Home National কার দখলে কুর্সি,আজ রায় দিতে বুথে বুথে ছত্তিশগড়,মধ্যপ্রদেশের মানুষ

কার দখলে কুর্সি,আজ রায় দিতে বুথে বুথে ছত্তিশগড়,মধ্যপ্রদেশের মানুষ

by Mahanagar Desk
2 views

মহানগর ডেস্ক: মধ্যপ্রদেশ ও ছত্তিশগড়ে কার দখলে কুর্সি, তার ফয়শলায় আজ ভোট যুদ্ধে নেমেছে যুযুধান রাজনৈতিক দলগুলি। বিশেষ করে চব্বিশের লোকসভা ভোটের আগে সবারই নজর রয়েছে এই দুই রাজ্যের গুরুত্বপূর্ণ বিধানসভা ভোটে। দুই ভোটের ফল আগামী লোকসভা ভোটে কী বার্তা দেয়,তা নিয়ে চলছে দিনভর চর্চা।

ছত্তিশগড়ে দ্বিতীয় বার ভোট হলেও মধ্যপ্রদেশে হচ্ছে একদফায় ভোট। এ রাজ্যে কংগ্রেস মুখিয়ে রয়েছে ভোটের ফলের দিকে। শুধু লড়াইয়ে বিজেপিই নয়, রাজ্যের উন্নয়নে বর্তমান কংগ্রেসি মুখ্যমন্ত্রী ভূপেশ বাঘেলের প্রতি জনসমর্থন গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর হয়ে উঠতে চলেছে। শাসক দল কংগ্রেসের লক্ষ্য নব্বই আসনে অন্তত পঁচাত্তর আসন পাওয়ার। তবে দুই রাজ্যের মধ্যে মধ্যপ্রদেশ ঘিরে কৌতূহল প্রবল। ২০২০ সালে জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার নেতৃত্বে ২২জব অনুগামীর সরে আসার পর কমলনাথের নেতৃত্বে কংগ্রেস সরকার ভেঙে যায়। ফের ক্ষমতায় আসে বিজেপি। ওই মুহূর্তে প্রাক্তন শাসকদল ও বিজেপি জনগণেশের রায়ের দিকে তাকিয়ে রয়েছে। কংগ্রেসের দাবি ক্ষমতায় ফিরে আসা বিজেপির পক্ষে একরকম অসম্ভব।

রাজ্যে সরকার বিরোরী হাওয়া বইছে। ২০০৪ সালে মুখ্যমন্ত্রী হন বিজেপির উমা ভারতী। তারপর স্বল্পসময়ের জন্য মুখ্যমন্ত্রীর আসনে বসেন বাবুলাল গৌর। তারপরই মুখ্যমন্ত্রী হন শিবরাজ সিং চৌহান। সালটা ছিল ২০০৫। মৃদুভাষী চৌহান রাজ্যের সবথেকে জনপ্রিয় মুখ্যমন্ত্রী হলেও এবারের বিধানসভা ভোটে তাঁকে প্রোজেক্ট করেনি বিজেপি। তার বদলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে সামনে রেখে প্রচারে নেমেছিল তারা। ক্ষমতা ধরে রাখতে গেরুয়া শিবির অভূতপূর্বভাবে সাতজন সাংসদকে ভোটে নামায়। তাঁদের মধ্যে ছিলেন কেন্দ্রীয়মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর,প্রহ্লাদ প্যাটেল ও ফগ্গন সিং কুলাস্তে। যদিও ভোটে দাঁড়াননি জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া. তবে তাঁর অনুগামীদের পারফর্মেন্স ভোটে ভারসাম্য রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ফেলতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। অনেকেরই ধারণা বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব এবার মুখ্যমন্ত্রী পদে বদল ঘটাতে পারেন।

তবে রাজ্যের অন্যতম জনপ্রিয় ওবিসি নেতা শিবরাজ সিং চৌহানকে সরাতে বেগে পেতে পারে বিজেপি। তাদের বিশেষ নজর রয়েছে গোয়ালিয়র-চম্বল ও মহাকোশল অঞ্চলে। কারণ ২০১৮ সালে ওই অঞ্চলগুলিতে তারা খারাপ ফল করে। ওই অঞ্চলগুলিতে রাজ্যের ২৩০টি আসনের মধ্যে ৭২টি আসন রয়েছে, যা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ভোট গণনা হবে ডিসেম্বরের তিন তারিখে। একইসঙ্গে গণনা হবে তেলঙ্গনা,রাজস্থান ও মিজোরামেও। চব্বিশের লোকসভা ভোটের আগে এই পাঁচ রাজ্যের ভোট ফল,কী বার্তা নিয়ে আসে, সেদিকেই তাকিয়ে গোটা দেশ।

You may also like

Mahanagar bengali news

Copyright (C) Mahanagar24X7 2024 All Rights Reserved