WCQ: বিশ্বকাপ বাছাইয়ে মাঠে নামছে জার্মানি, স্পেন, আয়ারল্যান্ডের সামনে রোনাল্ডোর পর্তুগাল

11
অনুশীলনের ফাঁকে সতীর্থ পেপের সঙ্গে ফরোশ্যুট ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর।

মহানগর ডেস্ক: ক্লাবের কর্তব্যে আপাতত বিরতি। এখন দেশের জার্সি গায়ে নামার পালা। তাই ম্যাঞ্চেস্টার থেকে সরাসরি আয়ারল্যান্ড উড়ে গিয়ে দলের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো। বৃহস্পতিবারই গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে আইরিশদের মুখোমুখি হবে তাঁর দেশ পর্তুগাল।

বিশ্বকাপ বাছাইয়ে এখনও মূল পর্বের টিকিট নিশ্চিত হয়নি ফার্নান্দো স্যান্তোসের শিষ্যদের। তবে তা নিয়ে খুব বেশি চিন্তায় নেই পর্তুগিজ শিবির। গ্রুপ এ-তে এই মুহূর্তে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে তাঁরা। ছয় ম্যাচে পর্তুগালের পয়েন্ট ১৬। শীর্ষে থাকা সার্বিয়া এক পয়েন্টে এগিয়ে রয়েছে রোনাল্ডোদের থেকে। তবে তারা একটি ম্যাচ বেশি খেলেছে। যদিও এই দুই দলই এবারের বাছাইপর্বে এখনও পর্যন্ত অপরাজিত তকমা ধরে রেখেছে।

আয়ারল্যান্ড সামনে হাতছানি রয়েছে দীর্ঘ ১৬ বছরের ইতিহাসকে চাঙ্গা করার। ২০০৫ সালে শেষবার পর্তুগালের বিরুদ্ধে জয়ের মুখ দেখেছিল তারা। এবার বাছাইপর্বের শুরুটা খারাপ করলেও, পরবর্তীতে ঘুরে দাঁড়িয়েছে তারা। শেষ তিন ম্যাচে হারের মুখ দেখেনি আইরিশরা। শেষ ম্যাচে তো আবার জিতে এই মুহূর্তে আত্মবিশ্বাসের তুঙ্গে রয়েছে তারা। তার ওপর ঘরের মাঠে খেলার অ্যাডভান্টেজ তো রয়েইছে। ফলে পুরো পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়া যে পর্তুগালের পক্ষে মোটেও সহজ হবে না, তা অনুমেয়।

যে দলে সিআর সেভেন রয়েছেন, সেই দল তো স্বপ্ন দেখতেই পারে। তাই আয়ারল্যান্ডকে হারাতে বদ্ধপরিকর রোনাল্ডোরা। বাছাইপর্বে শেষ চার ম্যাচ জিতেছে তারা। গ্রুপ পর্বে বাকি দুই ম্যাচ জিততে পারলেই সরাসরি কোয়ালিফাই করবে পর্তুগাল। সেক্ষেত্রে সার্বিয়াকে খেলতে হবে প্লেঅফ। আর সেই সুযোগ যে কোনও মতেই হাতছাড়া করতে চায় না পর্তুগাল, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না।

এদিন ইউরোপিয়ান অঞ্চলের ওপর ম্যাচে মাঠে নামবে স্পেন, জার্মানি, ক্রোয়েশিয়ার মতো হেভিওয়েট দলগুলি। গ্রুপ বি-তে স্পেন মুখোমুখি হবে গ্রিসের। ৬ ম্যাচে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে স্প্যানিশ আর্মাডা। সমান ম্যাচে ১৫ পয়েন্ট পেয়ে শীর্ষে সুইডেন। ৮ ম্যাচে ১৭ পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ এইচ-এর দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ক্রোয়েশিয়া। এদিন ক্রোটরা মুখোমুখি হবেন মাল্টার।

বৃহস্পতিবার মাঠে নামছে জার্মানিও। তাদের প্রতিপক্ষ লিখেনস্টেইন। তারা আবার গ্রুপের লাস্ট বয়। গ্রুপ জি-র শীর্ষে থেকে ইতিমধ্যেই বিশ্বকাপের ছাড়পত্র পেয়ে গিয়েছেন জার্মানরা। ৮ ম্যাচে ২১ পয়েন্ট পাওয়া জার্মানির কাছে তাই এই ম্যাচটি স্রেফ নিয়মরক্ষার।