‘আনারুলকে আগেই পদ থেকে সরিয়ে দিতে চেয়েছিলাম’, বিস্ফোরক অনুব্রত মণ্ডল

56

মহানগর ডেস্ক: রামপুরহাট কাণ্ড নিয়ে উত্তাল হয়ে রয়েছে গোটা দেশ। কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা থেকে শুরু করে মন্ত্রিসভায়, রাজ্য সরকারের নিরাপত্তা নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন। এমন পরিস্থিতিতে অগ্নিকাণ্ডের মূল অভিযুক্ত আনারুল হোসেনকে নিয়ে মুখ খুললেন বীরভূমের জেলা সভাপতির অনুব্রত মণ্ডল। তিনি বলেন, মানুষের অভিযোগ ছিল আনারুলের বিরুদ্ধে। আমি আগেই ওঁকে পদ থেকে সরিয়ে দিতে চেয়েছিলাম।

এদিন বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল আনোরুল হোসেনকে নিয়ে বলেন, “আনারুলকে আগেই পদ থেকে সরিয়ে দিতে চেয়েছিলাম। আশিস বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনুরোধে ওঁকে রেখেছিলাম। আশিস বন্দ্যোপাধ্যায় পঞ্চায়েত ভোট পর্যন্ত আনারুলকে রাখতে বলেছিলেন। তাছাড়া আশিস দা আমাদের থেকে বয়সে বড়, একজন সিনিয়র মানুষ। ওঁনার বিধানসভা কেন্দ্রে উনি যখন চাইছেন আনারুলকে রেখে দিতে, তাই আমি আর সেখানে কোনও সিদ্ধান্ত নিতে যাইনি।”

তবে এ বিষয়ে রামপুরহাটের তৃণমূল বিধায়ক আশিস বন্দোপাধ্যায়ের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে, তিনি বিষয়টি স্বীকার করে নেন। বলেন, “অনুব্রত যা বলছে সত্যি বলছে। তাছাড়া সামনে পঞ্চায়েত ভোট। আমি সেই নির্বাচনের দিকেই নজর দেখেই দলের সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম।”

প্রসঙ্গত, রামপুরহাট অগ্নিকাণ্ডে নিজের বাড়িতে গৃহবন্দি অবস্থায় পুড়ে গিয়ে মৃত্যু হয় ন’জনের। এই ঘটনার জেরে বগটুই গ্রামে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এলাকার মন্ডল সভাপতি আনারুল হোসেনকে গ্রেফতার করার নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, আনারুলের কাছে আগে থেকেই খবর ছিল। কিন্তু তারপরেও সে পুলিশকে খবর দেয়নি। যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে আনারুল নিজে। তাঁর দাবি, আমি নির্দোষ মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে আমি আত্মসমর্পণ করেছে।