Malda: টিটেনাসের বদলে ‘ভুল’ করে অ্যান্টিরেবিস ইঞ্জেকশন দিলেন নার্স! হাসপাতালে বিক্ষোভ স্থানীয়দের

314
Malda: টিটেনাসের বদলে 'ভুল' করে অ্যান্টিরেবিস ইঞ্জেকশন দিলেন নার্স! হাসপাতালে বিক্ষোভ স্থানীয়দের

নিজস্ব প্রতিনিধি, মালদা: কাঁচি দিয়ে কেটে গিয়েছিল এলাকারই এক মহিলার হাতের তালু। তাই দেরি না করে স্থানীয় হাসপাতালে গিয়েছিলেন টিটেনাস ইনজেকশন নিতে। কিন্তু সেখানে কর্তব্যরত স্বাস্থ্যকর্মী ভুলবশত কুকুরে কামড়ানোর ইনজেকশন দিয়ে দেন ওই মহিলাকে। তারপরেই অসুস্থ হয়ে পড়েন এই মহিলা। বাড়ি ফিরে এসে ক্রমাগত মাথা ঘোরা ও বমি করতে থাকেন।

ঘটনাকে ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়ায় মালদহের হরিশ্চন্দ্রপুর ১ ব্লক সদর এলাকার জুড়ে। যদিও এই বিষয়ে মুখ খুলতে নারাজ হরিশ্চন্দ্রপুর গ্রামীণ হাসপাতালের স্বাস্থ্য কর্তারা। ঘটনার জেরে হাসপাতালে চিকিৎসক সুব্রত চৌধুরীকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখান এলাকার বাসিন্দারা। যদিও রাজ্য-জুড়ে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা বেহাল দশা নিয়ে খোঁচা দিয়েছেন বিজেপি জেলা সম্পাদক কিষান কেডিয়া। অন্যদিকে সাফাই দিয়েছেন রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান তথা যুব ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি জিয়াউর রহমান। আর গোটা ঘটনাকে ঘিরে শুরু হয়েছে তৃণমূল-বিজেপির তরজা।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায় সঙ্গীতা গুপ্তা হরিশ্চন্দ্রপুর সদর এলাকার কলম পাড়ার বাসিন্দা। তিনি একটি সেলাইয়ের দোকান চালান। সেলাই করতে গিয়ে কাঁচি দিয়ে তার হাতের তালু কেটে যায়। তিনি দেরি না করে স্থানীয় হরিশ্চন্দ্রপুর গ্রামীণ হাসপাতালে যান টিটেনাসের টিকা নিতে।

সেই সময় হাসপাতালে কুকুর বিড়াল কামড়ানর ইনজেকশন দেওয়া হচ্ছিল। তখনই তিনি সেখানকার চিকিৎসদের জানান যে তাঁর হাত কেটে গিয়ে আর এর ফলে তাঁকে টিটেনাস নিতে হবে। সেই সময় এক কর্তব্যরত নার্স সঙ্গীতা দেবীর হাতে পরপর দুটি ইনজেকশন দিয়ে দেন। এরপর আবার তাঁর হাতে তৃতীয় ইনজেকশন দিতে আসার সময় সঙ্গীতা দেবীর সন্দেহ হয় এবং তিনি ইঞ্জেকশন দিতে বাধা দেন।

সঙ্গে সঙ্গে কর্তব্যরত নার্সকে জিজ্ঞেস করেন যে তাঁকে এতোগুলো ইনজেকশন দেওয়া হচ্ছে কেন? তখনই তিনি জানতে পারেন তাকে ভুলবশত কর্তব্যরত নার্স কুকুর কামড়ানোর অ্যান্টিরেবিস ইনজেকশন দিয়ে দিয়েছেন। তিনি তৎক্ষণাৎ হাসপাতালের বি এম ও এইচ ডক্টর অমল কৃষ্ণ মন্ডলের কাছে ছুটে যান।

ডাক্তারবাবু তাঁকে আশ্বস্ত করেন ভয় পাওয়ার কিছু নেই। ভুল করে কুকুর কামড়ানোর ইনজেকশন দিয়ে দেওয়া হয়েছে। এরপর তাঁকে ফের শীঘ্রই টিটেনাস নেওয়ার জন্য হাসপাতালে আবার পাঠিয়ে দেন।

পাশাপাশি তাঁকে আরও জানিয়ে দেওয়া হয় কুকুর কামড়ানোর ভ্যাকসিনের বাকি ডোজ পরবর্তী দিনে এসে নিয়ে নিতে। তারপরই ওই গৃহবধূর মনে আশঙ্কা তৈরি হয় এবং বাড়িতে গিয়ে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরিবারের লোকেরা জানান সঙ্গীতা বাড়িতে এসে কয়েক বার বমি করেন এবং এমনকি মাথা ঘুরে পড়ে যান। ভুল ইনজেকশন দেওয়াতে এই ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি সংগীতার পরিবারের।