UEFA Champions League: পিএসজির জার্সিতে অভিষেক গোল করে রেকর্ড মেসির, সিটিকে হারাল পিএসজি

11
জয়ের পর মেসিকে জড়িয়ে ধরে ডোনারুম্মার উচ্ছ্বাস।

মহানগর ডেস্ক: অপেক্ষার অবসান। পিএসজির জার্সি গায়ে অভিষেক গোলটি করেই ফেললেন লিওনেল মেসি। নতুন ক্লাবে যোগ দেওয়ার পর প্রথম তিন ম্যাচে গোলের দেখা পাননি তিনি। তাই বিশ্ব জুড়ে তাঁর ভক্তরা এই দিনটার অপেক্ষাতেই যেন প্রহর গুনছিলেন। কিন্তু তাঁদের অপেক্ষা দীর্ঘায়িত করলেন না মেসি। পিএসজির জার্সিতে চতুর্থ ম্যাচেই অভিষেক গোল পেয়ে গেলেন বিশ্বের অন্যতম সেরা ফুটবলার।

আর এই অভিষেক গোলটি স্মরণীয় করে রাখার মতোই। কারণ টুর্নামেন্টটা যেখানে উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ আর প্রতিপক্ষ যেখানে মেসির পুরনো গুরু পেপ গুয়ার্দিওলার ম্যাঞ্চেস্টার সিটি। তবে মেসিকে বেশিক্ষণ রুখতে পারেননি সিটিজেনরা। ম্যাচ শেষে গুয়ার্দিওলাও তাই স্বীকার করে নিয়েছেন, মেসিকে ৯০ মিনিট আটকে রাখা সম্ভব নয়! আর্জেন্টাইন যুবরাজ ও ইদ্রিসা গুইয়ের গোলে ঘরের মাঠে পার্ক দি প্রিন্সেসে ম্যান সিটিকে ২-০ গোলে হারিয়ে চলতি চ্যাম্পিয়ন্স লিগে নিজেদের প্রথম জয়ের দেখাও পেল মাউরিসিও পচেত্তিনোর দল।

ক্লাব ব্রুগের সঙ্গে ১-১ গোলে ড্র করে শুরু হয়েছে পিএসজির এবারের চ্যাম্পিয়ন্স লিগ যাত্রা। গতবারের ফাইনালিস্ট সিটির বিপক্ষে তাই বড় চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করে ছিল ফরাসি ক্লাবটির জন্য। তবে মেসির জ্বলে ওঠার দিনে জয় নিয়েই মাঠ ছেড়েছে তারা। মঙ্গলবার রাতের ম্যাচটিতে পিএসজির জয়ের অন্যতম নায়ক অবশ্য গোলরক্ষক জিয়ানলুইজি ডোনারুম্মা। পুরো ম্যাচে আক্রমণের আধিপত্য ছিল ম্যান সিটির। অন্তত ১৮টি শট করে তারা। যার মধ্যে ৭টি ছিল লক্ষ্যে। কিন্তু সেই সাতটিই ফিরিয়ে দুর্গ অক্ষত রাখেন এবারের ইউরো কাপ জয়ী ইতালিয়ান তরুণ।

ম্যাচের অষ্টম মিনিটে অবশ্য প্রথম গোল করে পিএসজিই। বাইলাইন থেকে কিলিয়ান এমবাপ্পের কাটব্যাক করা বলে পা ছোঁয়াতে পারেননি নেইমার। তবে তা ক্লিয়ার করতে ব্যর্থ হন ম্যান সিটির রিয়াদ মাহরেজও। পেনাল্টি স্পটের কাছ থেকে বিনা বাঁধায় বল জালে জড়ান গুইয়ে। এরপর ৭৪ মিনিটে উচ্ছ্বাসের বাধ ভাঙে মেসির গোলে। প্রতি আক্রমণ থেকে মাঝ মাঠে বল পান মেসি। সেটি ধরে গতিকে কাজে লাগিয়ে দ্রুত চলে ম্যান সিটির ডি-বক্সের কাছে। গায়ের সঙ্গে লেগে থাকা ডিফেন্ডার এমেরিক লাপোর্তাকে এড়িয়ে পাস দেন এমবাপ্পের উদ্দেশ্যে। নিজের কাছে বল রাখেননি ফরাসি তারকা। প্রথম ছোঁয়ায় ফিরতি তা আবার ফিরিয়ে দেন মেসিকে। ততক্ষণে ডি-বক্সের মুখে ফাঁকায় দাঁড়িয়ে মেসি। ফিরতি বল পেয়ে বাঁ পায়ের দুরন্ত শটে ব্যবধান ২-০ করেন ছয়বারের ব্যালন ডি অর জয়ী ফুটবলার।

ম্যান সিটির বিপক্ষে গোলটি করে নতুন একটি রেকর্ড গড়েছেন মেসি। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে টানা ১৭ মরশুম গোল করলেন তিনি। একই রাতে এই রেকর্ড গড়েছেন রিয়াল মাদ্রিদের ফরাসি স্ট্রাইকার করিম বেনজিমাও। ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর রয়েছে টানা ১৬ মরশুম গোলের রেকর্ড। এই মরশুমে অবশ্য এখনও সুযোগ আসেনি সিআর সেভেনের সামনে। এই গোলের ফলে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে মেসির গোল সংখ্যা বেড়ে হল ১২১। এর মধ্যে ২৭টি করেছেন ইংল্যান্ডের ক্লাবগুলোর বিপক্ষে। যা অন্য যে কোনও ফুটবলারের চেয়ে ১৫টি বেশি।

মেসি-গুইয়ের গোলে পাওয়া জয়ের সুবাদে দুই ম্যাচে ৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে উঠে এল পিএসজি। গ্রুপ এ’তে সমান ম্যাচে একই পয়েন্ট ক্লাব ব্রুগেরও। তবে গোল পার্থক্যের জেরে তারা রয়েছে দুই নম্বরে। তিন পয়েন্ট নিয়ে ম্যান সিটি রয়েছে তিন নম্বরে।