আগে একাধিকবার লাল তাণ্ডব ঘটেছে, মনে করালেন সায়ন্তন

6
kolkata news

Highlights

  • জেএনইউ-কাণ্ডে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বললেন সায়ন্তন
  •  তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা করছি
  • পরবর্তী সময়েও যদি কেউ এই কাণ্ড করে থাকে তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা হওয়া উচিত


নিজস্ব প্রতিনিধি, হাওড়া:
জেএনইউ-কাণ্ডে দোষীরা যে রাজনৈতিক দলেরই হোক তাদের বিরুদ্ধে পুলিশের ব্যবস্থা নেওয়া উচিত বলে মন্তব্য করলেন রাজ্য বিজেপি’র অন্যতম সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু। সোমবার সকালে হাওড়ায় এক দলীয় কর্মসূচিতে এসে তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দিতে গিয়ে একথা বলেন। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা করছি। পুলিশকে ঘটনার যথাযথ তদন্ত করতে হবে। আমি কোনও তাণ্ডবেরই সমর্থন করি না। পরবর্তী সময়েও যদি কেউ এই কাণ্ড করে থাকে তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা হওয়া উচিত। একইসঙ্গে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা হওয়া উচিত যারা মুখোশ পরে জেএনইউ-এ হামলা করেছে।

পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, বিদ্যার্থী পরিষদের ছাত্র নেতাদের ওপর যারা হামলা করেছেন ১ তারিখ থেকে লাগাতার তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা হওয়া উচিত। যারা বলছেন গেরুয়া তাণ্ডব, তার আগে যে লাগাতার লাল তাণ্ডবের ঘটনা ঘটেছে, সেই স্মৃতিও কিন্তু টাটকা হয়ে রয়েছে। যারা এই ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে, সে যে দলের যত বড়ই নেতাই হোক তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা হওয়া উচিত। আমার মনে হয় যারা তাণ্ডব চালাচ্ছে, তারা ছাত্র নয়। তারা ছাত্রছাত্রীদের আশ্রিত দুষ্কৃতকারী।

এদিন আসন্ন হাওড়া পুরসভা নির্বাচন ও অন্যান্য বিষয়কে সামনে রেখে বিজেপি-র পক্ষ থেকে এক প্রস্তুতি সভা হয় হাওড়ার শরৎ সদনে। সভায় উপস্থিত ছিলেন দলের অন্যতম রাজ্য সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু, সঞ্জয় সিং, হাওড়া জেলা সদর সভাপতি সুরজিৎ সাহা, বিজেপি রাজ্য কমিটির সদস্য উমেশ রাই প্রমুখ। এদিন সায়ন্তনবাবু আরও বলেন, নাগরিকত্ব সংশোধনী আইনের সমর্থনে আমরা হাওড়ায় মিছিল, সভা করার অনুমতি পাচ্ছি না। এর জন্য ১৭ তারিখ হাওড়ার ডুমুরজলা স্টেডিয়াম থেকে এক বিশাল মিছিল হবে। মিছিলে থাকবেন দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। ১৫ থেকে ২০ হাজার মানুষ থাকবেন সেই মিছিলে। আমাদের আশঙ্কা, পুলিশ সেই মিছিল আটকানোর চেষ্টা করতে পারে। আসলে তৃণমূল কংগ্রেস আতঙ্কিত। এভাবে জোর করে আমাদের আটকে রাখা সম্ভব নয়।