Agnipath: ছাত্রদের মগজে রোজ ঢোকানো হতো বিষ, দেখানো হতো আত্মহত্যার ভিডিও

98
ছাত্রদের মগজে রোজ ঢোকানো হতো বিষ, দেখানো হতো আত্মহত্যার ভিডিও

মহানগর ডেস্ক: কেন্দ্রের অগ্নিপথ প্রকল্প নিয়ে বর্তমানে আগুন জ্বলছে দেশে। বর্তমানে বিহারের পরিস্থিতি অন্যান্য জায়গা থেকে আরও বেশি খারাপ হয়ে ওঠে। এই বিক্ষোভের অংশগ্রহণকারী কোচিং সেন্টারগুলোর একটি বড় ভূমিকা রয়েছে বলে জানা গিয়েছে। বিহারে এখনও পর্যন্ত ১৫ টি ট্রেনে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে। অগ্নিসংযোগ, হামলা, লুটপাট ইত্যাদি বর্তমানে নিত্যনৈমিত্তিক কাজ হয়ে দাঁড়িয়েছে বিহারে। কিন্তু দুঃখের বিষয় এই ঘটনায় জড়িত তরুণ প্রজন্ম।

তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পেরেছে, এই ধরনের অগ্নিসংযোগের ঘটনায় বেশ কিছু কোচিং ইনস্টিটিউটের নাম রয়েছে। এক্ষেত্রে বেশ কিছু তথ্য সামনে এসেছে। যেমন, আগামী দিনে তারা এর থেকেও বড় কোনও ঘটনার ষড়যন্ত্র করছে। সর্বভারতীয় এক সংবাদ মাধ্যম সূত্রে জানা গিয়েছে, দিল্লিতে বসেই অনেকেই বিহারে হিংসার পরিবেশ তৈরি করছে। এমনকি বিহারের কোচিং ইনস্টিটিউটগুলি তরুণ প্রজন্মকে হিংসার জন্য প্রস্তুত করছে। সত্যিই কি শিক্ষার জায়গায় হিংসাকে তুলে আনা উচিত? প্রশ্ন উঠছে এখানেই। এমনকি তরুণ প্রজন্মকে উস্কে দেওয়ার জন্য নানান ধরনের ভিডিও ব্যবহার করা হচ্ছে।

আরও পড়ুন: প্রত্যেক সেনা বিভাগে শুরু হচ্ছে ভর্তি প্রক্রিয়া, FIR থাকলে সুযোগ পাবেন না

এই প্রসঙ্গে বেশ কয়েকজন শিক্ষকের সঙ্গে কথা বলা হয়েছিল। তার মধ্যে একজন জানিয়েছিলেন, বিভিন্ন জায়গা থেকে এই সমস্ত কোচিং সেন্টারগুলিতে পড়ুয়ারা আসত। তাঁদের প্রশিক্ষণের শেষে পড়ুয়াদের আন্দোলনে নিয়ে যাওয়া হত। শিক্ষক আরও জানিয়েছেন, দিল্লি থেকে একটি নেটওয়ার্ক এখানে কাজ করে। যেখানে ৩-৪ লক্ষ শিক্ষার্থী যুক্ত রয়েছে। প্রতিনিয়ত পড়ুয়াদের মগজ ধোলাই করা হয়। প্রশিক্ষণের নামে তাঁদেরকে দেওয়া হচ্ছে উস্কানি।

বর্তমানে বিহারে যা চলছে তাতে শিক্ষার্থীদের আবেগকে উস্কে দেওয়া হচ্ছে, দাবি শিক্ষকদের। বিহার পুলিশ জানিয়েছে, প্রতিটি জেলার SP দের কোচিং সেন্টারগুলি ভূমিকা খতিয়ে দেখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। বিহারের বেশকিছু জেলায় দু দিনের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল ইন্টারনেট পরিষেবা। এমনকি শনিবার বিহারে বনধ ডাকা হয়েছিল। পাঁচটি কোচিং সেন্টারের অগ্নিসংযোগের অভিযোগ পর্যন্ত উঠেছে। হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাটের মাধ্যমে পড়ুয়াদের উস্কানি দেওয়ার কথাও জানা গিয়েছে, এক্ষেত্রে শুধু বিহার নয়, উত্তর ভারতের বেশকিছু রাজ্যে কোচিং সেন্টারগুলোতে প্রশিক্ষণের নামে উস্কানিমূলক আন্দোলন শেখানো হয়।

আরও পড়ুন: শুধু স্ত্রী নন, বিবাহ বিচ্ছিন্ন স্বামীরও সন্তানের ওপর সমান অধিকার রয়েছে,মত সুপ্রিম কোর্টের