IPL: নাইটদের অধিনায়ক এবং টিম ম্যানেজমেন্ট নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য কুলদীপের

35
আবুধাবিতে কেকেআরের অনুশীলনে কুলদীপ যাদব। ছবি সৌজন্যে টুইটার।

মহানগর ডেস্ক: দরজায় কড়া নাড়ছে আইপিএলের দ্বিতীয় পর্ব। আর দিন পাঁচেক পরই মাঠে নেমে পড়বে কলকাতা নাইট রাইডার্স। ২০ সেপ্টেম্বর কেকেআরের প্রথম ম্যাচ বিরাট কোহলির রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের বিরুদ্ধে। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচটির আগেই অশান্তির দাবানল জ্বলে উঠলো নাইট শিবিরে। হঠাৎ করে অধিনায়ক ইয়ন মরগ্যান এবং সেইসঙ্গে টিম ম্যানেজমেন্টকে ভূমিকা নিয়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করে বসলেন কুলদীপ যাদব।

এবারের আইপিএলে অর্ধেক পথ ইতিমধ্যেই অতিক্রম করে ফেলেছে কিং খানের দল। তবে ভারতের হওয়া সাতটি ম্যাচের মধ্যে একটিতেই সুযোগ পাননি কুলদীপ। গতবার আরসিবির বিরুদ্ধে দুবাইয়েই শেষ আইপিএল ম্যাচে মাঠে নেমেছিলেন ভারতের এই চায়নাম্যান বোলার। দ্বিতীয় পর্বেও সুযোগ পাবেন কি না তা নিয়ে বেশ ধন্দে রয়েছেন বাঁহাতি স্পিনার। আর এর জন্য তিনি সরাসরি দায়ি করলেন অধিনায়ককে। ইংরেজ নেতা সম্পর্কে কুলদীপের বক্তব্য, ‘দলে অধিনায়কের দিক থেকে ক্রিকেটারদের সঙ্গে যোগাযোগের কোনও ব্যাপারই নেই।’ কুলদীপের সন্দেহ, ক্রিকেটার হিসেবে তিনি কেমন, সে সম্পর্কে মরগ্যানের কোনও ধারণাই হয়তো নেই।

উত্তর প্রদেশের ২৬ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার বলেন, ‘জানি না মরগ্যান আমাকে কী চোখে দেখে। বিদেশি কেউ অধিনায়ক হলে যোগাযোগের অভাবটা আরও বাড়ে। ভারতীয় কেউ অধিনায়ক হলে সরাসরি তাকে গিয়ে জিজ্ঞেস করা যায়, কেন বাদ দেওয়া হয়েছে। যেমন রোহিত শর্মা যদি অধিনায়ক হয়, ওকে অনায়াসে প্রশ্ন করা যায়; কিন্তু এখানে এটা হয় না।’

নাইট শিবিরে বিদেশি অধিনায়ক থাকায় কাজটা বেশি কঠিন হয়েছে বলে মনে করছেন কুলদীপ। তিনি বলেন, ‘আইপিএল মানে টিম ম্যানেজমেন্ট মাত্র দুই মাসের জন্য একটা পরিকল্পনা নিয়ে আসে। এতে কাজটা আরও কঠিন হয়ে যায়। ভারতীয় দলে বাদ পড়লে সেটা জানানো হয়, সেটা নিয়ে সংশ্লিষ্ট প্লেয়ারের সঙ্গে কথা বলা হয়। কিন্তু আইপিএলে সে সব হয় না। এখানে আমাকে বাদ দেওয়া নিয়ে কেউ কোনও ব্যাখ্যা দেয়নি। আমার খুব খারাপ লেগেছে। মনে হয়েছে, আমার উপর এদের কোনও বিশ্বাস বা আস্থা নেই। হাতে অনেক ক্রিকেটার থাকলে এরকমই হয়। কেকেআর দলে এখন অনেক স্পিনার।’

এখানেই থেমে থাকেননি কুলদীপ। তিনি আরও বলেন, ‘যদি কোচ বা অধিনায়কের সঙ্গে অনেক দিন ধরে কাজ করার সুযোগ পাওয়া যায়, তাহলে সুবিধে হয়। তারাও আমাদের বুঝতে পারে; কিন্তু যদি কোনও যোগাযোগ না থাকে, তাহলে ব্যাপারটা খুব কঠিন হয়ে যায়। মাঝে মাঝে তো বোঝাই যায় না, দল আমার থেকে কী চাইছে, আমি আদৌ খেলার সুযোগ পাব কিনা।’

এই ধরনের মন্তব্য করে শুধুমাত্র যে অধিনায়ককে একহাত নিয়েছেন তাই নয়, সরাসরি টিম ম্যানেজমেন্টের দিকেও আঙুল তুলে দিয়েছেন তিনি। কারণ দীনেশ কার্তিকের পরিবর্তে মরগ্যানকে নেতৃত্বের দায়িত্ব ভার দিয়েছে টিম ম্যানেজমেন্টই। তাই টিম ম্যানেজমেন্টের ভূমিকা নিয়ে বেশ ক্ষুব্ধ কুলদীপ।

অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জয়ী এই ক্রিকেটারকে ২০১৬ সালে খুব ঘটা করে দলে টেনেছিল নাইট রাইডার্স। তখন অবশ্য তিনি দলের নিয়মিত ক্রিকেটার ছিলেন। আইপিএলের ভালো পারফর্ম করার পুরস্কার স্বরূপ ভারতীয় দলেও সুযোগ পেয়ে যান কুলদীপ। কিন্তু কেকেআরে দীর্ঘদিন খেলার সুযোগ না পাওয়ায় তাঁর ফর্ম পড়তির দিকে, এমনটাই ধারনা বিশেষজ্ঞ মহলের।