‘নির্বাচনের আগেই কলকাতায় বহিরাগতদের অনুপ্রবেশ ঘটছে, হাইকোর্ট বিষয়টি নজরে রাখুক’, দাবি শুভেন্দু অধিকারীর

9
Suvendu Adhikari
ভোটের আগেই কলকাতায় বহিরাগতদের অনুপ্রবেশ ঘটছে, দাবি শুভেন্দু অধিকারীর।

মহানগর ডেস্ক: হাতে মাত্র আর চারদিন বাকি। তারপরেই রয়েছে কলকাতার ১৪৪ টি ওয়ার্ডে পুরভোট। কিন্তু এই পুরভোটকে নিয়ে নানান ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়েছে রাজ্য সরকারকে। বারংবার রাজ্যের বিরোধীদল অভিযোগ তুলেছে নানান। তার মধ্যে বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী সম্প্রতি জানিয়েছিলেন, বাইরে থেকে লোক এনে নকল আধার কার্ড দিয়ে কলকাতায় রাখা হচ্ছে। এবার আরও একবার রাজ্য সরকারকে কটাক্ষ করলেন তিনি। তিনি জানিয়েছেন, বহিরাগতদের অনুপ্রবেশ ঘটছে। হাইকোর্ট বিষয়টি নজরে রাখুক। বিরোধী দলনেতা দাবি করেছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারে রোহিঙ্গারা উড়ছে। যেখান থেকে পারছে এখানে এসে ঢুকছে। বিশেষ করে সুন্দরবনের দিকগুলোতে আটকানো যাচ্ছে না। অনুপ্রবেশ ওখানে সর্বত্র। বিএসএফের চৌকি নেই। আব্দুল মান্নান, লালটু সেখের মত এমন ২০ জনকে গ্রেপ্তার করেছে এনআইএ। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের পুলিশ কিছুই করছে না। তারা নীরব দর্শক। বিরোধী দলনেতার পেছনে পড়ে রয়েছে তারা।

একইসঙ্গে তিনি আরও জানিয়েছেন, হাইকোর্টের নির্দেশকে স্বাগত। কিন্তু কোনও রাজনৈতিক দল হাইকোর্টের শরণাপন্ন হয়ে ভোটে জিততে পারে না। হাইকোর্টের দেখা উচিত বাংলাদেশের ভুয়ো ভোটার এসে যেন বোতাম টিপে দিয়ে না যায়। বিরোধী শিবির যেন এজেন্ট রাখতে পারেন। তৃণমূল নেতারা যেন পাশে দাঁড়িয়ে ছাপ্পা ভোট না দিতে পারে। দরজায় কড়া নাড়ছে কলকাতা পুরভোট। আর এই নির্বাচন নিয়ে যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী শাসক দল। কিন্তু তারপরেও প্রার্থীদের উদ্দেশ্যে কড়া বার্তা দেওয়া হয়েছে শীর্ষ নেতৃত্বের তরফে। জানানো হয়েছে কোনও ভাবেই যেন দলের ভাবমূর্তি নষ্ট না হয়।

তৃণমূল সুপ্রিমো নির্দেশ দিয়েছেন, কলকাতার আশেপাশে যাঁরা থাকেন, তাঁরা এসে শুধুমাত্র প্রচার করতে পারবেন। কিন্তু তার থেকে বেশি কিছু নয়। নির্বাচনের সময় বাইরের কোনও ব্যক্তি যেন কলকাতায় উপস্থিত না থাকে। কিন্তু শাসকদলের এই কড়া বার্তায় সন্তুষ্ট নয় বঙ্গ বিজেপি।