হৃদযন্ত্রে সমস্যা, আলবিদায় ফুটবলকে, বিদায়বেলায় কান্নায় ভেঙে পড়লেন অ্যাগুয়েরো

11

মহানগর ডেস্ক: কেরিয়ারটা হয়তো এভাবে শেষ করতে চাননি। যা ফর্ম ছিল তাতে আরও কয়েকটি বছর দাপটে খেলতে পারতেন। কিন্তু হৃদযন্ত্রের সমস্যায় ফুটবলটাকে চিরতরে বিদায় জানাতে বাধ্য হলেন ৩৩ বছর বয়সী আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড সার্জিও অ্যাগুয়েরো।

বার্সেলোনার ন্যু ক্যাম্পে বিদায়বেলায় সংবাদ সম্মেলন করতে গিয়ে চোখের জল ধরে রাখতে পারেননি ফুটবল ইতিহাসের অন্যতম সেরা এই স্ট্রাইকার। কান্নায় ভেঙে পড়লেন তিনি। সমস্যাটি ধরা পড়ে গত ৩০ অক্টোবর। লা লিগায় আলাভেসের বিপক্ষে বার্সেলোনার ১-১ গোলে ড্র হওয়া ম্যাচের প্রথমার্ধেই বুকে তীব্র ব্যথা এবং শ্বাসকষ্ট নিয়ে মাঠ ছাড়েন অ্যাগুয়েরো। তার আগে অবশ্য মাঠের মধ্যেই লুটিয়ে পড়েছিলেন তিনি। মিনিটখানেক পর উঠে দাঁড়ালে দ্রুত হাসপাতালে পাঠানো হয় আর্জেন্টাইন তারকাকে। পরীক্ষার পর ধরা পড়ে কার্ডিয়াক এরিথমিয়া (অনিয়মিত হার্টবিট)।

বুধবার বিদায়ী সংবাদ সম্মেলন করতে ন্যু ক্যাম্পে হাজির হয়েছিলেন অ্যাগুয়েরো। সঙ্গে ছিলেন বার্সা সভাপতি হুয়ান লাপোর্তা। কান্নাবিজড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, ‌‘আমি পেশাদার ফুটবলকে বিদায় বলার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। এটা খুবই কঠিন একটা মুহূর্ত। কিন্তু স্বাস্থ্যের কারণেই এই সিদ্ধান্তটা আমাকে নিতে হল।’ অ্যাগুয়েরোর আশা ছিল মাঠে ফিরতে পারবেন, কিন্তু চিকিৎসকরা তাকে নিষেধ করেছেন। ম্যানচেস্টার সিটির কিংবদন্তি হিসেবে ক্যারিয়ার উজ্জ্বল করা আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার বলেন, ‘দেড় মাস আগে যে সমস্যাটা হয়েছে, সেটাই আমার সিদ্ধান্তের পেছনে মূল কারণ। মেডিকেল স্টাফরা আমার সেবা করেছেন তাদের সর্বোচ্চটা দিয়ে। কিন্তু বলেছেন, ভালো হবে যদি আমি খেলাটা বন্ধ করি।’

এটুকু বলতে বলতেই আবারও কান্নায় ভেঙে পড়েন আগুয়েরো। বলেন, ‘আমি সপ্তাহখানেক আগেই এই সিদ্ধান্তটা নিয়েছি। আমি সবাইকে বলতে চেয়েছিলাম, আশা করেছিলাম। কিন্তু আসলে বলার মতো খুব বেশি আশা ছিল না।’ ২০১১ থেকে প্রায় ১০ বছর ম্যানচেস্টার সিটিতে খেলেছেন আগুয়েরো। ২৭৫ ম্যাচে করেছেন ১৮৫ গোল। ক্লাবটির কিংবদন্তি স্ট্রাইকার মনে করা হয় তাকে। গত মৌসুমে ফ্রি ট্রান্সফারে বার্সেলোনায় চলে আসেন আগুয়েরো। কিন্তু এখানে সব প্রতিযোগিতা মিলিয়ে মাত্র পাঁচটি ম্যাচ খেলতে পেরেছেন।