ভারত গুপ্তচর হিসাবে মানলেই কুলভূষণকে মুক্তি দেবে পাকিস্তান

139
kolkata bengali news

মহানগর ওয়েবেডেস্ক: বার বার জঙ্গিবাদ নিয়ে আন্তর্জাতিক মহলে ভারত বার বার বিদ্ধ করেছে পাকিস্তানকে৷ ইমরানের দেশ সন্ত্রাসবাদের আঁতুরঘর৷ ইসলামাবাদের ওপর এই চাপ আছে৷ এতটাই যে তারা জৈশ চাঁই হাফিজ সৈয়দকে গ্রেফতার করতে বাধ্য হয়েছে৷ আন্তর্জাতিক আদালতে কুলভূষণের মৃত্যুদণ্ড নিয়ে পাকিস্তানের মুখ কালো হয়েছে৷ তারপর সেই কুলভূষণকে নিয়ে বৃহস্পতিবার থেকেই রাজনীতি শুরু করল পাকিস্তান৷ ইসলামাবাদ এই প্রাক্তন নৌআধিকারিককে নিয়ে পড়শি ভারতের সঙ্গে রীতিমতো দরাদরি শুরু করল নয়াদিল্লির সঙ্গে৷ ইমরান প্রশাসনের সাফ কথা, নিজেদের গুপ্তচর হিসাবে কুলভূষণ যাদবকে প্রকাশ্যে মেনে নিতে হবে ভারতকে৷ এর পাশপাশি মোদী প্রশসানকে স্বীকার করতে হবে পাকিস্তানে সন্ত্রাস ছড়াতে গিয়ে ছিলেন তিনি৷ এই শর্তগুলি মানলে কুলভূষণকে মুক্তি দেবে পাকিস্তান৷ উল্লেখ্য ২০১৭ সালের ৬ এপ্রিল নেপালের লুম্বিনি থেকে রহস্যজনকভাবে উধাও হয়ে গেছেন পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই-এর প্রাক্তন আধিকারিক৷ পাকিস্তানের অভিযোগ ভারতীয় গোয়েন্দার তাঁকে অপহরণ করেছে৷ আজ পর্যন্ত এই অভিযোগ মানেনি ভারত৷

কুলভূষণ যাদব অপরাধী৷ পাকিস্তানে সন্ত্রাস ছডা়তে গিয়ে ধরা পড়েন৷ এখানেই বার বার তীব্র আপত্তি জানিয়েছে মোদী সরকার৷ হল্যান্ডের হেগ-এ আন্তর্জাতিক আদালতে ভারতের পক্ষে আইনজীবি হরিশ সালভে দ্ব্যর্থহীল ভাষায় বলেছেন কুলভূষণ কোনওভাবেই ভারতীয় চর নন৷ তাঁকে পাক জঙ্গিরা ধরে পাকিস্তানের হাতে তুলে দিয়েছে৷ তিনি ব্যবসায়ী৷ সেইসঙ্গে তাঁর মুক্তির দাবি তুলেছে ভারত৷ নয়াদিল্লির আরও অভিযোগ ভিয়েনা চুক্তি মানেনি পাকিস্তান৷

সরবজিতকে পাক জেলে মেরে ফেলা হয়েছিল৷ কুলভূষণের পরিণতি কি তাই হবে? আন্তর্জাতিক আদালতের বুধবারের রায়ের পরে প্রশ্ন উঠছে পাকিস্তান কুলভূষণকে নিয়ে কী করবে? এখনও পর্যন্ত যা পরিস্থিতি তাঁকে নিয়ে ভারত তথা আন্তর্জাতিক মহলে দরাদরি করেব ইমরান প্রশাসন৷ সেইসহ্গে পাকিস্তান কুলভূষণকে গুপ্তচর প্রমাণ করতে মরীয়া৷ এতটাই যে ভারত যদি মেনে নেয় কুলভূষণ তাদের গুপ্তচর তাহলে পাকিস্তান অন্তত আন্তর্জাতিক জগতে কিছুটা মুখ রক্ষা করতে হবে৷ ভারতের এই স্বীকারোক্তির জন্য তারা কুলভূষণকে মুক্তি দিতেও প্রস্তুত৷ অন্যদিকে এই বিষয়ে তৃতীয় পক্ষের সাহায্য চায় পাকিস্তান৷