে কাঁপছে বাংলা কিন্তু রোদ- বৃষ্টির খেলাতেও বজায় থাক মুখের রুচি

63

মহানগর ডেস্ক :  আবহাওয়ার খামখেয়ালী স্বভাব যেন মনের উপর না পরে। এই গত সপ্তাহে দক্ষিণবঙ্গ পুড়ে যাচ্ছিল প্রখর রোদে। আবার এই সপ্তাহে দফায় দফায় বৃষ্টি। আর এই রোদ বৃষ্টির খেলা কখনো কখনো প্রভাব ফেলে শারীরিক বা মানসিক দিক থেকে।

 

সম্প্রতি ‘অশনি’র সংকেতে কাঁপছে বাংলা। তবে ঘূর্ণিঝড়ের গতিমুখ এখন পাল্টেছে। পশ্চিমবঙ্গের উপর তেমন একটা বিপদের সম্ভাবনা না থাকলেও  দফায় দফায় ভারী বৃষ্টির সতর্কতার রয়েছে ৫ জেলায়। কলকাতার বেশ কয়েকটি রাস্তা ইতিমধ্যে জলমগ্ন। তাছাড়া টানা বৃষ্টি হয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনা উত্তর ২৪ পরগনা হাওড়া হুগলি এবং মেদিনীপুরে।  আর এই খামখেয়ালি বৃষ্টিতে নাজেহাল প্রত্যেকে। কেউ কেউ সর্দি-জ্বর বানিয়ে ফেলেছেন ইতিমধ্যে। আবার কারো কারো কর্মব্যস্ত দিনে বৃষ্টি দেখতে গিয়ে কাজ করা মাথায় উঠেছে।  তবে এসবের মধ্যে  মুখ বন্ধ রাখলে তো চলবে না।  কাজের ফাঁকেই টুকটাক চালাতে থাকুন মুখ। পুষ্টিবিদরা বলছেন এই আবহাওয়াটা সব থেকে ভালো অঙ্কুরিত ছোলা খাওয়ার জন্য। অবশ্য ড্রাইফ্রুট,বাদাম এগুলো খেতে পারেন। তবে মিড মর্নিং স্ন্যাকস হিসেবে ডাবের জল খেতে পারেন। এতে শরীরের প্রয়োজনীয় খনিজের চাহিদা যেমনি মিটবে তেমন স্বাদবদল হবে কিছুটা। মাথাব্যথা-মাইগ্রেন ,ক্লান্তিভাব এগুলিও কমে যাবে এক নিমেষে।

 

ব্রেকফাস্ট রাখতে পারেন  দুধ আর ডিম। এই দুই খাবার কিন্তু সারাদিনে প্রচুর পরিমাণে পুষ্টি যোগাবে। দুধের মধ্যে থাকে ক্যালসিয়াম এবং প্রোটিন। আর ডিমের মধ্যে এমন এক প্রোটিন থাকে যা ডিহাইড্রেশন থেকে রক্ষা করে। এছাড়া এতে আছে অ্যামাইনো অ্যাসিড। এই সময় বাজারে প্রচুর ফল পাওয়া যায়। আম ,তরমুজ ,আনারস,কমলালেবু,স্ট্রবেরি যা খুশি রাখুন তালিকায়। তার পাশাপাশি রাখুন সবুজ শাক-সবজি। বেশি করে তালিকায় রাখুন লাউ,কুমড়ো,ব্রকলি,শসা। এগুলি শরীরের ডিহাইড্রেশনের সমস্যা কমিয়ে দেয়।

 

এ ছাড়া রোজকার ডায়েটে বিভিন্ন রকম বীজ, বাদাম, সবুজ মুগডাল এগুলি রাখতে পারেন। আর সারাদিনে প্রচুর পরিমাণে জল খান। তার পাশাপাশি গ্রিন টি ,লেবুর জল,ডাবের জল এগুলি তো থাকবেই। তাহলেই দেখবেন আবহাওয়া পরিবর্তনে আপনার মুডের বিন্দুমাত্র পরিবর্তন হচ্ছে না।