Home Bengal ভাইরাল অডিয়ো ক্লিপে ৩০ শতাংশ কাটমনির অভিযোগ! মুখ খুললেন দেব, বিড়ম্বনায় তৃণমূল 

ভাইরাল অডিয়ো ক্লিপে ৩০ শতাংশ কাটমনির অভিযোগ! মুখ খুললেন দেব, বিড়ম্বনায় তৃণমূল 

by Mahanagar Desk
33 views

মহানগর ডেস্ক:   লোকসভা ভোটের মুখে যখন তৃণমূলনেত্রী ঘর গোছাতে জেলা সফর, সাংগঠনিক বৈঠক করছেন, বিজেপি, কংগ্রেস, সিপিএম-এর বিরুদ্ধে সোচ্চার হচ্ছেন, তখন একটি ভাইরাল অডিয়ো ক্লিপ ঘিরে অস্বস্তিতে পড়েছে তৃণমূল। ভাইরাল ওই অডিয়ো ক্লিপে এক ব্যক্তিকে বলতে শোনা গিয়েছে, “দেব আমার থেকে তাঁর এমপিল্যাড থেকে ৩০ শতাংশ কমিশন চাইছেন।” বিষয়টি ওই ব্যক্তি “দিদি”-কে জানিয়েছেন বলেও দাবি করছেন বক্তা। সঙ্গে তিনি এও বলেছেন, “দিদি জেনেও ওকে সাপোর্ট করেছেন, কারণ ওকে রাজনীতিতে প্রয়োজন।” রীতিমতো বিস্ফোরক এই ভাইরাল অডিয়ো তৃণমূলের অন্দরে ঝড় তুলেছে।

আর এসবের মধ্যেই ভাইরাল অডিয়ো ক্লিপ ঘিরে মুখ খুলেছেন ঘাটালের সাংসদ তথা অভিনেতা দেবও। তিনি এই জল্পনাকে আরও উস্কে তাঁর ফেসবুকে দেব লিখেছেন, “Few more Hours”, অর্থাৎ আর কিছু মুহূর্ত, কি জানা যাবে কয়েক মুহূর্ত পর? সেদিকেই তাকিয়ে রাজ্যবাসী। এদিকে দিল্লিতে দেবকে এই বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, “আমার উপর কিছু নির্ভর করে নেই। আমার যা করার, যা বলার, তা আমি দলকে বলে দিয়েছি। যে অডিয়ো ক্লিপটি বেরিয়েছে, সেই মতো দেখলে, দিদি আর ওর মধ্যে কিছু কথা হয়েছে। দিদিই উত্তরটা দেবেন। আমার কিছু বলার নেই।” অর্থাৎ, এই ভাইরাল অডিয়ো ক্লিপ ঘিরে যে বিতর্ক তৈরি হয়েছে, তা নিয়ে বিশেষ কোনও মন্তব্য করতে রাজি হননি ঘাটালের তৃণমূল সাংসদ। এদিকে এই ভাইরাল অডিয়োর কন্ঠস্বর প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক শঙ্কর দোলুইয়ের বলে দাবি করছে তৃণমূলেরই একটা অংশ। যদিও তা অস্বীকার করেছেন প্রাক্তন বিধায়ক। শঙ্কর দোলুই এই প্রসঙ্গে বলছেন, “এই বিষয়টি তাঁর অজানা। দেবের এমপিল্যাডও আমি দেখি না। কোথাও কোনও চক্রান্ত থাকতে পারে। এ নিয়ে আমার কোনও বক্তব্য নেই।” এদিকে এই বিতর্কের মধ্যেই বিজেপি বিধায়ক হিরণ চট্টোপাধ্যায় দেব সম্পর্কে বলেছেন, “ওনার নিজের দলের নেতা পর্যন্ত বলছেন, ওনার কাছে গেলে ৩০ শতাংশ না দিলে উনি কাজ করতে দেন না।” এই বিষয়ে ইতিমধ্যেই তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ বলেছেন, ‘‘দেবের ভাবমূর্তি নষ্ট করার চেষ্টা হচ্ছে। সেই কারণেই কেউ একটা এ রকম অডিয়ো ক্লিপ বানিয়ে বাইরে ছড়িয়ে দিয়েছে।’’

প্রসঙ্গত, পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় দলের একাংশের আগেই দাবি ছিল, প্রাক্তন বিধায়ক শঙ্কর দলুইয়ের সঙ্গে বিবাদের জেরেই এখন অত্যন্ত বীতশ্রদ্ধ হয়ে পড়েছেন ঘাটালের তৃণমূল সাংসদ দেব। সম্প্রতি ঘাটাল উৎসব ও শিশু মেলার কমিটি গঠন নিয়েও এই দুজনের মধ্যে বিতর্ক চরমে পৌঁছয়। দেবকে বাদ দিয়েই কমিটি চূড়ান্ত হয়ে যায়। তার পরে অবশ্য নীরব হয়ে যান দেবের অনুগামীরা। এই সব মিলিয়ে আর ভোটে না লড়ার সিদ্ধান্তও দেব নিতে চলেছেন বলে ঘনিষ্ঠ মহলে সাংসদ স্বয়ং জানান বলে তাঁর অনুগামীরা জানিয়েছেন। তবে সবই সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে, কেউ কিছু প্রকাশ্যে বলছেন না। তার ফলে ধোঁয়াশা আরও বাড়ছে দলের অন্দরে। এই পরিস্থিতিতে অডিয়ো ক্লিপের বিষয়টিতে শঙ্কর দলুই ও দেব দু’জনের নাম জড়িয়ে যাওয়ায় স্বাভাবিক ভাবেই অস্বস্তিতে পড়েছে শাসকদল তৃণমূল।

এই অডিয়ো ক্লিপ প্রসঙ্গে শঙ্কর দলুই খুব জোরের সঙ্গে জানিয়েছেন, অডিয়ো ক্লিপের ওই কণ্ঠস্বর তাঁর নয়। এ বিষয়ে তিনি কোনও ভাবে জড়িত নয় বলেও দাবি করেছেন। শঙ্করের বক্তব্য, ‘‘ওই অডিয়ো সম্পর্কে আমি কিছু জানি না।’’ অন্য দিকে, সাংসদ দেবের প্রতিনিধি রামপদ মান্না বলেন, ‘‘শুনেছি একটি অডিয়ো, যা ভাইরাল হয়েছে। বিষয়টি দলকে জানানো হয়েছে।’’ তৃণমূলের ঘাটাল সাংগঠনিক জেলা সভাপতি আশিস হুদাইত এই প্রসঙ্গে বলেন, “দেব স্বচ্ছ মানুষ, তাঁকে কালিমালিপ্ত করতেই এটা বিজেপির চক্রান্ত।” তবে বেশ কয়েক বছর আগেই দেব একটি সংবাদ মাধ্যমের সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন, ২০২৪-এর লোকসভা নির্বাচনে তিনি আর লড়তে চান না। তাঁর প্রার্থী হওয়া নিয়েও জল্পনা ছিল দলের ভিতরে ও বাইরে। এই জল্পনার অবসান হয় গত জানুয়ারি মাসে কালীঘাটে দলনেত্রীর সঙ্গে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা তৃণমূল নেতৃত্বের বৈঠকে। ২০২৪-এর লোকসভা নির্বাচনেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘাটাল থেকে দেবকেই আবারও প্রার্থী করতে চান। জানুয়ারির ওই জেলা সাংগঠনিক বৈঠকে মমতা বলেছিলেন, “দেব আমাদের দলের সম্পদ। বেশ কিছু নেতা তার সঙ্গে এমন আচরণ করেছে, যার ফলে ওর অসুবিধা হচ্ছে। এমনটা কেন হবে? ও শিল্পী মানুষ। এটা তোমরা কী করছো?” দলনেত্রীর নির্দেশ থাকলে তিনিও যে ভোটে লড়তে প্রস্তুত, অভিনেতা-সাংসদও সেই ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। তবে তার পরেই দেব তিনটি সরকারি কমিটি থেকে আচমকা ইস্তফা দেওয়া এবং তারপর এই অডিয়ো ক্লিপ প্রকাশ্যে আসায় পরিস্থিতি জটিল হয়েছে।

You may also like

Mahanagar bengali news

Copyright (C) Mahanagar24X7 2024 All Rights Reserved