দিল্লি-মুম্বইতে করোনা ভয়াবহ রূপ নেওয়ার জন্য দায়ী দূষণ, দাবি বিশেষজ্ঞদের

8

মহানগর ওয়েবডেস্ক: শুধুই কি সঠিক সময়ে সঠিক পদক্ষেপের অভাব? নাকি করোনার বাড়বাড়ন্তের পিছনে রয়েছে অন্য কোনও রহস্য। দিল্লি ও মুম্বইতে করোনার বেহাল পরিস্থিতির কারণ অনুসন্ধানে প্রকাশ্যে আসছিল নানা মুনির নানা মত। এবার দেশের এই দুই অংশে করোনা বৃদ্ধির কারণ হিসেবে এক অভিনব তথ্য পেশ করল বিশেষজ্ঞরা। দাবি করা হচ্ছে, দিল্লি ও মুম্বইয়ের ভয়াবহ দূষণের জন্য করোনার প্রকোপ ব্যাপক ভাবে বেড়েছে এই দুই জায়গায়। দীর্ঘদিন ধরে দূষিত বাতাসে নিঃশ্বাস নেওয়ার কারণে এই দুই অঞ্চলের মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে গিয়েছে। যার ফলে সহজেই তারা এই রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন।

দিল্লি ও মুম্বইতে করোনা রোগীর বাড়বাড়ন্তের পিছনে অবশ্যই বায়ু দূষণের হাত রয়েছে। এমনটা মনে করেন দিল্লির ম্যাক্স হাসপাতালের মেডিসিন বিভাগের ডিরেক্টর রমেল টিকো। তার বক্তব্য অনুযায়ী, বিশ্বের দূষিত শহর গুলির এক-তৃতীয়াংশ ভারতে অবস্থিত। সেগুলির মধ্যে আবার অন্যতম দিল্লি, মুম্বই এর মতো শহরগুলি। কেউ যদি দীর্ঘদিন ধরে নাইট্রোজেন ডাই-অক্সাইড সালফার ডাই অক্সাইড এর মত বিষ বায়ুর সংস্পর্শে আসে তবে তাঁর ফুসফুস ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। যদিও ২৫ মের পর থেকে এই সমস্ত অঞ্চলের দূষণ অনেকটাই কমে গিয়েছে। তবে যা ক্ষতি হওয়ার তা হয়েছে অনেক আগে থেকেই।

তবে শুধু ভারত নয় সম্প্রতি হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের করোনা সংক্রমণে পরিবেশ দূষণের প্রভাব নিয়ে গবেষণারত দুই বিজ্ঞানীর দাবি, ১ ঘনমিটার বাতাসে এক মাইক্রো গ্রাম ফাইন পার্টিকুলেট ম্যাটারের বৃদ্ধি পেলে করোনা সংক্রমিত হয়ে মৃত্যুর সম্ভাবনা বাড়ে থাকে ১৫%। ফলে যে সমস্ত মানুষ দূষিত এলাকায় বসবাস করেন করো নাই তাদের মৃত্যুহার অনেকটাই বেশি বলে দাবি করছেন বিজ্ঞানীরা।