‘ভোটব্যাঙ্ক চলে যাবে তাই মমতা চুপ’, বাংলাদেশের ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রীর মৌনতা নিয়ে কটাক্ষ শুভেন্দুর

35
'ভোটব্যাঙ্ক চলে যাবে তাই মমতা চুপ', বাংলাদেশের ঘটনায় মুখ্যমন্ত্রীর মৌনতা নিয়ে কটাক্ষ শুভেন্দুর

মহানগর ডেস্ক: শারদীয়ার আবহে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বানচাল হয়েছে ওপার বাংলায়। কুমিল্লার নানুয়ারদিঘী এলাকার একটি পুজো মণ্ডপে প্রতিমার হাঁটুর কাছে রাখা ছিল মুসলমানদের ধর্মগ্রন্থ কোরান শরিফ। এই খবর চাউর হতেই ব্যবস্থা নেয় পুলিশ। সরিয়ে দেওয়া হয় ধর্মগ্রন্থটি। তবে সামাজিক মাধ্যমের সৌজন্যে দ্রুত খবরটি ছড়িয়ে পড়ে। শুরু হয় তীব্র প্রতিবাদ। সাম্প্রদায়িক বিষোদগার চলে সোশ্যাল মিডিয়ায়। তারপরেই বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে শুরু হয় দুর্গা মণ্ডপের উপর আক্রমণ। ভেঙে দেওয়া হয় মা দুর্গার মূর্তি এবং পুজো প্যান্ডেলগুলি। সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতি বজায় রাখতে অনুরোধ করা হয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে।

এই ঘটনার প্রতিবাদে সোচ্চার হয়েছে এপার বাংলার বিভিন্ন রাজনৈতিক দল। তবে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখনও অবধি এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করেন নি। তাঁর এই মৌনতা নিয়ে কটাক্ষ করতেও ছাড়েন নি রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। তিনি বলেন, ‘ তৃণমূলকে ঘুমাতে বলুন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভবানীপুরে বলেছিলেন, তিনি হিন্দু বাড়ির মেয়ে বলে প্রধানমন্ত্রী তাঁকে অমুনতি দেন নি। আজ বাংলাদেশ ঘটনায় চুপ কেন? ভোটব্যাঙ্ক চলে যাবে বলে বিগত পাঁচদিন ধরে চুপ?’ তিনি আরও বেশ কিছু বিস্ফোরক মন্তব্য করে বলেন, ‘ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মৌনতাই বলে দিচ্ছে এই বিষয়ে তাঁর কোনও দায়বদ্ধতা নেই। দুধেল গাইরা চটে গেলে ভোটব্যাঙ্ক নড়ে যাবে তাই মমতা নিশ্চুপ। মানুষ সব দেখছে।’

সোমবার শুভেন্দু অধিকারীর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল বাংলাদেশের ডেপুটি হাই কমিশনারের সঙ্গে দেখা করেন এবং বাংলাদেশে সংখ্যালঘু হিন্দুদের সুরক্ষার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেন। পাশাপাশি হামলাকারীদের উচিত শিক্ষার দাবিও জানান তিনি। তিনি জানান, ‘ এই রাজাকার, জামাত মৌলবাদী শক্তি , এদের বিরুদ্ধে কঠিন ও কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে নচেৎ হিলি আর পেট্রোপোলে আমরাও শুয়ে থাকব।’