‘এটা হচ্ছেটা কী?’ সরকারের বাজেট পেশের পদ্ধতি নিয়ে ক্ষুব্ধ মান্নান-সুজন

155
news bengali

মহানগর ওয়েবডেস্ক: এবারও বিধানসভার আলোচনা ছাড়াই পাস হয়ে যাচ্ছে রাজ্যের অধিকাংশ দফতরের বাজেট। যার মধ্যে রয়েছে স্বরাষ্ট্র, পার্বত্য বিষয়ক, সংখ্যালঘু উন্নয়নের মত মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাতে থাকা একাধিক দফতরও রয়েছে। এছাড়া আদিবাসী উন্নয়ন, মাদ্রাসা শিক্ষা, পশ্চিমাঞ্চল উন্নয়নের মত বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দফতরের বাজেটও আলোচনা হবে না বলে সোমবার বিধানসভার কার্য উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে। এইসব দফতরের বাজেট আলোচনা ছাড়াই পাস হয়ে যাবে। সংসদীয় পরিভাষায় যার নাম গিলোটিনে যাওয়া। স্বরাষ্ট্র সংখ্যালঘু উন্নয়ন দফতরের বাজেট বিধানসভায় আলোচনা না হওয়ায় প্রতিবাদে সরব হয়েছে বিরোধীরা। প্রতিবাদে এদিন কার্যউপদেষ্টা কমিটির বৈঠক থেকে যৌথভাবে ওয়াক আউট করে বাম ও কংগ্রেস।

বিরোধীদের অভিযোগ আলোচনা ছাড়াই বেশিরভাগ দফতরের বাজেট গিলোটিনে পাস করানো এই সরকারের অভ্যেসে পরিণত হয়েছে। ২০১১ সালে রাজ্যে সরকার বদলের পর থেকেই স্বরাষ্ট্র দফতরের মতো গুরুত্বপূর্ণ দফতরগুলির বাজেট আলোচনা ছাড়াই পাস করানোর রীতি শুরু হয়েছে বলে তাদের অভিযোগ। তবে এই ইস্যুতে প্রতিবাদ জারি রাখা হবে বলে বিরোধীরা জানিয়ে দিয়েছেন। বিরোধী দলনেতা আব্দুল মান্নান জানিয়েছেন, মঙ্গলবার বিধানসভার অধিবেশন শুরু হলে তারা এই বিষয় নিয়ে মুলতবি প্রস্তাব আনবেন। স্পিকার আলোচনার অনুমতি না দিলে বিধানসভার ভিতর আন্দোলন শুরু করবে বাম-কংগ্রেস। তিনি বলেন, ‘আমাদের দাবি না মানা হলে বাজেট যখন গিলোটিনে পাস হবে তখন আমরা অধিবেশন বয়কট করব। বাইরে নকল বিধানসভা বসিয়ে প্রতিবাদ জানানো হবে।’

বাম পরিষদীয় নেতা সুজন চক্রবর্তীও সরকারের এই আচরণের তীব্র সমালোচনা করেছেন। লোকসভা ভোট পরবর্তী সময়ে রাজ্য যেখানে একের পর এক হিংসার ঘটনা ঘটছে সেখানে স্বরাষ্ট্র দফতরের বাজেট বিধানসভায় আলোচনা না হওয়া দুর্ভাগ্যজনক বলে তাঁর দাবি। প্রথামাফিক বিধানসভা অধিবেশন শেষ দিনে আলোচনা না হওয়া সব দফতরের বাজেট প্রস্তাব গিলোটিনে পাঠানো হয়। এদিন বিধানসভার কার্য উপদেষ্টা কমিটির বৈঠকে গৃহীত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বিধানসভার চলতি অধিবেশন চলবে আগামী বৃহস্পতিবার পর্যন্ত। কাজেই ওইদিনই গিলোটিন প্রক্রিয়া অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা।

তবে অধিকাংশ দফতরের বাজেট আলোচনা ছাড়া পাস হলেও বেশকিছু দফতরের বাজেট বরাদ্দ নিয়ে চলতি অধিবেশনের আলোচনা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে স্বাস্থ্য,খাদ্য ,পর্যটন ,পঞ্চায়েত, বিদ্যুৎ ,পরিবহন , নারী ও শিশু কল্যাণ এর মত দপ্তর। এছাড়া কৃষি, শ্রম ও পূর্ত দফতরের বাজেট নিয়ে আলোচনা হবে আগামী দিনে।