UEFA Champions League: অপ্রত্যাশিত হার রিয়ালের, গোল করে রেকর্ড গড়লেন বেনজিমা

7
গোলের পর বেনজিমাকে অভিনন্দন ভিনিসিয়াস জুনিয়রের।

মহানগর ডেস্ক: অভিষেক লগ্নেই একের পর এক চমক দেখাচ্ছে মলদোভার ক্লাব শেরিফ। প্রথমবার উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগ খেলতে এসেই নিজেদের প্রথম ম্যাচে শাখতার দোনেৎস্ককে হারিয়েছিল তারা। এবার দ্বিতীয় ম্যাচে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ইতিহাসে সফলতম ক্লাব রিয়াল মাদ্রিদকেও পরাস্ত করল তারা।

মঙ্গলবার রাতে রিয়ালের মাঠে খেলতে এসে ২-১ গোলের অসাধারণ এক জয় নিয়েই ফিরেছে মলদোভার ক্লাবটি। জয়সূচক দ্বিতীয় গোলটি ছিল সপ্তাহসেরার পুরস্কার পাওয়ার যোগ্য দাবিদার। এখন দুই ম্যাচে দুই জয় নিয়ে ডি গ্রুপের পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে শেরিফ।

নিজেদের ঘরের মাঠে ম্যাচটিতে শুধুমাত্র জয়টাই পায়নি রিয়াল। এছাড়া পুরো ম্যাচে ৭৫ শতাংশ সময় বলের দখল ছিল গ্যালাকটিকোদের। পুরো ম্যাচে অন্তত ৩১টি শট করে তারা। যার মধ্যে ১১টি ছিল লক্ষ্যে। কিন্তু পেনাল্টি ছাড়া আর কোনও গোলই পাননি কার্লো আনচেলত্তির শিষ্যরা।

ম্যাচের ২৫ মিনিটে প্রতি আক্রমণ থেকে লিড নেয় শেরিফ। মাঝমাঠ থেকে পাওয়া বল ধরে সামনে এগিয়ে যান ডিফেন্ডার ক্রিশ্চিয়ানো। জায়গা করে ফাঁকায় চমৎকার ক্রস বাড়ান তিনি। সহজ হেডে বল জালে জড়ান ইয়াসুরবেক ইয়াখশিবোয়েভ। আক্রমণের মোহে ব্যস্ত থাকা রিয়াল খেলোয়াড়রা যেন ভুলেই গিয়েছিলেন রক্ষণের কথা। তাই তো গোলটি করার সময় ক্রিশ্চিয়ানো এবং ইয়াসুরবেক ছিলেন পুরোপুরি অরক্ষিত। ম্যাচের প্রথমার্ধে আর এই গোল শোধ করতে পারেনি রিয়াল।

দ্বিতীয়ার্ধে ফিরে ম্যাচের ৬৫ মিনিটের মাথায় পেনাল্টি থেকে দলকে সমতায় ফেরান করিম বেনজিমা। ডি-বক্সের মধ্যে ভিনিসিয়াস জুনিয়রকে ফাউল করেছিলেন তাঁরই স্বদেশীয় ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার ফার্নান্দো। ভিএআর দেখে পেনাল্টি দেন রেফারি। সেখান থেকে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে নিজের ৭২তম গোলটি করেন বেনজিমা। পাশাপাশি এই নিয়ে টানা ১৭ মরশুম চ্যাম্পিয়ন্স লিগে গোল করার কৃতিত্ব দেখালেন তিনি। এই তালিকায় বেনজিমা এবং মেসিই রয়েছেন সবার ওপরে। ১৬ মরশুম গোল করে দ্বিতীয় স্থানে ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো।

ম্যাচে সমতায় ফিরলেও জয়সূচক গোল আর পায়নি রিয়াল। একের পর এক আক্রমণ ব্যর্থ হতে থাকে তাদের। কিন্তু কাজের কাজটি করে শেরিফই। ম্যাচের ৮৯ মিনিটের মাথায় থ্রো থেকে পাওয়া বল সেবাস্তিয়েন থিলকে এগিয়ে দেন অ্যাডাম ট্রাওরে। বুলেট গতির শটে বাকি কাজ সারেন থিল। এই জয়ের ফলে দুই ম্যাচে পুরো ৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে শেরিফ। সমান ম্যাচে তিন পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরে রিয়াল। একটি করে পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপের অন্য দুই দল ইন্টার মিলান ও শাখতার রয়েছে তিনে ও চারে।