Shantiniketan: শান্তিনিকেতনের শোভা শামুখখোল পাখি, বসবাসের ধরণ পরিযায়ী পাখির ন্যায়

86

নিজস্ব প্রতিনিধি, বীরভূম: প্রতি বছরের মত প্রজননের জন্য শান্তিনিকেতনের (Shantiniketan) ইসলামপুর গ্রামের গাছে গাছে বাসা বেঁধে শোভা বাড়িয়েছে বৃহদাকারের শামুখখোল পাখির দল৷ বর্ষা হল এদের প্রজননের সময়। তার আগে কোপাই নদীর তীরে এই গ্রামে চলে আসে পরিযায়ী এই পাখির দল৷ এই সঞ্চলকে তাঁদের কলোনি বলা চলে৷ গ্রামের বেশির ভাগ বড় গাছের মাথায় ঝাঁক হয়ে বসে বাসা তৈরি করে তাঁরা৷ প্রজনন শেষে ফের চলে যায় নিজের জায়গায়। গ্রামের মানুষজনও এই পাখির দলকে খুব ভালো বাসে। এদের রীতিমতো রক্ষা করেন তাঁরা৷

আরও পড়ুন: ‘জিন্দেগি এক সফর হ্যায় সুহানা’, নাতিকে নিয়ে বন্ধু অর্জুনের সঙ্গে খোশমেজাজে মদন

এশীয় শামুকখোল পাখি ভারত, বাংলাদেশ, সহ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন দেশে দেখা যায়৷ বিগত কয়েক বছরে এদের সংখ্যা কিছুটা হ্রাস পাচ্ছে৷ তাই আই ইউ সি এন (International Union for Conservation of Nature) এই প্রজাতিটিকে নূন্যতম বিপদগ্রস্ত বলে উল্লেখ করেছেন৷

মূলত ১০ থেকে ১৫ দিন বাসা বাঁধতে এদের সময় লাগে। তাঁরা এক একটি বাসায় ৩ থেকে ৫ টি পর্যন্ত ডিম পারে৷ বাচ্চা বড় হয়ে উড়তে শিখে গেলে এঁরা বাসা ছেড়ে চলে যায়৷ এই সম্পূর্ণ প্রক্রিয়ার সময় লাগে কমপক্ষে ৩ থেকে ৪ মাস৷ এই কয়েক মাসে কোপাই নদীর তীরে ইসলামপুর গ্রাম পাখির ডাকে বিভোর হয়ে ওঠে৷