জাঠ নেতা জয়ন্ত চৌধুরীকে জোটের প্রস্তাব বিজেপির, ‘এই সমস্ত আমন্ত্রণ আমাকে দেবেন না’, টুইট RLD সুপ্রিমোর

7

মহানগর ডেস্ক: শিয়রে উত্তরপ্রদেশের বিধানসভা নির্বাচন। আর এই হাই ভোল্টেজ নির্বাচনের ফলাফলের দিকে তাকিয়ে রয়েছে গোটা দেশ। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনকে পাথেয় করেই নিজেদের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে মরিয়া রাজ্যের রাজনৈতিক দলগুলো। বিশেষ করে রাজ্যের শাসক দল অর্থাৎ বিজেপিকে উৎখাত করতে উঠেপড়ে লেগেছে সমাজবাদী পার্টি এবং তাদের সঙ্গে এবারে হাত মিলিয়েছে আরএলডি ( RLD )। আগামী মাসের ১০ তারিখ থেকে মোট সাত দফায় অনুষ্ঠিত হতে চলেছে এই রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন। আর ভোটের দিন যত এগিয়ে আসছে ততই যেন শাসক – বিরোধীদের মধ্যে কটাক্ষ পাল্টা কটাক্ষের ঝাঁঝ আরও বৃদ্ধি পাচ্ছে।

রাজ্যের উত্তর – পশ্চিমের গুরুত্বপূর্ণ জাঠ ভোটব্যাঙ্ক হাতছাড়া করতে নারাজ গেরুয়া শিবির। আর এই মর্মেই সমস্ত জাঠ ভোটকে একীভূত করার জন্য নতুন কৌশল তৈরি করছে বিজেপি। বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠক করেন দিল্লির প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা পদ্ম শিবিরের নেতা সাহেব সিং ভার্মার ছেলে পারভেশ ভার্মা। এমনকি এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন প্রায় ২০০ জন জাঠ নেতাও।

এরপর সরাসরি বিজেপির পক্ষ থেকে বোঝাপড়ার সম্ভাবনা নিয়ে আরএলডি নেতা জয়ন্ত চৌধুরীকে আমন্ত্রণ দেন পশ্চিম দিল্লির গেরুয়া শিবিরের সাংসদ। এরপর তিনি আরও বলেন,’ জয়ন্ত চৌধুরীকে আমরা স্বাগত জানাতে চেয়েছিলাম কিন্তু তিনি ভুল পথে হেঁটেছেন। যদিও জাঠ সম্প্রদায়ের মানুষরা তাঁর সঙ্গে কথা বলবেন। আমাদের দরজা তাঁর জন্য সবসময়ই খোলা থাকবে।’

বিজেপি নেতার এই বক্তব্যের পাল্টা জবাব দিয়েছেন খোদ জয়ন্ত চৌধুরী। এদিন নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে একটি টুইট করে তিনি লিখেছেন,’ এই সমস্ত আমন্ত্রণ আমার কাছে পাঠাবেন না। যদি এই আমন্ত্রণ পাঠাতেই হয় তাহলে সেই ৭০০ পরিবারগুলোকে পাঠান যাঁদের ঘর আপনারা ভেঙেছেন।’

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত বছর থেকে কেন্দ্রের তিনটি বিতর্কিত কৃষি আইনের বিরুদ্ধে কৃষকদের আন্দোলনের সময় থেকেই বিজেপির বিরুদ্ধে চলে যান জাঠ সম্প্রদায়ের মানুষরা। বর্তমানে গেরুয়া শিবিরের বিরুদ্ধে আরও বেড়ে গিয়েছে এই ক্ষোভ। ফলত উত্তরপ্রদেশের আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির প্রধান বিরোধী দল সমাজবাদী পার্টির সঙ্গে জোট বেঁধে ময়দানে নামছে আরএলডি।