প্রাক্তন কাউন্সিলরের বাড়িতে আয়কর দপ্তরের হানা, পাল্টা প্রতিহিংসার অভিযোগ শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে

12
BJP
আয়কর হানার বিষয়ে শুভেন্দু অধিকারীর বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলল শিল্পপতি।

মহানগর ডেস্ক: হলদিয়া পৌরসভার প্রাক্তন কাউন্সিলর শেখ মুজফফর আলির বাড়িতে আজ আয়কর দপ্তর হানা দেয়। আর তাই নিয়েই শুরু হয়েছে রাজনৈতিক তরজা। জানা গিয়েছে, প্রাক্তন কাউন্সিলরের ছেলে আজগর আলি হলদিয়া পৌরসভার ১৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর। একই সঙ্গে মুজফফরের হলদিয়া বন্দরে পণ্য ওঠানো-নামানোর ব্যবসাও রয়েছে। সেই ব্যবসায় কিছু গড়মিলের জেরেই আয়কর দপ্তর হানা দিয়েছে বলে জানা গেছে। সূত্রের খবর অনুযায়ী, বুধবার সকাল ন’টা নাগাদ কেন্দ্রীয় আয়কর দপ্তরের আধিকারিকরা দুটি দলে ভাগ হয়ে একযোগে শেখ মুজফফরের হলদিয়া ও মহিষাদলের বাড়িতে হানা দেয়। এর পেছনে রাজনৈতিক চক্রান্ত আছে বলেই দাবি করেছেন শিল্পপতি।

বিজেপির প্রাক্তন কাউন্সিলর ছিলেন মুজজফর আলি। বাড়িতে আয়কর দপ্তর হানার প্রসঙ্গে প্রাক্তন কাউন্সিলর জানান, ‘কেন কেন্দ্রীয় আয়কর দপ্তরের আধিকারিকরা আমার বাড়িতে তল্লাশি চালাতে এসেছেন জানিনা! তবে যে এটা সম্পূর্ণ রাজনৈতিক কারণ তা ১০০ শতাংশ সঠিক। এই ঘটনার পেছনে শুভেন্দু অধিকারীর হাত রয়েছে। বিজেপি নেতাই এই ঘটনাটি ঘটিয়েছেন। প্রতিশোধ প্রবণ মানসিকতার জেরেই এই কাজ তাঁর। ভগবান সব দেখছেন, এর বিচার একদিন হবেই।’

কিন্তু এখানেই উঠছে প্রশ্ন। রাজ্যের বিরোধী দলনেতা কেনই বা শিল্পপতির বাড়িতে আয়কর দপ্তরের আধিকারিক পাঠাবেন? সেখানে প্রাক্তন কাউন্সিলর জানিয়েছেন, ‘আমি এখন অন্য কোনও দলে নেই। তাই হয়তো প্রতিশোধ নিতে এই কাজ করছেন বিরোধী দলনেতা।’

প্রাক্তন কাউন্সিলরের এই মন্তব্য মানতে নারাজ পদ্মফুল শিবির। বিজেপির সাংগঠনিক জেলার সহ-সভাপতি তপন কুমার চ্যাটার্জী জানান, ‘আয়কর দপ্তর কেন্দ্রের। কেন্দ্রীয় বাহিনী এবং কেন্দ্রীয় সংস্থা কোথায় কখন যাবে, সেটা কেন্দ্র থেকেই ঠিক করে দেওয়া হয়। কিন্তু এই অভিযোগের দায় রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর ওপর চাপিয়ে দেওয়া একেবারেই অনুচিত। এই বক্তব্যের কোনও যথার্থতা আছে বলে মনে করে না দল।’