SSC Scam: ‘সততা’র বাণী মন্ত্রীকন্যার মুখে! ভাইরাল ফেসবুক পোস্ট

101

মহানগর ডেস্ক: এসএসসি (SSC) দুর্নীতি কান্ডে রাজ্যের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারীর (Paresh Adhikari) সঙ্গে নাম জড়িয়েছে তাঁর কন্যা অঙ্কিতা অধিকারীর (Ankita Adhikari)। এবার সেই দুর্নীতি কাণ্ডে অঙ্কিতা অধিকারীকে চাকরি থেকে বরখাস্ত করার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। এমনকি তিনি যতদিন সহকারী শিক্ষিকা হিসেবে চাকরি করেছেন, ততো দিনের মাইনে ফেরত দিতে বলা হয়েছে। আর এরই মধ্যে সামনে এসেছে অঙ্কিতা অধিকারীর একটি ফেসবুক পোস্ট। যেখানে অঙ্কিতা অধিকারীর একটি ছবি পোস্ট করা হয়েছে এবং ছবির ক্যাপশনে লেখা হয়েছে ‘Honesty is the best policy…।’

যার বাংলা করলে দাঁড়ায় ‘সততাই মহৎ গুন’। অথচ সেই ব্যক্তির নাম জড়িয়েছে এসএসসি দুর্নীতির মামলায়। এসএসসি মেধাতালিকায় নাম না থাকা সত্ত্বেও গত ৪৩ মাস ধরে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের সহকারি শিক্ষিকা হিসেবে চাকরি করে যাচ্ছিলেন অঙ্কিতা অধিকারী। আজ কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে তাঁকে বরখাস্ত করা হয়। একই সঙ্গে ৪৩ মাসের শিক্ষকতা মাইনের টাকা ফেরত চাওয়া হয়েছে মন্ত্রী কন্যার থেকে। আদালতের তরফে জানানো হয়েছে, সিবিআই এখনও পর্যন্ত অঙ্কিতা অধিকারীকে নিয়ে কোনও রকম সিদ্ধান্ত নিতে পারেনি। তাই কলকাতা হাইকোর্টের তরফে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন: আমি আছি, মরে যাই নি: অনুব্রত মণ্ডল

মেধাতালিকায় নাম থাকা সত্বেও চাকরি পাননি অনেকেই। কিন্তু সেই জায়গায় চাকরি পেয়েছেন মন্ত্রীকন্যা অঙ্কিতা অধিকারী। আর এর পরেই অঙ্কিতার ফেসবুকের এই পোস্টটির সামনে আসতেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন নেটিজেনরা। একাধিক প্রশ্ন ওঠে। অনেকই বলে, যে নিজের সততার কথা বলছেন সে কিভাবে দুর্নীতি কাণ্ডে নিজের নাম জোরালো। একইসঙ্গে উঠে আসছে তার বাবার কথাও। মন্ত্রী হওয়া সত্বেও নিজের মেয়েকে সুযোগ আগে করিয়ে দিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় অবশেষে সিবিআইয়ের নিজাম প্যালেসে অফিসে হাজিরা দিয়েছিলেন রাজ্যের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারী। বৃহস্পতিবারে শিক্ষা প্রতিমন্ত্রীকে জিজ্ঞাসাবাদের পর সন্তুষ্ট হয়নি সিবিআইয়ের আধিকারিকেরা। এর পর ফের শুক্রবার তাকে তলব করা হয়েছিল। সকাল ১১ টা থেকে শুরু হয়েছিল তাঁর জিজ্ঞাসাবাদ। প্রায় ১০ ঘন্টা পর নিজাম প্যালেস থেকে বের হয়েছেন পরেশ অধিকারী।