‘পরিবর্তন আনার একটা সুযোগ দিন’, গুজরাটের জনগণকে আর্জি কেজরিওয়ালের

155

মহানগর ডেস্ক: আম আদমি পার্টির প্রধান অরবিন্দ কেজরিওয়াল গুজরাটে পরিবর্তন আনতে একটি প্রশাসনিক মডেলের প্রস্তাব দিয়েছেন। যা ইতিমধ্যেই দিল্লিতে এবং সম্প্রতি পঞ্জাবে ব্যাপকভাবে সফল হয়েছে। তাঁর বক্তব্য, গুজরাটের স্কুলগুলির অবস্থা সত্যিই খারাপ। ৬ হাজারটি সরকারি স্কুল রয়েছে এখানে। কিন্তু তা বন্ধ হয়ে পরে রয়েছে। আরও বেশ কিছু জরাজীর্ণ অবস্থায় রয়েছে। প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, লক্ষাধিক শিশুর ভবিষ্যৎ অন্ধকারে রয়েছে। যাতে পরিবর্তন আনা যেতে পারে। যেভাবে দিল্লির স্কুলগুলিতে পরিবর্তন এসেছে।

রবিবার গুজরাটের ভারূচে বক্তৃতা দিতে গিয়ে কেজরিওয়াল বলেন, বিজেপি এখানে পরীক্ষার সময় পেপার ফাঁসের বিশ্ব রেকর্ড তৈরি করেছে। গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী ভূপেন্দ্র প্যাটেলকে পেপার ফাঁস ছাড়া একটি পরীক্ষা করে দেখানোর চ্যলেঞ্জ করেন তিনি। এরপর জনগণের উদ্দেশে বলেন, “আমাদের একটি সুযোগ দিন‌। যদি এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে বিদ্যালয়ের উন্নতি না করি, তাহলে আপনারা আমাকে বের করে দিতে পারেন”।

দিল্লিতে প্রায় চার লাখের কাছাকাছি পড়ুয়া প্রাইভেট স্কুল থেকে সরকারি স্কুলে এসেছে। তাঁর দাবি, রাজধানীতে ধনী এবং দরিদ্রের বাচ্চারা একসঙ্গে পড়াশোনা করছে। এমনকি কংগ্রেসের কাছ থেকে পঞ্জাব কেড়ে নেওয়ার পর, সেখানেও এই একই মডেলে স্কুলগুলিকে পরিচালনা করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। গত মাসে আপের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, অভ্যন্তরীণ সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনে তারা জিততে পারে ৫৮টি আসন। ভোটগুলি আসতে পারে শহরাঞ্চলের নিম্ন ও মধ্যবিত্ত বিভাগ থেকে। তাই নির্বাচনের আগে এত প্রচার।

রবিবার সমাবেশে দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী উল্লেখ করেছেন, গুজরাটে এক কোটিরও বেশি আদিবাসী থাকতে পারে। কিন্তু দেশের দুই ধনী ব্যক্তি এবং দরিদ্রতম আদিবাসী উভয়ই এই রাজ্য থেকে এসেছে। তাঁর মতে, বিজেপি ধনীদের পাশে দাঁড়িয়েছে আর তাদের আরও ধনী করছে। কিন্তু আপ বলছে, তারা সকল দরিদ্রদের পাশে আছে।