‘সমাজবাদী পার্টি একটি বুটলিকারদের দল’, নির্বাচনের আগে বিজেপিতে যোগদান করেই মন্তব্য সপা বিধায়কের

25

মহানগর ডেস্ক: আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের আগেই এক বড় ধাক্কা কংগ্রেস এবং সমাজবাদী পার্টির জন্য। নির্বাচনের আগেই দল থেকে বেরিয়ে অন্য দলে যোগদানের হিড়িক উঠেছে ফের। কখনও ভারতীয় জনতা পার্টি তথা বিজেপি দল ছাড়ছেন বিধায়করা। আবার কখনও অন্য দল থেকে বেরিয়ে এসে বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন নেতারা। এদিন ২ বর্তমান বিধায়ক এবং ১ জন প্রাক্তন বিধায়ক যোগ দিলেন বিজেপিতে।

এদিন বেহাতের (সাহারানপুর) কংগ্রেস বিধায়ক নরেশ সাইনি এবং সিরসাগঞ্জের (ফিরোজাবাদ) প্রতিনিধিত্ব করেন হরি ওম যাদব ও প্রাক্তন এসপি বিধায়ক ডক্টর ধর্মপাল সিং উত্তরপ্রদেশের সিনিয়র বিজেপি নেতাদের উপস্থিতিতে যোগদান করলেন দলে।

অন্যদিকে দু’দিন আগেই শ্রম মন্ত্রী এবং বিজেপির ওবিসি মুখ স্বামী প্রসাদ মৌর্য যোগী আদিত্যনাথের সরকার থেকে পদত্যাগ করেছেন এবং ১৪ জানুয়ারি সমাজবাদী পার্টিতে যোগদান করার কথা ঘোষণা করেছেন। তিনি বলেছিলেন, ‘দলিত, অনগ্রসর শ্রেণী, কৃষক, যুবক এবং ব্যবসায়ীদের প্রতি সরকারের যে মনোভাব রয়েছে তার দিকে খেয়াল রেখে যোগী মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করেছেন তিনি। এই নিয়ে রাজ্যপালের কাছে চিঠি ও জমা দিয়েছেন’।

এরইসঙ্গে শ্রম মন্ত্রীর অভিযোগের উত্তরে ইউপি মন্ত্রী এবং সরকারের মুখপাত্র সিদ্ধার্থ নাথ সিং বলেছেন যে, ‘পাঁচ বছর ধরে মন্ত্রীত্বের আসনে থাকাকালীন তাঁর পিছিয়ে পরা জাতি, দলিত ও যুবকদের স্বার্থের কথা মনে পরেনি। যারা কাজ করেনি এবং শেষ মুহূর্তে কিছু ঘটবে বলে আশা করেছিল এবং যাদের সন্দেহ ছিল টিকিট পাবেন কিনা তারাই দল ছাড়ছেন’।

পাশাপাশি আইএএনএসকে বিজেপির তরফ থেকে জানানো হয়েছে যে, শ্রম মন্ত্রী নিজের ছেলে উৎকর্ষ মৌর্যের জন্য টিকিট চেয়েছিলেন। তাঁর মেয়ে ইতিমধ্যেই বাদাউনের সাংসদ। ওবিসি সম্প্রদায়ের একজন বিশিষ্ট নেতা স্বামী প্রসাদ মৌর্য। ২০১৬ সালে বহুজন সমাজবাদী পার্টি থেকে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। তার মধ্যে তিনি একজন। এমনকি বিজেপি বিধায়ক বিনায়ক শাক্য বলেছেন, তিনি মৌর্যের সঙ্গে যাবেন। উত্তরপ্রদেশের বিধানসভা নির্বাচন ৭টি ধাপে অনুষ্ঠিত হবে। ১০, ১৪, ২০, ২৩, ২৭ এবং ৩ ও ৭ মার্চ হবে ভোট গ্রহণের প্রক্রিয়া। ভোট গণনা হবে ১০ মার্চ।

এইসঙ্গে এদিন বিজেপিতে যোগদানের সময় হরিওম যাদব বলেন, সমাজবাদী পার্টি আর মুলায়ম সিং যাদবের নয়। এটি একটি ‘বুটলিকারদের’ দল যারা অখিলেশ যাদবকে ঘিরে রেখেছে এবং তাঁকে দুর্বল করতে চায়। তাঁর অভিযোগ রামগোপাল যাদব এবং তাঁর ছেলে পার্টিতে চান না তাঁকে। তারা মনে করেন তাঁদের অস্তিত্বের জন্য হুমকি তিনি। এই নিয়ে তিনবার বিধায়ক হয়েছেন হরিওম যাদব।

গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে দল বিরোধী কার্যকলাপের জন্য তাঁকে বহিষ্কার করা হয়। যার পর সমাজবাদী পার্টির সঙ্গে বিরোধ বাড়তে থাকে। বুধবার দিল্লিতে তিনি বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন সঙ্গে ছিলেন দুজন ইউপি উপমুখ্যমন্ত্রী এবং রাজ্যের প্রধান স্বতন্ত্র দেব সিং-এর সঙ্গে। আবার প্রাক্তন ইউপি মন্ত্রী দারা সিং চৌহান আগামী মাসের নির্বাচনের আগেই বিজেপি দল ছেড়ে দিয়েছেন।

এই ভাবেই জারি রয়েছে একদল থেকে অন্য দলে যাওয়ার ঘটনাপ্রবাহ। সমাজবাদী পার্টি থেকে কখনও দল ছাড়ছেন বিধায়করা, আবার কখনও বিজেপি থেকে দল ছাড়ছেন নেতারা। এদিন শ্রম মন্ত্রী স্বামী প্রসাদ মৌর্য জানিয়েছেন, বিজেপিতে একটি ভূমিকম্প আসতে চলেছে।