শেষ রক্ষা হল না, গৃহবধূকে খুন করে পলাতক গোটা পরিবার

9

নিজস্ব প্রতিনিধি, নদিয়া: আবারও এক মর্মান্তিক ঘটনার সাক্ষী থাকল গোটা নাকাশিপাড়া। MA পাস এক গৃহবধূ দিনের পর দিন তার শ্বশুর বাড়িতে মানসিক ও শারীরিক নির্যাতন সহ্য করে যাচ্ছিল। কিন্তু শেষ রক্ষা হল না। কেড়ে নিল তাঁর জীবন। এমনটাই দাবি করছেন স্থানীয় এলাকাবাসী ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা। চরম অমানবিক এই দুর্ঘটনাটি ঘটেছে নদিয়ার নাকাশিপাড়া থানার ধর্মদা গ্রামের বাস স্ট্যান্ড সংলগ্ন এলাকায়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ওই এলাকার বাসিন্দা বাপন শেখের সঙ্গে রিঙ্কু গনির বিয়ে হয় বেশ কয়েক বছর আগে। তাদের একটি সন্তানও রয়েছে। পড়াশোনা করার কারণে নানান অপমান লাঞ্ছনা গঞ্জনা সহ্য করতে হয় তাকে। কিন্তু দিনের পর দিন MA পাস গৃহবধূর উপর চলে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন। আর এই নির্যাতন চালাত বাপন সেখের পরিবার। গত শনিবার গৃহবধূর ওপর অত্যাচারচরম হয়ে। জানা গিয়েছে গতকাল রাতেও অত্যাচার চলছিল রিঙ্কু গনির ওপর। সেই সময় ফোনে ছিলেন গৃহবধূর মা জাহানরা বিবি। সে ফোনের ওপার থেকে বারংবার অনুনয় বিনয় করে তার জামাই বাপন শেখের কাছে। তার মেয়ের ওপরএমন নির্মম ভাবে অত্যাচার না চালানোর জন্য।

তবে স্থানীয় এলাকাবাসীরা অভিযোগ করছেন বাপন শেখ তার স্ত্রীকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করে। পরবর্তীতে একটি ঘরে ওড়না গলায় দিয়ে তাকে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে। খুনের ঘটনা চাপা দেওয়ার জন্য। আর এই ঘটনার জানাজানি হতেই তীব্র চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয় গোটা এলাকায়। পুলিশ গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে ইতিমধ্যেই। তবে অভিযুক্ত বাপন সেখ ও তাঁর পরিবার পলাতক বলে জানা গিয়েছে।
গৃহবধূ রিঙ্কু গনির পরিবার ফাঁসির দাবি করেছে বাপন শেখের বিরুদ্ধে। এখনও পর্যন্ত তাঁকে গ্রেফতার করা সম্ভব না হওয়ার ফলে ক্ষোভ জমেছে এলাকাবাসীর মধ্যে।