Higher Secondary: ২০২২-র উচ্চমাধ্যমিকের পাঠক্রমে কাটছাঁটের সিদ্ধান্ত শিক্ষা সংসদের

22
The decision of the Education Parliament to cut the curriculum of higher secondary in 2022
পরিবর্তন হতে চলেছে উচ্চমাধ্যমিকের পাঠক্রম

মহানগর ডেস্ক: গত দু’বছর ধরে সারাবিশ্বে তান্ডব চালিয়ে যাচ্ছে করোনা। চলতি বছর করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। এবার সেই করোনার কথা মাথায় রেখেই আগামী বছর উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় হতে চলেছে সংক্ষিপ্ত পাঠক্রম। শুক্রবার সেই বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ। আগামী বছর আইসিএসই ও আইএসসি পরীক্ষা হবে দুই পর্বে অর্থাৎ সেমিস্টার পদ্ধতিতে।

সিবিএসই এই পদ্ধতিতে আগামী বছর মূল্যায়নের কথা আগেই ঘোষণা করা হয়েছে। শুক্রবার আইসিএসই ও আইএসসি বোর্ডের কাউন্সিল ফর ইন্ডিয়ান স্কুল সার্টিফিকেট এগজামিনেশন নয়া পদ্ধতির কথা ঘোষণা করল। ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষে দুটি সেমিস্টার হবে আইসিএসই তথা দশম এবং দ্বাদশ শ্রেণীর পরীক্ষা। প্রথম সেমিস্টারের পরীক্ষা হবে নভেম্বরে। দ্বিতীয় সেমিস্টারের পরীক্ষা হবে মার্চ-এপ্রিল নাগাদ।

বোর্ডের সচিব এই প্রসঙ্গে জানিয়েছেন যে, তাদের নবম এবং একাদশ শ্রেণির পরীক্ষা ২০২১ সালে হবেনা। দুই ক্লাসের সিলেবাসও কোন পরিবর্তন করা হচ্ছে না। চলতি বছর করোনার কথা মাথায় রেখে উচ্চমাধ্যমিক এবং একাদশ শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষার পাঠ্যসূচিতে কিছুটা কাটছাঁট করা হয়েছিল। এমনকি প্রশ্নের ধরনেও কিছুটা বদল আনা হয়েছিল। ২০২২ সালের উচ্চ মাধ্যমিক ও একাদশ-র বার্ষিক পরীক্ষার জন্য সংক্ষিপ্ত পাঠক্রম ও পরবর্তী পরিবর্তিত প্রশ্নের ধরন বজায় রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বোর্ডের তরফ থেকে আরও জানানো হয়েছে যে আগামী শিক্ষাবর্ষের জন্য নির্ধারিত পাঠ্যসূচির ৫০ শতাংশ প্রথম সেমিস্টারে হবে। আর বাকি ৫০ শতাংশ দ্বিতীয় সেমিস্টারে হবে নভেম্বরে হবে। প্রথম সেমিস্টার এর এমসিকিউ ভিত্তিতে বাড়িতে বসে অনলাইনে পরীক্ষা দিতে হবে। দ্বিতীয় সেমিস্টার হবে মার্চ-এপ্রিল নাগাদ। পরীক্ষা অফলাইন নাকি অনলাইন তা এখনও স্পষ্ট করে বলা হয়নি। দুটি সেমিস্টার মিলিয়ে ৮০/১০০ নম্বরের পরীক্ষা হবে। আইএসসি দ্বাদশ এর দুই সেমিস্টারের ৭০/৮০ নম্বরের পরীক্ষা হবে। এই নতুন পাঠ্যসূচিতে পাওয়া যাবে বোর্ডের ওয়েবসাইটের পাবলিকেশন নামক বিভাগে।

আইএসসি বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, আইএসসি দ্বাদশ শ্রেণির পরীক্ষার প্রাকটিক্যাল, প্রোজেক্টের জন্য বরাদ্দ থাকবে কিছু নম্বর। প্রাকটিক্যাল পরীক্ষার জন্য স্কুলে আসতে হবে নাকি বাড়িতে বসে অনলাইনে পরীক্ষা দিতে হবে তা জানিয়ে দেওয়া হবে।