জোরপূর্বক হিন্দু নাবালিকাকে বিয়ে, মুসলিম যুবকের বিরুদ্ধে কড়া নির্দেশ পাক আদালতের

28
international news

মহানগর ওয়েবডেস্ক: গলা ফাটিয়ে ইমরান খান যতই বলুক না কেন, তার দেশে সংখ্যালঘু হিন্দুরা সুরক্ষিত। তবে নিয়মের বেড়া টপকে যেটুকু তথ্য সামনে আসে তা তুলে ধরে অন্যকথা। পাকিস্তানের মাটিতে সংখ্যালঘু নির্যাতন, ধর্ষণ, জোর করে ধর্ম পরিবর্তন করে হিন্দু মহিলাকে বিয়ে এই চিত্র উঠে প্রায়ই। সেখানেই এবার অন্য ছবি ধরা দিল পাক আদালতে। জোরপূর্বক এক নাবালিকা হিন্দু মেয়েকে পাক যুবক বিয়ে করায় সেই বিয়ে বাতিল করল পাকিস্তানের আদালত। পাশাপাশি পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হল ওই যুবকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য।

ঘটনা পাকিস্তানের সিন্ধ প্রদেশের। সেখানে এক হিন্দু নাবালিকার পরিবার অভিযোগ দায়ের করে তাদের মেয়েকে গত ১৫ জানুয়ারি জোকাবোবাদ থেকে অপহরণ করে জোর করে বিয়ে দেওয়া হয়। ওই নাবালিকার বয়স মাত্র ১৫। এবং সে নবম শ্রেণীর ছাত্রী। আদালতে এই মামলা উঠতেই স্পষ্ট ভাবে সমস্ত প্রমাণ পরীক্ষা করে বিচারপতি জানিয়ে দেন ওই ছাত্রী কোনওভাবেই বিয়ের উপযুক্ত নয়। যদিও অভিযুক্ত ওই মুসলিম যুবক আলি রাজার দাবি ছিল, ওই নাবালিকা কোনও রকম জোর ছাড়াই ইসলাম ধর্ম কবুল করে এবং বিয়েতে রাজি হয়। তবে মেয়েটির পরিবার সেই দাবি নাচক করে। এরপরই ওই যুবকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নিদেস দেয় আদালত।

উল্লেখ্য, পাকিস্তানে হিন্দু ও শিখ সংখ্যালঘু হওয়ার জেরে সেখানে ওই সমস্ত পরিবারের মেয়েদের তুলে নিয়ে গিয়ে ধর্ম পরিবর্তন ও বিয়ে অত্যন্ত সাধারণ ঘটনা। পাশাপাশি, পাকিস্তানের আদালতে এই ধরনের মামলা ও হিন্দুদের পক্ষে রায়ও বেনজির। তবে পাক আদালতের এই রায়ে খুশি ওই হিন্দু পরিবার.