Taliban: পুরনো মেজাজে ফিরল তালিবানরা, কাবুল বিশ্ববিদ্যালয়ে মহিলা প্রবেশ নিষিদ্ধ করল জেহাদী সংগঠন

9
Taliban
কাবুল বিশ্ববিদ্যালয় মহিলা প্রবেশ নিষিদ্ধ করল তালিবান জঙ্গি গোষ্ঠী

মহানগর ডেস্ক: গত ১৫ আগস্ট কাবুল দখল করেছিল জেহাদী সংগঠন। অনেকেই ভেবেছিল তালিবান আগেরবারের থেকে অনেকটাই বদলিয়েছে। হয়তো এই তালিবান জঙ্গী গোষ্ঠী, মহিলাদের ছাড় দেবে। কিন্তু সে ক্ষেত্রে জল ঢেলে দিল তাঁরা। মহিলাদের প্রত্যেকটি পদক্ষেপেই বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছে তালিবানরা। এবার কাবুল বিশ্ববিদ্যালয় মহিলাদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করল তাঁরা। পড়ুয়া, শিক্ষিকা, শিক্ষা কর্মী-কোনও মহিলা কাবুল বিশ্ববিদ্যালয় প্রবেশ করতে পারবেন না। এই ফতোয়া জারি হওয়ার পর থেকেই মহিলাদের শিক্ষা এবং তাঁদের অধিকার নিয়ে বড়োসড়ো প্রশ্ন তৈরি হয়েছে।

সংবাদ সংস্থা সূত্রে জানা গেছে, বুধবার এই ফরমান জারি করে কাবু বিশ্ববিদ্যালয়ের নবনিযুক্ত উপাচার্য মহম্মদ আহরফ ঘাইরত জানান, যতদিন পর্যন্ত দেশে ইসলামী পরিবেশ তৈরি হচ্ছে না, ততদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে আমি মেয়েদের এখানে প্রবেশ করতে দিতে পারি না। আগে ইসলাম পরে অন্য সবকিছু। উপাচার্য জানিয়েছেন, বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ও শিক্ষকদের জন্য বিকল্প ব্যবস্থা করা হবে। তবে সেই ব্যবস্থা কি তা এখনও স্পষ্ট করে জানাননি তিনি। তিনি লিখেছেন, শিক্ষিকাদের পর্যাপ্ত সংখ্যা না থাকায় পুরুষরা পর্দার আড়ালে থেকে ছাত্রীদের পড়ানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

জানা গিয়েছে যে, কয়েকদিন আগেই কাবুল বিশ্ববিদ্যালয়ের উচ্চশিক্ষিত ও বর্ষীয়ান মোঃ ওসমান বাবুরিকে সরিয়ে উপাচার্য করা হয় তালিবান পন্থী এই ব্যক্তিকে। এরই প্রতিবাদে ইস্তফা দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ৮০ জন শিক্ষক। প্রকৃত শিক্ষিত মহল তালিবানপন্থীদের পছন্দ করেনা সেই আশরফ কয়েকদিন আগে মেয়েদের স্কুল প্রসঙ্গে বলেছিলেন, সেগুলো যৌনদাসী তৈরির কারখানা। এছাড়াও জানা গেছে, সম্প্রতি হেলমন্দ প্রদেশে নাপিত ও স্যালোগুলির জন্য নয়া নির্দেশিকা জারি করা হয়েছিল। যেখানে বলা হয়েছিল দাড়ি কাটা ইসলামবিরোধী। তাই কেউ দাড়ি কাটতে এলে তাঁদেরকে ফিরিয়ে দিতে হবে। অন্যথায় শাস্তির মুখে পড়তে হবে নাপিতদের।