Home National বাদাম খেতে পছন্দ করেন? জেনে নিন  বাদামের উপকারিতা সহ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলিও… 

বাদাম খেতে পছন্দ করেন? জেনে নিন  বাদামের উপকারিতা সহ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলিও… 

by Mahanagar Desk
11 views
মহানগর ডেস্কঃ ছোট থেকে বড়ো বয়সের কোনো ভেদাভেদ নেই, প্রত্যেকেই বাদাম জিনিস টি খেতে কম বেশি পছন্দ করেন। বাদাম যেমন পুষ্টি-গুন-উপাদান সম্পন্ন। তেমনি বাদাম খেতে বেশ মুখরোচক ও মজাদার লাগে। বিকেলের স্ন্যাক্স হিসেবেও আড্ডার জাগায় চা এর দোকান বাড়িতে টিভি দেখতে দেখতে অনেকেইই বাদাম খেয়ে থাকেন কম বেশি। কারণ অনেকেই মনে করেন বাদাম স্বাস্থ্যের পক্ষে ভালো। হ্যাঁ কথাটি ঠিক বাদাম রোজ খাবারের তালিকায় রাখলে আপনার শরীরে ইতিবাচক পরিবর্তন দেখা দেবে কারণ স্বাদের পাশাপাশি প্রত্যেক বাদামের মধ্যে রয়েছে তার নিজস্ব গুন এবং পুষ্টি। চিনাবাদাম, কাজুবাদাম, কাঠবাদাম, পেস্তাবাদামসহ সব ধরনের বাদামে অনেক উপাদান আছে, যা শরীরের জন্য উপকারী। পুষ্টিগুনে দেখতে গেলে বাদামের কোন বিকল্প নেই। এতে যথেষ্ট পরিমানে ফাইবার, প্রোটিন, ভিটামিন, খনিজ, অ্যান্টি অক্সিডেন্ট উপস্থিত থাকে, যা স্বাস্থ্য এবং ত্বকের জন্য খুবই উপকারি হয়ে থাকে। বাদাম খেতে অনেকেই পছন্দ করেন। নিয়মিত বাদাম ভক্ষনে যেমন রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব, তেমনই এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও রয়েছে। বাদাম খাওয়ার উপকারিতার পাশাপাশি অপকারিতাও রয়েছে। জেনে নিন কি কি  উপকারিতা আর অপকারিতা রয়েছে।
১. কোলেস্টেরলের মাত্রা কম করে- নিয়মিত যদি আপনি বাদাম খান, তাহলে উচ্চ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করতে পারে । বাদাম খাওয়ার ফলে লোহিত রক্ত ​​​​কোষে ভিটামিন ই পরিমাণ বাড়ায়। কোলেস্টেরল প্রতিরোধে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট প্রভাব দেয়। প্রতিদিন এক মুঠো বাদাম খেলে কোলেস্টেরলের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। বাদামে থাকা ভিটামিন ই, মনোস্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং ফাইটোস্টেরল সবই কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে।  দৈনন্দিন খাদ্যতালিকায় যদি বাদাম রাখা হয়, তাহলে এলডিএল কোলেস্টেরল কমাতে এবং সামগ্রিক কোলেস্টেরলের মাত্রা উন্নত করতে সাহায্য করে।
২. হার্টের স্বাস্থ্য ভালো রাখে-  বাদামের মধ্যে পুষ্টিগুণ ভরপুর পরিমাণে রয়েছে যা কার্ডিওভাসকুলার সুবিধা দেয়। হার্টের স্বাস্থ্য ভালো রাখে। বাদামের স্বাস্থ্যকর চর্বি, ভিটামিন ই, ফাইবার, ম্যাগনেসিয়াম এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট সবই হার্টের স্বাস্থ্যকে তরতাজা রাখে। গবেষণায় দেখা গেছে যে খাবারের পাশাপাশি বিভিন্ন বাদাম যারা খেয়েছেন তাঁদের হার্ট অন্যদের তুলনায় ভালো। বাদাম প্রচুর পরিমাণে ডায়েট কোলেস্টেরল এবং রক্তচাপ কমিয়ে কার্ডিওভাসকুলার সুবিধা দেয়।
৩. ব্লাড সুগার নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে- বাদামের মধ্যে যে পুষ্টি উপাদান গুলি থাকে, তার মধ্যে বিশেষ করে ম্যাগনেসিয়াম, রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে। বাদামে যেহেতু ম্যাগনেসিয়াম থাকে, তা রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে এবং স্থিতিশীল রাখতে সাহায্য করে। বাদামে ফাইবার, স্বাস্থ্যকর চর্বি থাকায়, তা খাওয়ার পরে রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণ করতে সাহায্য করে।যারা তাদের রক্তে শর্করার পরিমাণ, নিয়ন্ত্রনে রাখতে চান তাদের জন্য বাদাম খাওয়া সব থেকে সহজ পদ্ধতি।
৪. বাদাম হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়- হৃদযন্ত্রের জন্য বাদাম খুবই উপকারী হিসেবে কাজ করে। বিভিন্ন গবেষণা থেকে জানা গেছে, নিয়মিত সবরকমের বাদাম খেলে হৃদযন্ত্রের ওপর ক্ষতিকর কোলেস্টেরলের মাত্রা হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়, তার জেরে হৃদরোগ হওয়ার সম্ভাবনাও কম থাকে।
৫. ক্যান্সার থেকে বাঁচায়- প্রতিদিন কাজু বাদাম খেলে ক্যান্সার হওয়া থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। কাজুতে একধনের প্রুনোথোসিনিডিন ও ফ্লাভোনিওাইড থাকে, যা ক্যান্সার কোষগুলিকে ক্রমবর্ধমান থেকে আটকাতে সাহায্য করে।
৬. ক্লান্তি দূর করে- শক্তি জোগানোর উৎস হিসেবে বাদামের ভূমিকা অপরিসীম। বাদাম খাওয়ার কিছুক্ষনের মধ্যেই দেহে এনার্জি সঞ্চার হয়। নিয়মিত বাদাম খেলে শরীরের ক্লান্তি হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে। কারণ এনার্জি ভরপুর থাকে।
৭. মস্তিষ্ক শক্তিশালী করে- আখরোট খেলে অনেকেই শুনেছেন মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বাড়ে। এর পাশাপাশি কাজু বাদামে এক প্রকার তেল থাকে যা ভিটামিন বি সমৃদ্ধ। এছাড়া অন্যান্য বাদামেও রয়েছে ভিটামিন বি, যা মনে রাখার শক্তি বৃদ্ধি করতে সাহায্য করে।
৮  রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ- পটাসিয়ামের পরিমাণ বাদামে উচ্চ মাত্রায় থাকে। সোডিয়ামের পরিমাণ কম থাকে। যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। প্রতিদিন বাদাম থেকে দেহে সোডিয়ামের মাত্রা বেশি হলে দেহে রক্ত বৃদ্ধি পায় তখন রক্তচাপ বেড়ে যায়।
৯. চোখ, ত্বক, হাড় ও দাঁতের গঠনে সাহায্য  করে- সবরকম বাদামে যথেষ্ট প্রোটিন-ভিটামিন মজুত থাকে। যার ফলে নিত্য দিন বাদাম খেলে সেই বাদামের গুনাগুন দেহে পুষ্টি হিসেবে কাজ করে, যার দরুন ত্বকে আসে পরিবর্তন। দৃষ্টিশক্তি আরও প্রখর হয়। হাড় ও দাঁত মজবুত মজবুত হয়।
অন্য সব খাবারের মতো বাদাম খাওয়ারও একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ রয়েছে। প্রয়োজনের চেয়ে কোনো কিছুই বেশি পরিমাণে খাওয়া ভালো নয়। বেশি বাদাম খেতে থাকলে শরীরের ক্ষতি হতে পারে। একজন ব্যক্তি দিনে ৩০ গ্রাম বাদাম খেতে পারেন। এর বেশি খেলে সমস্যা দেখা দিতে পারে।
১. বাদামের অনেক উপকারিতা থাকলেও অতিরিক্ত গ্রহণ করলে তা শরীরে সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। পলি আনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড প্রধানত ওমেগা-৬।  ওমেগা -৬ ফ্যাটি এসিড যখন বেশি পরিমাণে থাকে তখন ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড বিক্রিয়া করে ব্যাপারটা টক্সিক হয়ে যায়।
২. অতিরিক্ত বাদাম খাওয়ার ফলে ওমেগা ৬ অতিরিক্ত পরিমাণে গ্রহণ করা হলে তা হার্টের রোগ, আর্থাইটিস, ডায়াবেটিস এলার্জি ও অ্যাজমা রোগ সৃষ্টি পর্যন্ত করতে পারে, বা বাড়তে পারে।
৩. আপনি বাদাম খেতে খুব পছন্দ করেন। তাই কিছু না ভেবেই যদি রোজ আপনি ২০০ গ্রাম করে কাজু বাদাম বা অন্যান্য বাদাম রোজ খান, তাহলে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দেখা দিতে পারে । বাদাম অতিরিক্ত খেলে একটি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়া। বাদাম শরীরে অতিরিক্ত ফাইটিক এসিড সৃষ্টি করে। ফাইটিক এসিড সরাসরি হজম করতে পারে না, তাই শরীরে খাবার হজমের ক্ষেত্রে বাধার সৃষ্টি হয়।
৪. যদি কারোর কিডনি ও গলব্লাডারের সমস্যা থেকে থাকে। তাহলে তাদের কাঠবাদাম ও কাজুবাদাম এড়িয়ে চলা উচিত। কারণ এতে  অক্সালেট ক্যালসিয়াম আছে, যা কিডনিতে পাথর সৃষ্টি করতে পারে।
৫. বাদামে উচ্চ প্রোটিন ও ফ্যাট থাকে। অতিরিক্ত ক্যালরিসমৃদ্ধ হওয়ায় বাদাম বেশি পরিমাণে খেলে ওজন বেড়ে যেতে পারে। যার ফলে ফ্যাট বাড়ার দরুন নানা সমস্যা দেখা দিতে পারে।  তাই মাত্রাতিরিক্ত বাদাম খেলে আপনি কিন্তু মোটা হয়ে যেতে পারেন। কাঠ বাদাম ওজন কমায় পাশাপাশি বেশি খেলে ওজন বাড়াতেও পারে।
৬. বাদাম যদি লবণ দিয়ে ভেজে খাওয়া হয় তাহলে সেটি ব্লাড প্রেশার বাড়িয়ে দিতে পারে। সেহেতু অতিরিক্ত নুন ত্যাগ বা নুন ত্যাগ করুন, বাদাম খাওয়ার সময়।
৭. যদি আপনি প্রত্যেকদিন বাদাম খান, তাহলে সঠিক মাত্রা মেপে খান। অর্থাৎ নিয়মিত খাবারের তালিকায় বাদাম যোগ করলে চার ভাগের এক ভাগ রাখুন, তাহলে বিভিন্ন সমস্যা এড়িয়ে চলতে পারবেন।
৮. অ্যালার্জির সমস্যা-  সব থেকে বড়ো সমস্যা হচ্ছে এই এলার্জি সংক্রান্ত বিষয়। বাদামে প্রচুর পরিমাণে উপকারিতা বিদ্যমান থাকলেও, বাদাম খাওয়ার সময় সঠিক পদ্ধতিতে না খেলে, বা যাদের এলার্জির ধাত রয়েছে তাদের ক্ষেত্রে কিছু সাইড এফেক্ট দেখা যায়। তার মধ্যে একটি হলো অ্যালার্জির সমস্যা। বাদামে অ্যালার্জি হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। তাই বাদাম খাওয়ার আগে সচেতন হন কোন বাদামে আপনার অ্যালার্জি রয়েছে। ডাক্তারের পরামর্শ নিন

You may also like

Mahanagar bengali news

Copyright (C) Mahanagar24X7 2024 All Rights Reserved