‘দলের বিরুদ্ধে আমি নই, আমার লড়াই প্রার্থীর বিরুদ্ধে’, জানালেন তনিমা চট্টোপাধ্যায়

26
Tanima Chatterjee
দাদা বেঁচে থাকলে আজ হয়তো এই অপমানটা তৃণমূল আমায় করতে পারত না: তানিমা চট্টোপাধ্যায়।

মহানগর ডেস্ক: আগামী ১৯ ডিসেম্বর কলকাতার ১৪৪ টি ওয়ার্ডে রয়েছে পুরভোট। কিন্তু সেখানেই টিকিট পাননি প্রয়াত রাজ্যের মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের বোন তানিয়া চট্টোপাধ্যায়। বর্তমানে নির্দল প্রার্থী হিসেবে কলকাতায় প্রচার চালাচ্ছেন তিনি। বুধবার প্রচার শেষে ৫ নম্বর রমণী চ্যাটার্জী লেনের বাড়িতে বসে তিনি জানিয়েছেন, দাদা জীবিত থাকলে এটা হয়তো তৃণমূল করতে পারত না। আজ দাদা নেই বলেই আমাকে এইভাবে অপমান করা হল। এটা আমি মেনে নিতে কষ্ট পাচ্ছি।

সম্প্রতি তৃণমূলের পক্ষ থেকে তনিমা চট্টোপাধ্যায়কে নির্দল প্রার্থী হিসেবে নাম সরিয়ে নেওয়ার আর্জি জানানো হয়েছিল। কিন্তু তা তিনি করেননি। এরপরই দলের পক্ষ থেকে নেওয়া হয় বড়োসড়ো সিদ্ধান্ত। তনিমাকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়। আর তাতেই মনের মধ্যে জন্মায় একরাশ ক্ষোভ। বর্তমানে তনিমা চট্টোপাধ্যায় কলকাতা পুরসভার ৬৮ নম্বর ওয়ার্ডের নির্দল প্রার্থী। ওয়ার্ডের তৃণমূল প্রার্থী হিসেবে তার নাম ঘোষণা করেছিল। কিন্তু পরে বিদায় কাউন্সিলর সুদর্শনা মুখোপাধ্যায়কে করা হয়। তনিমা চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, আমি দলের বিরুদ্ধে নই। বহিষ্কারের পরেও আমি নিজেকে তৃণমূল কর্মী হিসেবে মনে করি। আমার লড়াই প্রার্থীর বিরুদ্ধে। দাদা চেয়েছিলেন’ আমি প্রার্থী হই। তাই নির্দল প্রার্থী হিসেবে আমি দাঁড়িয়েছি।

একইসঙ্গে অভিযোগ জানিয়েছেন তনিমা দেবী। তিনি বলেছেন, অনেক জায়গাতেই পুরপরিষেবার প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থ হয়েছিলেন বিদায়ী কাউন্সিলর সুদর্শনা। ওয়ার্ডে কোনও স্বনির্ভর গোষ্ঠী নেই। লোকজনের কাছে অনেক অভিযোগ শুনেছি। করোনায় মৃতদের পরিবারকে কোনও সাহায্য করা হয়নি বলে অভিযোগ উঠেছে। নির্বাচনী প্রচারে জন্য একটি বিশেষ হোডিং বানিয়েছেন তনিমা। যেখানে লেখা রয়েছে সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের ‘নিজের বোন’। জয়ের প্রতি আশাবাদী তনিমা চট্টোপাধ্যায়। কিন্তু কোথাও না কোথাও আশঙ্কাও রয়েছে। তিনি জানিয়েছেন, মানুষের সাড়া পাচ্ছি প্রচারে। তবে ভোটের দিটা কেমন থাকে তা সবথেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ।